লখনউ: উত্তর প্রদেশের সব উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ৩০ জুন পর্যন্ত ‘জনস্বার্থে’ ‘জরুরি পরিষেবা রক্ষণাবেক্ষণ আইন’(ESMA) জারি করল নব নির্বাচিত যোগী আদিত্যনাথের বিজেপি সরকার। এই আইন অনুযায়ী রাজ্যের সব কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মীরা এই সময়কালের মধ্যে কোনো ধর্মঘটে অংশ নিতে পারবেন না। যদি নেন, তাহলে পুলিশ তাদের বিনা পরোয়ানায় গ্রেফতার করতে পারবে এবং ধর্মঘটে অংশ নেওয়া কর্মীরা ৬ মাস পর্যন্ত জেলে থাকবেন। যিনি বা যারা ধর্মঘট ডাকবেন, তাঁদের জেলে থাকতে হবে ১ বছর পর্যন্ত।


১৯৬৮ সালে তৈরি হওয়া কেন্দ্রের এই আইন অনুযায়ী গণ পরিবহণ, স্বাস্থ্য ক্ষেত্র ‘জরুরি পরিষেবা’-র মধ্যে পড়ে। এটি কেন্দ্রীয় আইন হলেও, তা কোথায় কতটা কার্যকর হবে, তা নির্ভর করে সংশ্লিষ্ট রাজ্য সরকারের ওপর। বহু ক্ষেত্রেই দেখা গেছে, গণ পরিবহণ ক্ষেত্রের কর্মীরা, চিকিৎসক বা সরকারি কর্মচারিরা সপ্তাহের পর সপ্তাহ ধর্মঘট চালিয়ে গেছেন, কিন্তু রাজ্য সরকার ‘এসমা’ জারি করেনি।


আগামী ৩ মাস রাজ্যের উচ্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলিতে টানা পরীক্ষা চলবে, সে কথা মাথায় রেখেই এই আইন রাজ্য সরকার জারি করেছে বলে খবর।

উত্তর প্রদেশে এই মুহূর্তে ৩০টি সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়, ২৫টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় এবং ১০টি ডিম্‌ড বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে।

১৯৬৮ সালে তৈরি হওয়া কেন্দ্রের এই আইন অনুযায়ী গণ পরিবহণ, স্বাস্থ্য ক্ষেত্র ‘জরুরি পরিষেবা’-র মধ্যে পড়ে। এটি কেন্দ্রীয় আইন হলেও, তা কোথায় কতটা কার্যকর হবে, তা নির্ভর করে সংশ্লিষ্ট রাজ্য সরকারের ওপর। বহু ক্ষেত্রেই দেখা গেছে, গণ পরিবহণ ক্ষেত্রের কর্মীরা, চিকিৎসক বা সরকারি কর্মচারিরা সপ্তাহের পর সপ্তাহ ধর্মঘট চালিয়ে গেছেন, কিন্তু রাজ্য সরকার ‘এসমা’ জারি করেনি।

 

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন