Connect with us

দেশ

১১৪টি আধার এনরোলমেন্ট এবং আপডেট কেন্দ্র খুলছে দেশের ৫৩টি শহরে

ওয়েবডেস্ক: বৃহস্পতিবার ইউনিক আইডেন্টিফিকেশন অথরিটি অব ইন্ডিয়া (ইউআইডিএআই) কর্তৃপক্ষ জানান, এ মুহূর্তে সারা দেশে ২১টি আধার সেবা কেন্দ্র (এএসকে) কার্যকর রয়েছে। পাশাপাশি দেশের বিভিন্ন প্রান্তে আরও ১১৪টি আধার এনরোলমেন্ট এবং আপডেট কেন্দ্র খোলার পরিকল্পনা রয়েছে আধার কর্তৃপক্ষের।

ইউআইডিএআই এ দিন একটি বিবৃতিতে জানায়, ব্যাঙ্ক, পোস্ট অফিস এবং রাজ্য সরকারি দফতর মিলিয়ে দেশের ৩৫ হাজার আধার এনরোলমেন্ট কেন্দ্রের সঙ্গেই নতুন সংযোজন এই ১১৪টি কেন্দ্র।

বিবৃতিতে বলা হয়, এ মুহূর্তে সারা দেশে ২১টি এএসকে চালু রয়েছে। একই সঙ্গে দেশের ৫৩টি শহরে ১১৪টি স্বতন্ত্র আধার এনরোলমেন্ট এবং আপডেট কেন্দ্র তৈরির পরিকল্পনা রয়েছে কর্তৃপক্ষের।

এমনতিতে আধার এনরোলমেন্ট পরিষেবা বিনামূল্যে দেওয়া হয়। তবে আপডেটের জন্য ৫০ টাকা ধার্য দিতে হয়। আধারের সঙ্গে মোবাইল নম্বর সংযুক্তিকরণ এবং ঠিকানা পরিবর্তনের জন্য ওই চার্জ প্রযোজ্য বলে জানিয়েছন কর্তৃপক্ষ।

দেশ

সিবিএসইর দ্বাদশ শ্রেণির ফলাফল প্রকাশিত, নেই মেধাতালিকা

cbse class X result

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সিবিএসইর (CBSE) দ্বাদশ শ্রেণির ফলাফল প্রকাশিত হল সোমবার। মোট দশ লক্ষ ৫৯ হাজার পরীক্ষার্থী ছিল এ বার। এ বছর পাশের হার ৮৮.৭৮ শতাংশ, গত বছর ছিল ৮৩.৪০ শতাংশ ছিল। তবে এ বার কোনো মেধাতালিকা প্রকাশিত হচ্ছে না।

করোনা (Coronavirus) সংকটের কারণে মার্কশিট নেওয়ার জন্য এ বার স্কুল বা জোনাল অফিসে যাওয়ার কোনো প্রয়োজন নেই বলে জানিয়েছে বোর্ড।

তার বদলে ডিজি লকার (DigiLocker app) থেকে সরাসরি এই মার্কশিট ডাউনলোড করে নিতে পারবে ছাত্রছাত্রীরা। রেজিস্টার্ড ইমেল আইডি-তে স্কুলগুলিকেও রেজাল্ট পাঠিয়ে দেওয়া হবে।

উল্লেখ্য, করোনা পরিস্থিতি সামাল দিতে গত ২৪ মার্চ দেশ জুড়ে লকডাউন ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় সরকার। এক টানা এই লকডাউনের জেরে সিবিএসই-র দ্বাদশ শ্রেণির কিছু পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব হয়নি।

গত ২৬ জুন বিষয়টি নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে শুনানি চলাকালীন সিবিএসই-র তরফে জানানো হয়, আগের পরীক্ষার প্রাপ্ত নম্বরের ভিত্তিতে পড়ুয়াদের নম্বর দিয়ে দেওয়া হবে। পরিস্থিতি শুধরালে পরবর্তী কালে ওই বিষয়গুলিতে পড়ুয়ারা ফের পরীক্ষা দিতে পারবে বলেও বোর্ডের তরফে জানানো হয়।

Continue Reading

দেশ

শক্তিপ্রদর্শন গহলৌত শিবিরের, বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার প্রস্তাব

জয়পুর: সচিন পায়লটের (Sachin Pilot) বিদ্রোহকে ঘিরে এখন টালমাটাল পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে কংগ্রেসে। রাজস্থানের সরকার টিকবে কি না, সেই নিয়ে প্রশ্নচিহ্ন উঠে গিয়েছে। এরই মধ্যে সোমবার অশোক গহলৌত (Ashok Gehlot) শিবির শক্তিপ্রদর্শন করেছে। একই সঙ্গে, বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়ারও প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে।

এ দিন দুপুরে কংগ্রেসের পরিষদীয় দলের বৈঠক হয়েছে জয়পুরে। কংগ্রেসের দাবি, ওই বৈঠকে ১০২ জন বিধায়ক হাজির হয়ে মুখ্যমন্ত্রী অশোক গহলৌতের সরকারের প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন।

এমনকি, “দল আর সরকার বিরোধী কাজ করলে” দলীয় বিধায়কদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার প্রস্তাব গৃহীত হয়েছে এ দিনের বৈঠকে।

অন্য দিকে গুরুগ্রাম থেকে ‘বিদ্রোহী’ উপমুখ্যমন্ত্রী সচিন পায়লট বলেছেন, “অশোক গহলৌতের দাবি ভুল। আমার পাশে ২৫ জন বিধায়ক বসে রয়েছেন। আমরা কেউই কংগ্রেস পরিষদীয় দলের বৈঠকে যোগ দিতে জয়পুরে যাইনি।’’

এ দিন গহলৌতের বাসভবনে আয়োজিত বৈঠকে হাজির হওয়ার জন্য কংগ্রেস বিধায়কদের উদ্দেশে হুইপ জারি করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। গরহাজিরদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়ারও হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু তা সত্ত্বেও বেশ কয়েকজন বিধায়ক যে এ দিন জয়পুরে ছিলেন না, গহলৌত শিবিরের দাবি থেকেই সে হিসেব স্পষ্ট।

তবে হাজির থাকা বিধায়কদের সঙ্গে ১০০ পেরোনোয় আপাতত গহলৌত কিছুটা হলেও ‘অ্যাডভান্টেজে’ রয়েছেন বলে মনে করছে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। সরকার ফেলে দেওয়ার মতো প্রয়োজনীয় সংখ্যা এখনও সচিন শিবিরের কাছে নেই বলেই মনে করা হচ্ছে।

পাশাপাশি সচিন পায়লটের ক্ষোভ প্রশমনের চেষ্টাও চালাচ্ছে কংগ্রেস। এ দিন সকালেই জয়পুরে হাজির হন সনিয়া গান্ধীর ‘দূত’ রণদীপ সিংহ সুরজেওয়ালা। সনিয়া এবং রাহুলের সঙ্গে আলোচনা করে সমস্যা মিটিয়ে নেওয়ার জন্য সচিনকে বার্তা দিয়েছেন তিনি।

সূত্রের খবর, কংগ্রেস শিবিরকে তিনটে শর্ত দিয়েছেন সচিন। প্রথমত, অর্থ এবং স্বরাষ্ট্র দফতর তাঁর শিবিরকে দিতে হবে। তাঁর অনুগামী চার বিধায়ককে মন্ত্রী করতে হবে এবং উপমুখ্যমন্ত্রী পদের পাশাপাশি প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি পদেও তাঁকে বহাল রাখতে হবে।

জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়ার মতো তিনিও বিজেপিতে যেতে পারেন বলে জল্পনা ছড়ালেও, এ দিন সকালে সচিন জানিয়েছেন তিনি গেরুয়া শিবিরে যাচ্ছেন না। চাপের মধ্যেও এটা ভরসা দিচ্ছে গহলৌত শিবিরকে।

Continue Reading

দেশ

বিজেপিতে যাচ্ছি না, বললেন সচিন পায়লট

খবরঅনলাইন ডেস্ক: রবিবার সারা দিন জল্পনা চলল, রাজস্থানের (Rajasthan) উপ-মুখ্যমন্ত্রী কংগ্রেসের বিদ্রোহী নেতা সচিন পায়লট (Sachin Pilot) কী করবেন। রবিবার বেশ রাতে কয়েক জন সাংবাদিককে সচিন জানিয়েছেন, তিনি বিজেপিতে যাচ্ছেন না।

মুখ্যমন্ত্রী অশোক গহলৌতের (Ashok Gehlot) বিরুদ্ধে বিদ্রোহের ধ্বজা ওড়ানোর পর থেকেই জল্পনা শুরু হয়েছিল, তা হলে মধ্যপ্রদেশের কমল নাথের সরকার ওলটানোর জন্য জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া যে পথ নিয়েছেন, সেই পথেই চলবেন তাঁর বন্ধু সচিন পায়লট। আপাতত সেই জল্পনায় জল ঢেলে দিলেন তিনি।

পায়লট শিবিরের হোয়াটস অ্যাপ বার্তা

সোমবার সকালে জয়পুরে রাজস্থান কংগ্রেস পরিষদীয় দলের বৈঠক ডেকেছেন মুখ্যমন্ত্রী। সেই বৈঠকে যে সচিন ও তাঁর অনুগামীরা থাকবেন না, সেই বার্তা তাঁদের হোয়াটস অ্যাপ গ্রুপ মারফত ছড়িয়ে দেওয়া হয়। সেই বার্তা দেওয়ার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই এল সচিনের সাম্প্রতিকতম বার্তা – তিনি বিজেপিতে যাচ্ছেন না।

ওই হোয়াটস অ্যাপ বার্তায় এ-ও বলা হয়েছিল, সচিন পায়লটের দিকে দলের অন্তত ৩০ জন বিধায়ক ও কিছু নির্দল বিধায়কের সমর্থন রয়েছে। এই পরিস্থিতিতে সংখ্যালঘু সরকার চালাচ্ছেন অশোক গহলৌত।

এই হোয়াটস অ্যাপ বার্তা থেকে এটা অবশ্য প্রমাণিত হয় না যে সচিন পায়লট বিজেপির দিকে পা বাড়িয়ে আছেন। তবে তাঁর কিছু আচার-আচরণ সে দিকে ইঙ্গিত করছিল – যেমন, কংগ্রেসের দূতদের সঙ্গে কথা বলতে না চাওয়া, জয়পুরে দলের বিধায়কদের সভায় যোগ দেওয়ার ব্যাপারে অনিচ্ছা প্রকাশ করা এবং হোয়াটস অ্যাপ বার্তা দেওয়ার আগে থেকেই তাঁর দলত্যাগের সম্ভাবনার কথা প্রচার হওয়া। এ যেন মার্চে ঘটে যাওয়া মধ্যপ্রদেশেরই চিত্রনাট্য – ২২ জন অনুগামী বিধায়ককে নিয়ে জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া বিজেপিতে ভিড়লেন এবং কমল নাথের সরকারকে গদি থেকে নামালেন।   

জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়ার টুইট

ইতিমধ্যে রবিবার টুইট করে জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া যে ভাবে সচিন পায়লটকে গুরুত্বহীন করে নিগ্রহ করা হচ্ছে তাতে হতাশা প্রকাশ করেন। ওয়াকিবহাল মহল জানেন, দু’ জনের মধ্যে ভালো বন্ধুত্ব রয়েছে এবং দু’ জনেরই ক্ষোভের কারণ একটিই। তাঁদের ধারণা, ২০১৮-এর বিধানসভা নির্বাচনে মধ্যপ্রদেশ ও রাজস্থানে জয়ের পরে তাঁদের মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার ন্যায়সঙ্গত দাবি নস্যাৎ করে দিয়েছে দলের হাইকম্যান্ড।

সূত্র মারফত জানা গেছে, রবিবারের টুইটের পরে জ্যোতিরাদিত্য ও সচিনের মধ্যে কথাবার্তা হয়েছে এবং সচিনের বিজেপিতে যোগ দেওয়ার বিষয় নিয়েও দু’ জনের আলোচনা হয়েছে।

তা হলে কী এমন ঘটল যে সচিন পায়লট স্পষ্ট করে দিলেন যে তিনি বিজেপিতে যাচ্ছেন না। এই প্রশ্নই এখন ঘুরপাক খাচ্ছে রাজনৈতিক মহলে।

কংগ্রেস সূত্র এবং পায়লটের ঘনিষ্ঠ এক সূত্র আউটলুককে জানিয়েছেন, বিজেপির সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলছিলেন উপ-মুখ্যমন্ত্রী এবং দলত্যাগের সব দিক খতিয়ে দেখছিলেন। জ্যোতিরাদিত্যের সঙ্গে কথা বলার পরে সচিন বিজেপির এক সিনিয়ার কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলেন এবং তিনি যে দল পরিবর্তনে রাজি তা ঠারেঠোরে তাঁকে জানান। শর্ত একটাই, তাঁকে একটা সম্মানজনক প্রস্তাব দিতে হবে। কিছু কিছু সংবাদ মাধ্যম খবরও করে দেয় যে, বিজেপি সভাপতি জে পি নড্ডার উপস্থিতিতে সোমবারই বিজেপিতে যোগ দেবেন সচিন পায়লট।

হঠাৎ কী হল

আউটলুক লিখেছে, এর পরই মধ্যপ্রদেশের চিত্রনাট্য থেকে একটু বদলে যায় রাজস্থানের চিত্রনাট্য। ৩০ না হলেও, পায়লট যে অন্তত ২৫ জন বিধায়কের সমর্থন জোগাড় করতে পারবেন, তার নিশ্চয়তা চায় বিজেপি। আসলে উচ্চাভিলাষী পায়লটের মন রাখার জন্য বিজেপি কোনো রকম ঝুঁকি নিতে চায়নি। ২০০ সদস্যের রাজস্থান বিধানসভায় বিজেপির সদস্য রয়েছেন ৭২ জন। আরও জনা ছয়েক বিধায়ক বিজেপির দিকে রয়েছেন। অন্য দিকে কংগ্রেসের সদস্য সংখ্যা ১০৭ এবং তাদের দিকে সমর্থন রয়েছে আরও ডজনখানেক বিধায়কের। সুতরাং পায়লট যদি ২৫ জনকে তাঁর সঙ্গে বিজেপিতে আনতে পারেন তা হলে সংখ্যাগরিষ্ঠতার থেকে গোটা দুয়েক বেশি বিধায়কের সমর্থন থাকবে বিজেপির দিকে। আর তখন নির্দলদেরও টোপ দিয়ে তাদের দিকে টানতে পারবে তারা। এটাই ছিল হিসাব।

জানা যায়, এখানেই বিপাকে পড়েছেন সচিন পায়লট। সম্ভবত, ইতিমধ্যে পায়লটের কিছু সহযোগী তাঁর সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেছেন। স্বাস্থ্যমন্ত্রী রঘু শর্মাকে, যিনি পায়লটের গোঁড়া সমর্থক ছিলেন, অতি সম্প্রতি মুখ্যমন্ত্রীর ঘনিষ্ঠ হতে দেখা গেছে। পায়লটের আরও অন্তত তিন বিশ্বস্ত অনুগামী বিধায়ক রোহিত বহরা, চেতন দুদি এবং দানিশ আবরার রবিবার সন্ধ্যায় মুখ্যমন্ত্রীর বাসভবনে তাঁর সঙ্গে দেখা করেন এবং পরে তাঁরা সংবাদ মাধ্যমকে জানান তাঁরা কংগ্রেস এবং মুখ্যমন্ত্রীর প্রতি দায়বদ্ধ। উপ-মুখ্যমন্ত্রীর বিদ্রোহের সঙ্গে তাঁর অনুগামী যে ১৬ জন বিধায়ক শনিবার ও রবিবার দিল্লি ও গুরুগ্রামের হোটেলে ছিলেন, এই তিন জন তাঁদের মধ্যে ছিলেন।

সচিন পায়লটকে যে ইঙ্গিত দিয়েছিল বিজেপি তা থেকে তারা সরে এসেছে কি না বা নিজের শিবিরে বিশ্বাসঘাতকতার আঁচ পেয়ে পায়লট নিজেই পিছিয়ে এসেছেন কি না, তা স্পষ্ট বোঝা না গেলেও, এটা পরিষ্কার প্রতিদ্বন্দ্বী অশোক গহলৌতের জামার আস্তিনে ক’টা তাস লুকোনো আছে তা না বুঝেই একটু আগ বাড়িয়ে খেলছিলেন সচিন পায়লট। তাই কি তাঁর পিছিয়ে আসা?

Continue Reading
Advertisement
প্রযুক্তি1 hour ago

‘মেড ইন ইন্ডিয়া’, টিকটকের পাল্টা ‘জোশ’ অ্যাপ এল বাজারে

রাজ্য2 hours ago

মৃত্যুহার কমে ৩ শতাংশে, রাজ্যে নতুন আক্রান্তের সংখ্যাও কিছুটা কমল

ক্রিকেট4 hours ago

ন্যাটওয়েস্ট ফাইনালের ১৮ বছর, টুইটে নাসির হুসেনকে ট্রোল যুবরাজের, জবাবে নাসির যা বললেন…

বিদেশ4 hours ago

প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের কবলে নেপাল, ভূমিধসে মৃত ৬০

রাজ্য5 hours ago

বিধায়ক-মৃত্যুতে সিআইডিকে তদন্তভার রাজ্যের, উত্তরবঙ্গে বন্‌ধ ডাকল বিজেপি

cbse class X result
দেশ5 hours ago

সিবিএসইর দ্বাদশ শ্রেণির ফলাফল প্রকাশিত, নেই মেধাতালিকা

দেশ5 hours ago

শক্তিপ্রদর্শন গহলৌত শিবিরের, বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার প্রস্তাব

football2
ফুটবল11 hours ago

কোভিড-পরিস্থিতিতে আসন্ন আই লিগের সব ম্যাচই কলকাতায় করার ভাবনা

কেনাকাটা

কেনাকাটা1 day ago

হ্যান্ডওয়াশ কিনবেন? নামী ব্র্যান্ডগুলিতে ৩৮% ছাড় দিচ্ছে অ্যামাজন

খবরঅনলাইন ডেস্ক : করোনাভাইরাস বা কোভিড ১৯ এর সঙ্গে লড়াই এখনও জারি আছে। তাই অবশ্যই চাই মাস্ক, স্যানিটাইজার ও হ্যান্ডওয়াশ।...

কেনাকাটা4 days ago

ঘরের একঘেয়েমি আর ভালো লাগছে না? ঘরে বসেই ঘরের দেওয়ালকে বানান অন্য রকম

খবরঅনলাইন ডেস্ক : একে লকডাউন তার ওপর ঘরে থাকার একঘেয়েমি। মনটাকে বিষাদে ভরিয়ে দিচ্ছে। ঘরের রদবদল করুন। জিনিসপত্র এ-দিক থেকে...

কেনাকাটা6 days ago

বাচ্চার জন্য মাস্ক খুঁজছেন? এগুলোর মধ্যে একটা আপনার পছন্দ হবেই

খবরঅনলাইন ডেস্ক : নিউ নর্মালে মাস্ক পরাটাই দস্তুর। তা সে ছোটো হোক বা বড়ো। বিরক্ত লাগলেও বড়োরা নিজেরাই নিজেদেরকে বোঝায়।...

কেনাকাটা1 week ago

রান্নাঘরের টুকিটাকি প্রয়োজনে এই ১০টি সামগ্রী খুবই কাজের

খবরঅনলাইন ডেস্ক : লকডাউনের মধ্যে আনলক হলেও খুব দরকার ছাড়া বাইরে না বেরোনোই ভালো। আর বাইরে বেরোলেও নিউ নর্মালের সব...

নজরে