নয়াদিল্লি : ‘জনপ্রতিনিধিত্ব আইন ১৯৫১’ সংশোধন করার জন্য শীঘ্রই কেন্দ্রের কাছে আর্জি জানাবে নির্বাচন কমিশন। কমিশনের তরফে এ কথা জানানো হয়েছে সোমবার। নির্বাচনে যে সব প্রার্থী ভোটদাতাদের ঘুষ দিয়ে ভোট কেনার চেষ্টা করে, তাঁদের অযোগ্য ঘোষণা করে আগামী ৫ বছর তাঁদের অন্য কোনো নির্বাচনে প্রার্থী হওয়া নিষিদ্ধ করতে চায় কমিশন। এই মর্মে নির্বাচন কমিশন শীঘ্রই আর্জি জানাবেন আইন মন্ত্রকের কাছে।

এর আগে যে এলাকায় ভোটদাতাদের প্রভাবিত করার জন্য অর্থের ব্যবহার হয়, সেই এলাকার নির্বাচন বন্ধ করার জন্য সরকারের কাছে  ক্ষমতা চেয়েছিল নির্বাচন কমিশন। প্রসঙ্গত, যেখানে নির্বাচনের সময় পেশিশক্তি প্রয়োগ করার প্রমাণ থাকে একমাত্র সেখানকার নির্বাচনই বাতিল করার ক্ষমতা বর্তমানে কমিশনের আছে।

হালফিলেই তামিলনাড়ুর আর কে নগরের উপনির্বাচন বন্ধ করেছে কমিশন। অভিযোগ ছিল, এই এলাকায় রাজনৈতিক দলগুলো ভোটদাতাদের অর্থের বিনিময়ে প্রভাবিত করার চেষ্টা করছে। কমিশনের তরফে জানানো হয়েছিল, একটা নির্দিষ্ট সময়ের পর যখন টাকা ও উপহারের কুপ্রভাব কেটে যাবে, তখনই সেখানে নির্বাচন করা হবে। চেন্নাইয়ে তামিলনাড়ুর স্বাস্থ্যমন্ত্রী সি বিজয়ভাস্করের যে সম্পত্তি আছে, সেখানে আয়কর দফতর হানা দেওয়ার পর আর কে নগরের উপনির্বাচন স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত নেয় কমিশন।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here