Bed teacher traning

ওয়েবডেস্ক: ন্যাশনাল কাউন্সিল ফর টিচার এডুকেশন বা এনসিটিই-র অবস্থান থেকেই স্পষ্ট, দু’বছরের বিএড কোর্স খুব শীঘ্রই উঠে যাবে।এনসিটিই-র এই সিদ্ধান্তে সরকারি শিলমোহরও পড়ে গিয়েছে এ বারের বাজেটে। যেখানে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীও নতুন ইন্টিগ্রেটেড বিএড নিয়ে কেন্দ্রের পরিকল্পনার কথা জানিয়ে দিয়েছেন। কী এমন সুবিধা রয়েছে প্রস্তাবিত ইন্টিগ্রেটেড বিএডে?

এনসিটিই-র উদ্দেশ্য, বিএড কোর্সকে বিটেক অথবা এমবিবিএসের সমস্তরে উন্নীত করা। কোনো পড়ুয়া ১০+২ ক্লাস পাশ করার পর স্থির করে সে কোন দিকে যাবে। সেখান থেকেই প্রবেশিকা পরীক্ষার মধ্যে দিয়ে ইঞ্জিনিয়ার বা ডাক্তার হওয়ার লক্ষ্যে তাঁকে এগোতে হয়। ঠিক একই ভাবে শিক্ষকতার পথ বেছে নিতে আগ্রহী ছাত্র-ছাত্রীরা ওই সময়েই বিএডের দিকে যেতে পারবেন। এমনটাই জানা গিয়েছে কাউন্সিলের একটি রিপোর্টে।

ইন্টিগ্রেটেড বিএডে একই সঙ্গে যুক্ত হবে কলা এবং বি়জ্ঞানের স্নাতক পাঠক্রম। এখনও পর্যন্ত কাউন্সিলের খবর অনুযায়ী জানা গিয়েছে, মহারাষ্ট্র প্রথম ইন্টিগ্রেটেড বিএডের জন্য অভিন্ন প্রবেশিকা পরীক্ষা নিতে চলেছে। আগামী ১৮ জুন,২০১৮-য় সেই প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়ার কথা রয়েছে। ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের চার বছরের বিএড বিএ/বিএসসি এবং তিন বছরের বিএড/এমএড পরীক্ষা গ্রহণ করা হবে মহারাষ্ট্রে।

আরও পড়ুন: বিএড: ২৮ মার্চের মধ্যেই জমা পড়ছে শিক্ষকদের যোগ্যতা নির্দেশক কমিটির রিপোর্ট

উল্লেখ্য, ২০১৪ সালে কেন্দ্র বিএড কোর্সের মেয়াদে আমূল পরিবর্তন করে। যে কারণে ১০+২ ক্লাস পাশ করার জন্য শিক্ষণ কোর্স সম্পূর্ণ করে চাকরিতে যোগ দিতে ন্যূনতম সময়ের প্রয়োজন হতো পাঁচ বছর। তিন বছরের স্নাতক এবং দু’বছরের বিএড কোর্স সম্পূর্ণ করতে গিয়ে অনেকেই আগ্রহ হারিয়ে মাঝ পথে অন্য পেশায় যুক্ত হয়ে যান। অন্য দিকে দেশে এ মুহূর্তের শিক্ষকের চাহিদা পূরণেও রয়ে যাচ্ছে ঘাটতি। ফলে নতুন এই ইন্টিগ্রটেড বিএডে কোনো পড়ুয়া যেমন ১০+২ ক্লাস পাশ করার পরই ভর্তি হওয়ার সুযোগ পান, তা হলে মাত্র চার বছরেই তিনি একই সঙ্গে স্নাতক এবং শিক্ষণ প্রশিক্ষণের কোর্স সম্পূর্ণ করতে পারবেন।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here