ওয়েবডেস্ক: পশ্চিমবঙ্গের প্রাক্তন মৎস্যমন্ত্রী তথা বর্তমানে উত্তরপ্রদেশে সমাজবাদী পার্টির নেতা কিরণময় নন্দ ফের সংবাদ শিরোনামে। উত্তরপ্রদেশের দুই অতীত-বিরোধী অখিলেশ যাদব এবং মায়াবতীর জোট-রচনার কারিগরদের মধ্যে অন্যতম হিসাবে তুলে ধরা হচ্ছে তাঁকেই!

Kiranmoy Nanda with akhilesh yadav

২০১১-য় পশ্চিমবঙ্গে রাজনৈতিক পালাবদল ঘটার পরই এ রাজ্যে বামফ্রন্টের শরিক সোশ্যালিস্ট পার্টির নেতা কিরণময় নন্দ ধীরে ধীরে দূরত্ব তৈরি করতে থাকেন সিপিএমের সঙ্গে। ঘটনাক্রমে পরিস্থিতি এমন পর্যায়ে পৌঁছোয় যে, তিনি ফ্রন্ট ছেড়ে দেন। এমনকী তৃণমূল কংগ্রেসের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে নবান্নে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে সাক্ষাৎও করেন। কিন্তু কোনো একটি কারণে তিনি তৃণমূল কংগ্রেসের সঙ্গেই নতুন করে সম্পর্ক না গড়ে পাড়ি দেন উত্তরপ্রদেশে। সেখানে সমাজবাদী পার্টির ‘নেতাজি’ মুলায়ম সিংহ যাদবের ছত্রছায়ার রাজনীতি শুরু করেন।

গত  ২০১২-র বিধানসভা এবং ২০১৪ সালের লোকসভা ভোটেও কিরণময়বাবু সমাজবাদী পার্টির হয়ে নির্বাচনী কাজে যুক্ত ছিলেন উত্তরপ্রদেশেই। তিনি এখন সমাজবাদী পার্টির সহ-সভাপতি পদে আগের মতোই রয়েছেন।

গত শনিবার লখনউয়ে সমাজবাদী পার্টি (এসপি) এবং বহুজন সমাজ পার্টি (বিএসপি)-র জোট ঘোষণার দিনও তিনি স্বমহিমায় বিরাজ করেছেন। যে অভিজাত হোটেলের সম্মেলনকক্ষে ওই বৈঠক হয়, সেখানেও বিএসপির নেতৃত্বকে এসপির তরফে তিনি স্বাগত জানিয়েছেন। কিছুদিন আগে দিল্লিতে মায়াবতী ও অখিলেশের প্রাথমিক বৈঠকের পর উত্তরপ্রদেশে জোট-ফরমুলা রচনারও অন্যতম কারিগর ছিলেন তিনি। প্রায় ২৫ বছরের তিক্ত সম্পর্কের অভিজ্ঞতা সরিয়ে রেখে উত্তরপ্রদেশে বিএসপি ও এসপি-র জোটের নতুন করে পথ চলা শুরুর নেপথ্যে বাংলার প্রাক্তন মৎস্যমন্ত্রীর অবদানের কথাও অস্বীকার করেন না দুই দলের উচ্চনেতৃত্ব।

[ আরও পড়ুন: মায়াবতী-অখিলেশের জোট ঘোষণার পর দিনই কংগ্রেসের ‘মাস্টার স্ট্রোক’! ]

২০১২-য় অখিলেশ উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী নির্বাচিত হওয়ার পর কিরণময়বাবু সদর্পে ঘোষণাও করেছিলেন, অখিলেশকে মুখ্যমন্ত্রীর তখতে পৌঁছে দেওয়ার নেপথ্যে কারিগর তিনি নিজেই। এখন দেখার, অখিলেশ-মায়াবতীর দোসরে পরিণত হওয়ার পর বিজেপি-বিরোধী লড়াইয়ে উত্তরপ্রদেশে কতটা সাফল্য পায় এসপি-বিএসপি?

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here