amit shah, narendra modi

ওযেবডেস্ক: উত্তরপ্রদেশের সমাজবাদী পার্টি এবং বহুজন সমাজ পার্টির জোট যে বিজেপির কাছে চ্যালেঞ্জ, তা কার্যত স্বীকার করে নিলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ।

নয়াদিল্লিতে নরেন্দ্র মোদী সরকারের চার বছর পূর্তির অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি জানান, “উত্তরপ্রদেশে এই দুই দল যদি জোটবদ্ধ ভাবে লড়াই করে তবে তা বিজেপির কাছে চ্যালেঞ্জের। যদিও ২০১৯-এর লোকসভা ভোটে উত্তরপ্রদেশে রায়বেরেলি এবং আমেথির মধ্যে একটি আসন বাদ দিয়ে বাকি সমস্ত কেন্দ্রেই বিজেপি জিতবে”।

অমিত বলেন, “বিজেপি মহারাষ্ট্রে শিবসেনাকে কখনো দূরে সরিয়ে দেয়নি। এনডিএ-তে শিবসেনা এখনও রয়েছে। তবে উপনির্বাচনে যদি তারা বিকল্পের সন্ধানে পৃথক প্রার্থী দেয় বিজেপির কী করার থাকতে পারে। আগামী ২০১৯-এর লোকসভা ভোটে শিবসেনা বিজেপির সঙ্গেই লড়বে। এ ব্যাপারে বিজেপি কখনোই নিজেদের অবস্থান থেকে সরবে না। কিন্তু শিবসেনা যদি অন্য কোনো পথ ধরে তাতে বিজেপি বাধার সৃষ্টি করবে না”।

আরও পড়ুন: মোদীর চার বছর: দেশীয় অর্থনীতির যে চারটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে ঘটছে চুড়ান্ত মোহভঙ্গ!

২০১৯-এর জন্য এখন থেকেই বিজেপি-বিরোধী দলগুলি একত্রিত হচ্ছে। এ বিষয়ে অমিত মনে করেন, “নিজেদের দলীয় মতাদর্শকে সরিয়ে রেখে শুধু মাত্র বিজেপিকে সরানোর এই জোট মোটেই স্থায়িত্ব পাবে না। ওরা যতই চেষ্টা করুক, সাফল্য অর্জন করা সম্ভব নয়। ২০১৪ সালের ভোটেও বিজেপিকে রুখতে ওরা সক্রিয় ছিল। কিন্তু দেখা গেছে শুধুমাত্র নিজের নিজের রাজ্যেই তারা সীমাবদ্ধ থেকে গেছে। আগামী লোকসভা ভোটেও তা অন্যথা হবে না”।

২০১৪-র পরেও বিজেপি পশ্চিমবঙ্গ, তেলঙ্গনা, উত্তর-পূর্ব ভারতের একাধিক নির্বাচনে ভালো ফল করেছে বলে দাবি করেন অমিত। তিনি বলেন, “সামনে রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশ এবং ছত্তীশগঢ়ের বিধানসভা নির্বাচন। ওই তিন রাজ্যে দলগত ভাবে মুখ্যমন্ত্রী পরিবর্তনের কোনো পরিকল্পনা নেই”।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here