lucknow stabbing

তামিলনাড়ু : স্বামীর জননাঙ্গ কেটে বিশ্বাসঘাতকতার সাজা দিলেন তিরিশ বছরের স্ত্রী।

ঘটনা তামিলনাড়ুর ভেলোরের গুডিয়াট্টাম এলাকার। গত বৃহস্পতিবার ভোর ৩টে নাগাদ সরসু নামের ওই মহিলা স্বামী জগদেশনের জননাঙ্গ ধারালো ছুরি দিয়ে কেটে ফেলেন। তার পর ওই কাটা অঙ্গটা নিজের টাকার ব্যাগে করে নিয়ে বাবার বাড়ি চলে যান। শুক্রবার ভি কোট্টা থেকে ওই মহিলাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ওই ব্যক্তিকে ভেলোরের সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অস্ত্রোপচার করা হয়েছে জগদেশনের। তাঁকে বিপদমুক্ত বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

সাব ইনস্পেকটর এ কৃষ্ণমূর্তি বলেন, চোদ্দ বছরের বিবাহিত জীবন সরসু আর জগদেশনের। চারটি সন্তান। কিন্তু সম্পর্কে নেই ভরসা আর বিশ্বাসের ভিত। প্রায় এক বছর ধরে আলাদা থাকছিলেন সরসু আর জগদেশন। চার ছেলেমেয়ে থাকছিল তাদের বাবার বাড়িতেই। যদিও গত এক মাস ধরে সরসু আর জগদেশন তাঁদের মধ্যের ঝগড়া মিটিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছিলেন। কিন্তু বুধবার রাতের ঘটনাটা বাড়াবাড়ি পর্যায় পৌঁছয়। মত্ত অবস্থায় জগদেশন বাড়ি ফেরে। রাতভর তাঁদের মধ্যে ঝগড়া চলতে থাকে। পুলিশ জানিয়েছে সরসু অভিযোগ করেছে, জগদেশন তাঁকে বার বার বলতে থাকেন তাঁর বয়স বেড়ে গেছে। তাই এ বার তিনি অন্য এক জন মহিলাকে বিয়ে করবেন। স্ত্রীর অভিযোগ, তাঁর অনুপস্থিতিতে কোনো মহিলাকে ঘরেও নিয়ে আসতেন জগদেশন। পুলিশ বলে, তর্কাতর্কি মাঝ রাত অবধি চলে। তার ২টোয় জগদেশন ঘুমিয়ে পড়লে সরসু রান্না ঘর থেকে ধারালো ছুরি এনে স্বামীর এই হাল করেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন