বাড়ল বইয়ের দাম, বাজেটে সস্তা হল প্রতিরক্ষা সর়ঞ্জাম

0
প্রতীকী ছবি

ওয়েবডেস্ক: বাজেট প্রস্তাব পেশ করেছেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন। সুদূরপ্রসারী চিন্তাভাবনা নিয়ে একাধিক পরিকল্পনার কথা ঘোষণা করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ তাঁর ঢালাও প্রশংসা করেছেন। বিরোধী দলগুলি সে সবের পথ মাড়ায়নি। তবে উল্লেখ্যনীয় ভাবে, প্রতিরক্ষা সরঞ্জামের দাম কমা এবং আমদানি করা ছাপা বইয়ের দাম বাড়ার ঘোষণা নিয়ে তির্যক মন্তব্যও উঠে আসছে।

সুইডেনের ইন্টারন্যাশনাল পিস রিসার্চ ইনস্টিটিউটের একটি প্রতিবেদেনে জানানো হয়েছিল, যুদ্ধাস্ত্র কেনার দিক থেকে বিশ্বের অন্যান্য দেশকে পিছনে ফেলেছে ভারত। ওই সমীক্ষা রিপোর্টের মতে, ২০১২-১৬ সালের মধ্যে পৃথিবীতে মোট যে পরিমাণ অস্ত্র আমদানি হয়, তার মধ্যে ভারত একাই কিনেছে ১৩ শতাংশ। এই তথ্য প্রকাশিত হওয়ার পর তেমন কোনো প্রতিবাদ করতে দেখা যায়নি সরকারি দলকে। তবে অস্ত্র আমদানি কমিয়ে স্বনির্ভর হওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে বিজেপি শাসিত কেন্দ্রীয় সরকার।

সম্প্রতি জানা গিয়েছে, ১১৪টি অত্যাধুনিক যুদ্ধ বিমান কিনতে চায় ভারত, খরচ প্রায় ১৫ বিলিয়নের মতো। বোয়িং কোম্পানি, ল্যাকহিড মার্টিন কর্পোরেশন এবং সুইডেনের সাব এবি এ ব্যাপারে আগ্রহ প্রকাশ করেছে বলেও শোনা যাচ্ছে। তবে একই সঙ্গে স্বনির্ভর হওয়ার লড়াইও চলছে জোর কদমে।

এ দিনের বাজেট প্রস্তাব থেকে জানা গিয়েছে, প্রতিরক্ষা সরঞ্জামের দাম কমছে। একই ভাবে পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র তৈরিতে প্রয়োজনীয় উপকরণেরও দাম কমছে। এখন এই দুই ক্ষেত্রের সঙ্গে জড়িত বা এই দুই ক্ষেত্র থেকে সুবিধা পাবেন, এমন ভারতবাসীর পরিমাণ ঠিক কত শতাংশ, সেটাও গবেষণার বিষয়।

মধ্যবিত্তের ভার লাঘব করা হয়েছে বলে দেদার ডাক বাজানো চলেছে বাজেট প্রস্তাব পেশ করার পর থেকেই। গৃহঋণের উপর ছাড়, আয়করের ছাড়ের পরিমাণ বা ঊর্ধ্বসীমা অপরিবর্তিত রাখা ইত্যাদি নিয়ে প্রশংসায় পঞ্চমুখ অর্থনীতিবিদদের একাংশ। অথচ একই দিনে যখন পেট্রোল-ডিজেলের দাম বাড়ানোর কথা ঘোষণা করা হয়, তখন সেটা কোন বিত্তের মানুষের উপকারে আসে, সেটাই পরীক্ষা প্রার্থনীয় বিষয়।

আন্ত‌ঃশুল্ক এবং রোড সেসের জন্য পেট্রোল-ডিজেলের মতো অতিপ্রয়োজনীয় জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো হয়েছে এ বারের বাজেটে। দাম বাড়ছে লিটার প্রতি পেট্রোল এবং ডিজেলে যথাক্রমে ২.৫০ টাকা এবং ২.৩০ টাকা। জ্বালানি তেলের দাম বাড়লে থেমে থাকবে না অন্য যে কোনো পণ্যের দামও। পরিবহণ ব্যয় বাড়লে দাম বাড়বে নিত্যপণ্যের।

দাম বাড়ছে ছাপা বই এবং নির্দেশিকা বা ম্যানুয়েলের। এ দিনের বাজেটেই ঘোষণা করেছেন অর্থমন্ত্রী। উচ্চশিক্ষাকে আন্তর্জাতিক মানের করে তুলতে শিক্ষাখাতে ৪০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছেন তিনি। ছাপা বইয়ের দাম বাড়বে, শিক্ষাখাতে বরাদ্দও বাড়বে, এটাই তো ভারসাম্য!

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.