kudmi
Samir mahat
সমীর মাহাত

ঝাড়গ্রাম: আগামী শুক্রবার, ১৫ জুন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের সঙ্গে সৌজন্য মূলক সাক্ষাৎ করবেন এ রাজ্যের আদিবাসী কুড়মি সমাজের প্রতিনিধিরা। নিজেদের কুড়মি জাতিকে পুনরায় তফশিলি উপজাতি (এসটি) তালিকায় অন্তর্ভুক্তির দাবির বিষয় নিয়ে তাঁরা মত বিনিময় করতে পারেন বলে জানা গিয়েছে।

সংগঠনের প্রধান অজিতপ্রসাদ মাহাত, রাজেশ মাহাত, তরুণ মাহাত ও গৌতম মাহাতর চার জনের প্রতিনিধি দল রাষ্ট্রপতির সঙ্গে দেখা করার অনুমোতি পেয়েছেন বলে দিল্লি থেকে জানান,সংগঠনের তরুণবাবু। একই ভাবে নানা দাবিত তাঁদের একটি দল প্রায় এক মাস যাবত দিল্লিতে পড়ে রয়েছেন। উল্লেখ্য, একই দাবিতে, ক্রমশ উত্তাল হচ্ছে ওড়িশা ও ঝাড়খণ্ডের মতো প্রতিবেশী রাজ্যও।

সংশ্লিষ্ট মহলের মতে, গোটা বিষয়টি নির্ভর করছে রাজনৈতিক সুদূর প্রসারী লক্ষের উপর। কেননা সামনেই লোকসভা নির্বাচন। ঝাড়খণ্ড রাজ্য বিজেপির দখলে থাকলেও ওড়িশা ও এ রাজ্যের ক্ষেত্রে তারা উঠেপড়ে লাগবেই। আবার কুড়মিদের এই আন্দোলনের বিরোধিতা শুরু করেছে অন্যান্য এসটি অন্তর্ভুক্ত গোষ্ঠী। এই সমাজের এক শীর্ষ নেতা বলেন, স্বীকৃতি কি তফশিলিরা দেবে, না সরকার দেবে?

পাশাপাশি, এ রাজ্যের কুড়মি আন্দোলনের অধিক প্রভাবিত এলাকায় পঞ্চায়েতে ভাল ফল করেছে বিজেপি। সংবাদে প্রকাশ কুড়মিদের ভোট ব্যঙ্ক এ ক্ষেত্রে সহায় হয়েছে। এলাকায় জল্পনা, হয়তো সে কারণেই মন্ত্রিত্ব খুইয়েছেন চূড়ামণি মাহাত। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, যে কোনও রাজ্যে সামাজিক আন্দোলন মানেই সরকারের বিরুদ্ধে যায়। ঝাড়খণ্ডে একই ইস্যুতে আন্দোলন জোরদার হলে তা সামাল দিতে হবে বিজেপিকেই। সেখানকার সাংসদ বিদ্যুৎবরণ মাহাত আগে ঝাড়খণ্ডি রাজনীতিতে থাকার সময় কুড়মিদের এই সামাজিক দাবির পক্ষেই ছিলেন। তবে, এ রাজ্যের আদিবাসী কুড়মি সমাজের শীর্ষ নেতৃত্ব পাঁচ বছর সরাসরি রাজনীতিতে যুক্ত হবেন না বলে সংগঠনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাতের পর এই সংগঠন কতটা ইতিবাচক সাড়া পায়, এখন সেদিকেই তাকিয়ে আছে তিন রাজ্যের বৃহত্তর কুড়মি সমাজ।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন