কড়া নিরাপত্তায় শেষকৃত্য, ঠাকুরদা-ঠাকুরমার পাশেই চিরনিদ্রায় উন্নাওয়ের নির্যাতিতা

0
Unnao
নির্যাতিতার শেষকৃত্য

উন্নাও: শনিবার দিল্লির সফদরজং হাসপাতালে তাঁর মৃত্যু হয়। ধর্ষণের অভিযোগ নিয়ে আদালতে যাওয়ার পথেই অভিযুক্তরা তাঁকে জীবন্ত জ্বালিয়ে দেয়। শরীরের বেশির ভাগটাই পুড়ে যাওয়া অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয় জখম ২৩ বছর বয়সি নির্যাতিতাকে। রবিবার কড়া নিরাপত্তায় শেষকৃত্য সম্পন্ন হল তাঁর।

শেষকৃত্যকে সামনে রেখে গোটা এলাকা মুড়ে ফেলা হয় কড়া সুরক্ষা ব্যবস্থাপনায়। দগ্ধশরীরে টানা ৪৪ ঘণ্টা লড়াই করে মৃত নির্যাতিতাকে তাঁর নিজের গ্রামেই সমাধিস্থ করা হয়।

জানা গিয়েছে, তাঁকে নিজের পরিবারের অন্তর্গত একটি জমিতে সমাধিস্থ করা হয়েছে, যেখানে তাঁর ঠাকুরদা-ঠাকুরমার সমাধি (মাজার) অবস্থিত।

শেষকৃত্যের সময় বিপুলসংখ্যক স্থানীয় বাসিন্দা ও সরকারি আধিকারিকরা সেখানে উপস্থিত ছিলেন। সর্বশেষ স্তরের শেষকৃত্যের আগে গ্রামবাসীরা নির্যাতিতার আত্মার প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

সমাজবাদী পার্টির নেতৃত্ব-সহ স্বামী প্রসাদ মৌর্য এবং কমলরানি বরুণের মতো উত্তরপ্রদেশের মন্ত্রীরাও ওই শেষকৃত্যে উপস্থিত ছিলেন। মৌর্য বলেন, “সরকার ব্যথিত পরিবারের সঙ্গে রয়েছে”।

কমলরানি বরুণ বলেন, “বেটি পড়াও, বেটি বাঁচাও’র স্লোগান অর্থবহ। আমরা শোকের মুহূর্তে আহত পরিবারের সঙ্গে দাঁড়িয়েছি এবং আসামিরা যে কঠোর শাস্তি পাবে, তা নিশ্চিত করব”।

অন্য দিকে সমাজবাদী পার্টি নেতা সুনীল সিং সাজন বলেন, “রাজ্যে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির উল্লেখযোগ্যভাবে অবনতি হয়েছে। আজ, মেয়েরা সুরক্ষিত বোধ করছে না এবং তাদের এফআইআরগুলিও নিবন্ধভুক্ত করা হচ্ছে না। যোগী আদিত্যনাথকে অবশ্যই সরকার থেকে পদত্যাগ করতে হবে”।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.