মোদী মন্ত্রীসভায় ঠাঁই হল না যে সব বড়ো নামের

0

ওয়েবডেস্ক: তাঁরা সকলেই বড়ো মাপের এবং প্রথমসারির নেতানেত্রী। আগের জমানাতেও গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রকের দায়িত্ব সামলেছেন তাঁরা। কিন্তু নতুন টিম-মোদীতে জায়গা হয়নি তাঁদের। দেখে নিন বাদ পড়া এমন সব বড়ো নামের।

সুষমা স্বরাজ

শারীরিক কারণ দেখিয়ে এ বার নির্বাচনে দাঁড়াননি ৬৭ বছরের এই প্রবীণা। কিন্তু তাও মনে করা হচ্ছিল এ বারও হয়তো মন্ত্রী হিসেবে শপথ নেবেন প্রাক্তন বিদেশমন্ত্রী। কিন্তু সেটা হয়নি। গত পাঁচ বছরে সোশ্যাল মিডিয়ায় অত্যন্ত জনপ্রিয় এই নেত্রী এ বার মন্ত্রী হিসেবে শপথ নেননি। ভবিষ্যতে তাঁকে মন্ত্রীসভায় নিয়ে আসা হবে না বলেই মনে করা হচ্ছে।

অরুণ জেটলি

শারীরিক কারণ দেখিয়ে নিজেই এ বার মন্ত্রী হতে চাননি ৬৬ বছরের অরুণ জেটলি। তাঁর দাবি, গত ১৮ মাসে গুরুতর অসুস্থতার মধ্যে দিয়ে যাচ্ছেন জেটলি। এমনকি গত ফেব্রুয়ারিতে বাজেট পেশ করতে পারেননি প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী।

রাজ্যবর্ধন সিং রঠোর

মন্ত্রীসভা থেকে ৪৯ বছর বয়সী এই নেতাকে বাদ দেওয়ার কারণ জানা যায়নি। আগের জমানায় ক্রীড়া মন্ত্রকের দায়িত্ব সামলেছেন তিনি। মনে করা হচ্ছে তাঁকে মন্ত্রী না করে, রাজস্থান বিজেপির গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব দেওয়া হবে।

মানেকা গান্ধী

নারী ও শিশু সুরক্ষা মন্ত্রকের দায়িত্বে থাকা মানেকা এ বার মন্ত্রী হচ্ছেন না। বদলে তাঁকে প্রো-টেম বা অন্তর্বর্তীকালীন স্পিকার হিসেবে দেখা যেতে পারে। প্রো-টেম স্পিকারের দায়িত্ব হল স্পিকার নির্বাচনের আগে পর্যন্ত নতুন লোকসভার দায়িত্ব সামলাবেন তিনি। সব সাংসদের শপথবাক্যও পাঠ করাবেন তিনি।

আরও পড়ুন কংগ্রেসে মিশে যেতে চলেছে গুরুত্বপূর্ণ শরিক? জল্পনা

উমা ভারতী

লোকসভা নির্বাচনে না লড়ার সিদ্দান্ত নিয়েছিলেন উমা ভারতী। তাঁর বদলে স্বচ্ছ গঙ্গা অভিযানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে চান তিনি।

সুরেশ প্রভু

২০১৪ সালে মন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়ে প্রথমে রেলমন্ত্রকের দায়িত্ব পান তিনি। তাঁর জমানায় রেলে কিছু উল্লেখযোগ্য উন্নতিও হয়। এমন কি টুইটারে রেল পরিষেবা সংক্রান্ত অভিযোগের জবাবও দিতেন তিনি। কিছুটা প্রচারবিমুখ থাকা রাজ্যসভার এই সাংসদের এ বার আর মন্ত্রীসভায় জায়গা হল না।

কেজে আলফোন্স

কেরল বিজেপির একমাত্র মুখ ছিলেন আলফোন্স। কেন্দ্রীয় পর্যটন প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। কিন্তু এ বার আর হল না মন্ত্রী হওয়া। কারণ এর্নাকুলম কেন্দ্র থেকে ভোটে দাঁড়িয়ে গো হারান হেরেছেন তিনি। কংগ্রেস এবন সিপিএম প্রার্থীদের পেছনে তৃতীয় স্থানে ছিলেন তিনি।

জয়ন্ত সিনহা

প্রথমে ছিলেন অর্থ দফতরের প্রতিমন্ত্রী। পরে চলে গেলেন অসামরিক বিমানপরিবহণ মন্ত্রকে। তাঁকে নিয়ে বিতর্কও কোনো কম হয়নি। কিন্তু বাজপেয়ী জমানার অর্থমন্ত্রীর ছেলে যশবন্ত সিনহার ছেলের এবার ঠাঁই হল না মন্ত্রীসভায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.