নয়াদিল্লি : এ বার জনসমক্ষে ফোনে তপসিলি জাতি উপজাতিদের জাত তুলে কথা বললেও তা ফৌজদারি অপরাধ হিসেবে গণ্য হবে। সঙ্গে ৫ বছর পর্যন্ত কারাবাসও হতে পারে। একটা মামলার প্রেক্ষিতে এই নির্দেশ দিল সুপ্রিম কোর্ট। উল্লেখ্য এর আগে সোশ্যাল মিডিয়ায় তপসিলি জাতি উপজাতিদের জাতপাত তুলে কোন কিছু পোস্ট করলে তা ‘তপসিলি জাতি ও উপজাতি (অত্যাচার প্রতিরোধ) আইন ১৯৮৯’ অনুযায়ী তা দণ্ডনীয় অপরাধ ছিল।

এই অপরাধে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে করা এফআইআর বাতিল ও ফৌজদারি কার্যকলাপ বন্ধ করার আবেদন খারিজ করে দিল সর্বোচ্চ আদালত। এই মর্মে ১৭ আগস্ট ইলাহাবাদ হাই কোর্টের দেওয়া রায়ই বহাল রাখল সুপ্রিম কোর্ট। পাশাপাশি বিচারপতি জে চেলামেশ্বর ও এস আবদুল নাজির নির্দেশ দেন, এই ব্যক্তি যে সেই সময়ে লোকালয়ের মধ্যে থেকে ওই মহিলার সঙ্গে ফোনে কথা বলেননি আদালতে সেটা প্রমাণ করতে হবে।

এই ব্যক্তি উত্তরপ্রদেশের বাসিন্দা। এক জন মহিলা তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন। অভিযোগে বলা হয়েছে তিনি তপসিল ভুক্ত ওই মহিলাকে ফোনে জাত তুলে নানা রকম মানহানিকর কথা বলেছেন, হুমকি দিয়েছেন।

অভিযুক্ত ব্যক্তির আইনজীবী বিবেক বিষ্ণৈ বলেন, ফোনে কথা বলার সময় বাদি-বিবাদি আলাদা আলাদা শহরে ছিলেন। সুতরাং এটা নির্দিষ্ট করা বলা যায় না এটা লোকসমক্ষে হয়েছে। কল্পনা ব্যতিরেকেই বলা যায় দু’ জন ব্যক্তির মধ্যে ফোনে কথাবার্তা হলে তার অভিব্যক্তিগুলো লোকচোখে পড়তে পারে। এই ধরনের অভিযোগ বাতিল হওয়া উচিত। তা ছাড়া তিনি আরও বলেন, জমি কেনাবেচার কিছু অস্পষ্ট অভিযোগও করা হয়েছে। ঠিকঠাক কোনো বক্তব্য পেশ করা হয়নি যার থেকে প্রমাণ হয় যে ওই মহিলাকে কোনো রকম হুমকি দেওয়া হয়েছে বা প্রতারণা করা হয়েছে।

উলটো দিকে আদালত স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছে, অভিযুক্ত ফোনে কথা বলার সময় লোকালয়ে ছিলেন কিনা সেটাই আদালতে প্রমাণ করার একমাত্র বিষয়। আর কিছুই না। আদালত আরও বলে, এ ক্ষেত্রে প্রি-ট্রায়ালের জন্য আবেদন করা যাবে না। অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ যে সব তথ্যপ্রমাণ জোগার করেছে সেগুলোই এই মামলার প্রাথমিক ভিত্তি হিসেবে গ্রাহ্য হবে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here