“শীঘ্রই আমাদের মধ্যে বাণিজ্য চুক্তি হবে”, মোদীকে বললেন ট্রাম্প

0
modi-trump bilateral talk

রাষ্ট্রপুঞ্জ: অর্থনৈতিক সহযোগিতা বাড়াতে দুই দেশের মধ্যে  শীঘ্রই বাণিজ্য চুক্তি হবে – দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে এই আশ্বাস দিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। রাষ্ট্রপুঞ্জের সাধারণ সভার ৭৪তম অধিবেশনের ফাঁকেই মঙ্গলবার দুই নেতা দ্বিপাক্ষিক বৈঠক সেরে নেন। তাঁদের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক নানা বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়।

বৈঠকে মোদী বলেন বলেন, “ভারত-মার্কিন বাণিজ্য প্রসঙ্গে জানাই, শক্তি ক্ষেত্রে ২৫০ কোটি ডলার বিনিয়োগ করতে পেট্রোনেট মউ (মেমোরান্ডাম অফ আন্ডারস্ট্যান্ডিং) সই করেছে।”

আরও পড়ুন: কাশ্মীর নিয়ে ট্রাম্পের ‘ডিগবাজি’র প্রতিক্রিয়া দিল ভারত

মোদীর প্রশংসা করে ট্রাম্প তাঁকে ‘ভারতের পিতা’ আখ্যা দেন। তিনি বলেন, তিনি (প্রধানমন্ত্রী মোদী) এক জন প্রকৃত ভদ্রলোক, বড়ো নেতা। আমি মনে করতে পারি, ভারত ছিল ছিন্নভিন্ন। চারিদিকে মতবিরোধ, মারামারি। উনি সবাইকে এক জায়গায় এনেছেন। বাবা যেমন সবাইকে এক জায়গায় জড়ো করে। হয়তো তিনি ‘ভারতের পিতা’। আমরা তাঁকে ‘ভারতের পিতা’ বলে ডাকব।আমার ডান দিকে যিনি বসে আছেন তাঁকে সবাই ভালোবাসেন। মানুষ ওঁকে নিয়ে পাগল। এলভিস প্রিসলির আমেরিকান ভার্সন।”

দুই নেতার এ দিনের দ্বিপাক্ষিক বৈঠক প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের কাছে বিদেশ সচিব বিজয় গোখেল বলেন, সন্ত্রাসবাদ সম্পর্কে নিজের দৃষ্টিভঙ্গি মার্কিন প্রেসিডেন্টের কাছে ব্যাখ্যা করেন প্রধানমন্ত্রী।

গোখেল বলেন, “মার্কিন প্রেসিডেন্ট প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য বুঝেছেন। তিনি এটা মেনেও নিয়েছেন যে এই বিষয়টা দু’ দেশের কাছেই চ্যালেঞ্জ। প্রধানমন্ত্রী মোদী তাঁকে স্পষ্ট বুঝিয়ে দিয়েছেন, এ ব্যাপারে পাকিস্তানের সঙ্গে আলোচনা থেকে ভারত সরে থাকতে চায় না। কিন্তু আমরা আশা করি তার আগে পাকিস্তান কিছু সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ করবে। তবে তাদের দিক থেকে আমরা কোনো উদ্যোগই দেখছি না।”   

হিউস্টনে অনুষ্ঠিত ‘হাওডি মোদী’ অনুষ্ঠানের বাঁধানো ছবি ট্রাম্পকে উপহার দেন মোদী।

বৈঠকের পরে ভারত ও পাকিস্তানের ক্রমবর্ধমান উত্তেজনা প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেন, প্রধানমন্ত্রী মোদী জানেন, কী করে এর মোকাবিলা করতে হয়। তিনি বলেন, “এই দুই ভদ্রলোক (মোদী এবং ইমরান খান) এক সঙ্গে বসে একটা কিছু সমাধান বের করবেন।”

মার্কিন প্রেসিডেন্টের সঙ্গে বৈঠক করার জন্য ভারতীয় সময় রাত ৯.৪৮ মিনিটে নিউ ইয়র্কে রাষ্ট্রপুঞ্জের সদর দফতরে হাজির হন ভারতের প্রধানমন্ত্রী। মিনিট পাঁচেক পরেই দু’ জনের বৈঠক শুরু হয়।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী বলেন, “ট্রাম্প হিউস্টনে এসেছেন বলে আমি তাঁকে কৃতজ্ঞতা জানাই। ট্রাম্প আমার বন্ধু বটে, তবে তিনি ভারতেরও বন্ধু।”

এর আগে সোমবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বিশ্বের বিভিন্ন নেতার সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করেন। এঁদের মধ্যে রয়েছেন জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা মেরকেল, ইতালির প্রধানমন্ত্রী জিউসেপ্পে কন্তে, কাতারের আমির শেখ তামিন বিন হামাদ প্রমুখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.