পর্যটকদের কাছে অতি জনপ্রিয় এই সেতুটি বন্ধ করে দিল উত্তরাখণ্ড সরকার

হৃষীকেশ: পর্যটক বিশেষত বাঙালি পর্যটকদের কাছে অন্যতম জনপ্রিয় হৃষীকেশের লছমনঝুলা সেতু। সেই ঝুলন্ত সেতুটিই এ বার বন্ধ করে দিল উত্তরাখণ্ড সরকার। সরকারের তরফ থেকে জানানো হয়েছে, সেতুতে এমন ক্ষতি হয়েছে, যা সারিয়ে তোলা যাবে না।

ঝুলন্ত সেতু হলেও, হাঁটার পাশাপাশি লছমনঝুলা দিয়ে দু-চাকার গাড়িও যেত। স্থানীয়দের বক্তব্য, এর জন্যই মারাত্মক ক্ষতি হয়েছে ওই সেতুর। গত ৫ জুলাই বেসরকারি একটি সংস্থাকে দিয়ে এই সেতুর ওপরে একটি সমীক্ষা করায় উত্তরাখণ্ড সরকার। লছমনঝুলার সঙ্গে তার পাশের রামঝুলাও পরিদর্শন করে তারা। এর পরে তারা যে রিপোর্ট জমা দেয়, তাতেই যেন দুঃখের অন্ত নেই হৃষীকেশের স্থানীয় বাসিন্দা এবং পর্যটকদের মধ্যে।

রিপোর্টে বলা হয়, লছমনঝুলা অবিলম্বে বন্ধ করে দিতে হবে। অন্য দিকে রামঝুলাটি মেরামত করে শুধুমাত্র হাঁটার জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে। ওই সেতু দিয়ে দু-চাকার যানবাহনের অনুমতি দেওয়া হবে না।

আরও পড়ুন পার্শ্ববর্তী অঞ্চল বৃষ্টি পেলেও, এখনও বৃষ্টিহীন কলকাতা, ১৯৬১ সালের রেকর্ড ভেঙে ফেলবে শহর?

১৯২৪ সালে এই সেতু তৈরি শুরু হয়। এর ছ’বছর পর সাধারণ মানুষের জন্য তা খুলে দেওয়া হয়। উত্তরাখণ্ড পিডব্লিউডির অবসরপ্রাপ্ত এক আধিকারিক বলেন, “প্রথমে এই সেতুর ওপরে প্রতি বর্গ মিটারে সর্বোচ্চ ২৫০ কিলো ওজন নিয়ে যাওয়ার অনুমতি দিয়েছিল ভারত সরকার। কিন্তু ২০১০-এ তা বাড়িয়ে ৪০০ কিলো করে দেওয়া হয়। অতিরিক্ত ওজন বহনের এই অনুমতি দেওয়ার জন্যই এই সেতুর বড়ো ক্ষতি করে দিয়ে গেল।”

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.