chandan mitra

ওয়েবডেস্ক: উত্তরপ্রদেশের কইরানা লোকসভার উপনির্বাচনের ফলাফল বিজেপি-বিরোধী জোটের আত্মবিশ্বাস বাড়াতে পরিপূরক হলেও খোদ গেরুয়া শিবিরে বয়ে নিয়ে এসেছে আতঙ্কের আবহ। ফল প্রকাশের পর দিন বিজেপির প্রাক্তন সাংসদ চন্দন মিত্রের বক্তব্য সেই পরিস্থিতিকেই স্পষ্ট করল।

গত লোকসভা নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গ থেকে প্রার্থী হওয়া চন্দনবাবু বলেন, আগামী লোকসভা ভোটে যদি বিজেপি-বিরোধী জোট সমান ভাবে অটুট থাকে তা হলে বিজেপিকে ভয়ানক লড়াইয়ে সম্মুখীন হতে হবে।

এখানেই থেমে না থেকে তিনি বলেন, বিজেপি সরকার আসলে কৃষকদের সমস্যার বিষয়ে পর্যাপ্ত মনোযোগ দেয়নি। কৃষকেরা ভীষণ ভাবে অখুশি। এবং তারই বহির্প্রকাশ ঘটে গিয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ২৮ মে কইরানা লোকসভার উপনির্বাচনের ঠিক আগের দিন, ১৪ লেনের হাইওয়ে উদ্বোধন করতে গিয়ে ওই কেন্দ্রের ঢিল ছোড়া দূরত্বে দাঁড়িয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী কৃষকের সমস্যা সমাধানের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। প্রশ্ন উঠেছিল, বিগত চার বছর ক্ষমতায় থাকার সত্ত্বেও একেবারে উপনির্বাচনের দোরগড়ায় দাঁড়িয়ে মোদী কেন এত দিন পর কৃষকের সমস্যা অনুধাবন করলেন? এর জন্য তো তিনি চার বছর সময় পেয়েছেন। তিনি কইরানার সংলগ্ন বাগপতে দাঁড়িয়ে আখ চাষিদের ন্যায্য আর্থিক সংস্থানের কথাও বলেন। কারণ, কইরানায় দীর্ঘ দিন ধরে আখ চাষিরা বিক্ষোভ দেখিয়ে আসছেন।

অন্য দিকে জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি নিয়েও মোদী সরকারের সমালোচনা করেছেন চন্দনবাবু। তিনি বলেন, পেট্রোল-ডিজেলের দাম টানা ১৬ দিন বাড়লেও সরকার নীরব ছিল। যে দিন কমানো হল, সরকার সাধারণ মানুষের যন্ত্রণার উপশমে মাত্র ১ পয়সা কমালো। এটা একটা নিষ্ঠুর তামাশা।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here