‘আমাকে মারতে গিয়েছিলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী’, বিস্ফোরক অভিযোগ তৃণমূল সাংসদ শান্তনু সেনের

0
বৃহস্পতিবার রাজ্যসভায় বিতর্কের পর তৃণমূলের সাংবাদিক বৈঠক। ছবি: indiatoday.in থেকে

খবর অনলাইন ডেস্ক: বৃহস্পতিবার পেগাসাস বিতর্কে উত্তাল হয়ে ওঠে রাজ্যসভা। একই সঙ্গে আরও এক বিস্ফোরক অভিযোগ করলেন তৃণমূল সাংসদ শান্তনু সেন। তাঁর অভিযোগ, এক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তাঁকে শারীরিক ভাবে লাঞ্ছিত করতে গিয়েছিলেন।

শান্তনু সেনের অভিযোগ করেন, “রাজ্যসভা মুলতুবি হয়ে যাওয়ার পরে আচমকা আমার সঙ্গে দুর্ব্যবহার করতে শুরু করেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হরদীপ সিং পুরী। তিনি আমাকে হুমকি দিতে শুরু করেন। গালিগালাজও করেন। আমাকে শারীরিক ভাবে হেনস্থা করতেও চেয়েছিলেন। তবে আমার সহকর্মীরা এসে সেখান থেকে উদ্ধার করেন আমাকে”।

তৃণমূল সাংসদ দাবি করেন, হরদীপ সিংহ পুরী তাঁর বিরুদ্ধে ‘অভব্য’ ইঙ্গিত করেছিলেন। তৎক্ষণাৎ দলের তরফে ডেপুটি চেয়ারম্যানের কাছে বিষয়টি নিয়ে অভিযোগ জানানো হয়।

তৃণমূল সাংসদদের বিরুদ্ধে স্বাধীকার ভঙ্গের প্রস্তাব

এ দিকে সূত্রের খবর, সংসদের ভিতরে তৃণমূল সাংসদের আচরণ নিয়ে স্বাধীকার ভঙ্গের প্রস্তাব আনছে সরকার।

পেগাসাস নজরদারি বিতর্ক-সহ একাধিক ইস্যুতে এ দিন উত্তপ্ত হয়ে ওঠে সংসদের উচ্চ কক্ষ। কেন্দ্রীয় তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী পেগাসাস সম্পর্কে বক্তৃতা করার জন্য উঠে দাঁড়াতেই তৃণমূল সাংসদ শান্তনু সেন তাঁর হাত থেকে বিবৃতিপত্র ছিনিয়ে নিয়ে তা ডেপুটি চেয়ারম্যানের দিকে ছুড়ে মারেন বলে অভিযোগ। ব্যাপক হইহট্টগোল সত্ত্বেও মন্ত্রী বিবৃতি পাঠ করেন।

অভিযোগ, তৃণমূল সাংসদরা কেন্দ্রীয় তথ্যপ্রযুক্তমন্ত্রী অশ্বিনী বৈষ্ণবের সঙ্গে অভব্যতা করেছেন। যে কারণে তাঁদের বিরুদ্ধে স্বাধীকার ভঙ্গের প্রস্তাব আনা হবে। এ দিন সংসদ অধিবেশন মুলতুবি হয়ে যাওয়ার পর বিজেপির সংসদীয় কমিটির পক্ষ থেকে তেমনই ইঙ্গিত মিলেছে। তবে তৃণমূলের পাল্টা দাবি, বিজেপি সাংসদরাই তাঁদের সঙ্গে অভব্যতা করেছে।

কাগজপত্র এ দিক-ও দিকে ছড়িয়ে যাওয়ায় নিজের বক্তৃতা সম্পূর্ণ করতে পারেননি মন্ত্রী। তবে ওই সময় তৃণমূল এবং অন্য বিরোধী দলের সাংসদরা ওয়েলে নেমে তীব্র প্রতিবাদ জানান। তাঁরা মন্ত্রীর বিবৃতির প্রতিলিপি ছিঁড়ে ফেলেন।

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন