Tipu Sultan

নয়াদিল্লি: মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল সাধারণতন্ত্র দিবস উপলক্ষে দিল্লি বিধানসভায় ৭০ জন মহান ব্যক্তিত্বের ছবির আবরণ উন্মোচন করেন। ভারতের উন্নতি সাধন এবং স্বাধীনতা সংগ্রামে অংশ নেওয়া বরেণ্য ব্যক্তিদের ওই ছবি স্থাপন নিয়েই বিজেপির সমালোচনা তীব্র আকার নিল।

আম আদমি পার্টির সরকার এই তালিকায় যাঁদের বেছে নিয়েছে তার মধ্যে উল্লেখ যোগ্য আশফাকুল্লা খান, ভগত সিং, বীরসা মুণ্ডা, রানি চেন্নাম্মা এবং সুভাষচন্দ্র বসু প্রমুখ। তবে ওই তালিকা নিয়ে বিজেপির ক্ষোভ ছড়াল বিধানসভাতেই। বিশেষ করে টিপু সুলতানের ছবিটি নিয়ে বিজেপির ঘোর আপত্তি রয়েছে। এ ব্যাপারে আগেও তারা নিজেদের অবস্থান স্পষ্ট করে দিয়েছিল।

অষ্টাদশ শতকের মাইসোরের শাসক টিপু সুলতানের ছবি কেন দিল্লি বিধাসসভায় স্থান পাবে, সে বিষয়ে কোনো যুক্তি খুঁজে পাচ্ছে না বিজেপি। দলের বিধায়ক রাজৌরি গার্ডেন বলেন, যাঁদের ছবি বসানো হয়েছে তাঁদের মধ্যে অনেকেরই দিল্লির সঙ্গে তেমন কোনো সম্পর্ক নেই। সরকার যদি ছবি বসানোর সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় তাঁদেরকেই বেছে নিত, যাঁদের সঙ্গে দিল্লি এবং এখানকার ইতিহাসের যোগাযোগ রয়েছে, তা হলে কোনো আপত্তি ছিল না। তিনি বলেন, ‘বিতর্কিত ব্যক্তিকে কেন এই তালিকায় রাখা হল? কেন দিল্লির বরেণ্য ব্যক্তিদের বাতিল করা হল? দিল্লির ইতিহাসে যাঁদের অবদান রয়েছে তাঁরা কেন বাদ পড়লেন?’

বিজেপির এই ক্ষোভের জবাব বিদ্রুপের সঙ্গেই ফিরিয়ে দিয়েছে আপ। দলের তরফে বলা হয়েছে, তারা বিজেপিকে আগেই জানিয়েছিল সঙ্ঘ পরিবার থেকে কোনো স্বাধীনতা সংগ্রামীর নাম জানাতে। কিন্তু বিজেপি তা জানাতে ব্যর্থ হয়েছে। আপ বিধায়ক সৌরভ ভরদ্বাজ বলেন, ‘আমরা আগেও বিজেপিকে বলেছি আপনাদের দলে বা আরএসএসে যদি তেমন কোনো স্বাধীনতা সংগ্রামীর নাম পাওয়া যায় তা হলে জানান। কিন্তু সময় পার হয়ে গেলেও বিজেপি তেমন এক জনেরও নাম জানাতে পারেনি। নাম চয়নের জন্য ছ’মাস সময় দেওয়া হয়েছিল।’

বিধানসভার অধ্যক্ষ রাম নিবাস গোয়েল অবশ্য বিষয়টিকে অন্য মাত্রায় নিয়ে গিয়ে মন্তব্য করেন, ‘প্রতিটি বিষয়ে বিতর্ক তৈরি করাই এখন বিজেপির কর্মসূচি হয়ে দাঁড়িয়েছে।’

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন