পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি, ছবি-ভিডিও প্রকাশ করল উত্তরপ্রদেশ পুলিশ

নয়াদিল্লি: গত শুক্রবার উত্তরপ্রদেশের মেরঠ কেঁপে উঠেছিল নাগরিকত্ব (সংশোধনী) আইন (সিএএ)-এর বিরুদ্ধে বিক্ষোভে। ওই দিন প্রতিবাদ চলাকালীন দু’জন বিক্ষোভকারী পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি চালিয়েছে বলে দাবি করে পুলিশ বেশ কিছু ছবি এবং ভিডিও প্রকাশ করে।

পুলিশের প্রকাশিত ওই ছবি এবং ভিডিয়োর একটিতে নীল রঙের জ্যাকেট পরিহিত মুখোশধারীকে বন্দুক নিয়ে ঘুরে বেড়াতে দেখা গিয়েছে। পুলিশ বলেছে, ১৯ থেকে ২১ ডিসেম্বরের মধ্যে উত্তেজিত জনতা এমন ভাবেই আক্রমণ চালিয়েছিল, যা তাদেরও ব্য়বস্থা নিতে বাধ্য করেছিল। গত সপ্তাহে সংঘর্ষের সময় রাজ্য জুড়ে ১৫ জন মারা গিয়েছিল, যার মধ্য়ে মেরঠেই সর্বাধিক ছয়জনের মৃত্যু হয়।

তবে মৃতদেহের বেশিরভাগই বন্দুকের গুলিতে জখম হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। রাজ্য পুলিশ দাবি করে, তারা প্লাস্টিকের পেলেট এবং রাবার বুলেট ছাড়া আর কোনো গুলি চালায়নি। তাদের হাতে শুধুমাত্র বিজনৌরে গুলি চালানোর ঘটনা ঘটেছিল, যেখানে ২০ বছর বয়সি সিভিল সার্ভিসের পরীক্ষার্থী মারা গিয়েছিলেন। রাজ্য জুড়ে যে সব জায়গায় সহিংসতা ছড়িয়ে পড়েছিল, সেখানে ভাঙচুর, সরকারি সম্পদ ধ্বংস এবং এমনকি থানায় হামলা চালানোর অভিযোগ ওঠে বিক্ষোভকারীদের বিরুদ্ধে।

উপমুখ্যমন্ত্রী দীনেশ শর্মা দাবি করেছেন, পুলিশকেও ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির সম্মুখানী হতে হয়েছে। সপ্তাহান্তে অনুষ্ঠিত এক সংবাদিক বৈঠকে তিনি বলেছিলেন,”সহিংসতায় ২১৮ জেলাজুড়ে প্রায় ২৮৮ জন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। তাঁদের মধ্যে ২২ জন আগ্নেয়াস্ত্রের আঘাতে আহত হয়েছেন”।

বুধবার অবশ্য প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী লখনউয়ে অটল বিহারী বাজপেয়ী মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, “উত্তরপ্রদেশের সহিংস বিক্ষোভের সঙ্গে জড়িতরা নিজেদের কাজটি ভালো কি না, তা তাঁদের নিজেদের কাছেই জিজ্ঞাসা করতে বলতে চাই”। একই সঙ্গে তিনি যোগ করেন, উত্তরপ্রদেশ পুলিশ যথেষ্ট “ভালো কাজ” করছে।

প্রসঙ্গত, রাজ্য পুলিশের ডিজি ওপি সিংহ আগেই জানিয়েছিলেন, “আমরা একটা গুলিও চালাইনি।” এই প্রসঙ্গে আরও এক পুলিশ আধিকারিক বলেন, “গুলি যদি চলেও থাকে, সেটা বিক্ষোভকারীদের দিক থেকে হয়েছে।”

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.