হিজবুল জঙ্গি বুরহান ওয়ানির মৃত্যুর পর প্রায় ছয় সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও কাশ্মীর উপত্যকায় মৃত্যুমিছিল অব্যাহত। বুধবার ভোরে বারামুলার খাওয়াজা বাগ এলাকায় সেনা কনভয়ের ওপর জঙ্গি হানায় প্রাণ হারালেন ২ জন সেনা জওয়ান ও ১ জন পুলিশকর্মী। ঘটনায় আহত হয়েছেন ৪ জন সেনা। এরই মাঝে কাশ্মীর পরিস্থিতি নিয়ে উষ্মা প্রকাশ করেছেন প্রাক্তন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পি চিদম্বরম। তিনি বলেছেন, উপত্যকার পরিস্থিতি চূড়ান্ত অরাজকতার দিকে এগিয়ে চলেছে। ইতিমধ্যে, জম্মু-কাশ্মীরের বিরোধী দলগুলি সিদ্ধান্ত করেছে, তারা কাশ্মীর পরিস্থিতি সম্পর্কে রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়কে অবহিত করবে এবং নিরাপত্তা বাহিনীর বিরুদ্ধে বাড়াবাড়ি রকমের বলপ্রয়োগের যে অভিযোগ রয়েছে সে ব্যাপারে সুপ্রিম কোর্টের প্রাক্তন বিচারপতিকে দিয়ে তদন্ত করানোর দাবি জানাবে।  

বারামুলার ঘটনা নিয়ে গত ৩৬ ঘণ্টায় জঙ্গি আক্রমণের তিনটি ঘটনা ঘটল। মঙ্গলবার রাত সাড়ে আটটা নাগাদ কাকাপোড়া থানায় গ্রেনেড হানায় জখম হন ৫ পুলিশকর্মী। সোমবার শ্রীনগর শহরের নওহাটায় নিরাপত্তাবাহিনীর উপর জঙ্গিরা হামলা চালালে সিআরপিএফ-এর কম্যান্ড্যান্ট নিহত হন। মারা যায় ২ জঙ্গি। আহত হন ৮ জওয়ান।     

এ দিকে কাশ্মীর পরিস্থিতি নিয়ে জম্মু-কাশ্মীরের পিডিপি-বিজেপির সরকারকে দোষী করে কংগ্রেসের প্রাক্তন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পি চিদম্বরম বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংহ এবং প্রতিরক্ষামন্ত্রী মনোহর পরিকরের বিবৃতি উপত্যকায় উত্তেজনা আরও বাড়িয়ে দিয়েছে। তাঁর প্রস্তাব, কংগ্রেস, ন্যাশনাল কনফারেন্স এবং পিডিপি ইচ্ছুক হলে এক যোগে কাশ্মীর সমস্যার সমাধান করতে পারে। প্রথমত, অবিলম্বে হিংসা বন্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে এবং তার পর রাজ্যের মানুষের শান্তি, সমৃদ্ধি ও আশা-ভরসা জাগিয়ে তুলতে হবে।  

অন্য দিকে কাশ্মীরের পরিস্থিতি নিয়ে বুধবার ন্যাশনাল কনফারেন্স নেতা ওমর আবদুল্লার বাড়িতে বিরোধী দলগুলি এক বৈঠকে বসে। বৈঠকে ঠিক হয়, তাঁরা রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গে দেখা করে কাশ্মীর সম্পর্কে সব কিছু জানাবেন। তাঁরা চান, নিরাপত্তাবাহিনী বাড়াবাড়ি করছে বলে যে অভিযোগ রয়েছে সে ব্যাপারে সুপ্রিম কোর্টের প্রাক্তন বিচারপতির নেতৃত্বে তদন্ত হোক।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here