‘এসএলভি ৩’ ভেঙে পড়া প্রসঙ্গে কী বলেছিলেন ড. আবদুল কালাম?

0
abdul kalam
ফাইল ছবি

ওয়েবডেস্ক: চাঁদের মাটি থেকে মাত্র ২.১ কিমি দূর থেকে ‘চন্দ্রযান ২’-এর ল্যান্ডার বিক্রমের সঙ্গে যোগাযোগ ছিন্ন হয়ে যায় গত শুক্রবার রাতে। যদিও চন্দ্রযান ২-এর উৎক্ষেপণ ৯৫ শতাংশ সফল বলে দাবি করেছে ভারতীয় মহাকাশ গবেষণাকারী সংস্থা ইসরো। তবুও ইতিউতি ব্যর্থতা নিয়ে সমালোচনা চলছে। এ প্রসঙ্গেই বারবার সামনে চলে আসছে ভারতের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি তথা বিজ্ঞানী প্রয়াত আবদুল কালামের সেই ঐতিহাসিক মন্তব্য।

একটি সাক্ষাৎকারে তিনি ১৯৭৯ সালে ভারতের স্যাটেলাইট লঞ্চ ভেহিকেল (এসএলভি ৩) প্রজেক্টের স্মৃতিচারণা করেন। ভারত যখন ‘এসএলভি ৩’ উৎক্ষেপণ করে তখন কালাম ছিলেন ওই প্রকল্পের প্রজেক্ট ডিরেক্টর এবং প্রয়াত অধ্যাপক সতীশ ধাওয়ান ছিলেন ইসরোর চেয়ারম্যান।

২০১৩ সালের একটি সাক্ষাৎকারে কালাম ১৯৭৯ সালের ওই ব্যর্থতার কথা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, “সেটা ছিল ১৯৭৯ সালের ঘটনা। আমি ছিলাম প্রজেক্ট ডিরেক্টর। আমার মিশন ছিল উপগ্রহটিকে কক্ষপথে প্রতিস্থাপন করা। কয়েক হাজার মানুষ এই প্রকল্পে প্রায় ১০ বছর ধরে কাজ করেছিলেন। কাউন্টডাউন শুরু হয়েছিল…টি মাইনাস ৪ মিনিটস, টি মাইনাস ৩ মিনিটস, টি মাইনাস ২ মিনিটস, টি মাইনাস ১ মিনিটস, টি মাইনাস ৪০ সেকেন্ডস, কিন্তু কম্পিউটার বিগড়ে গেল, উৎক্ষেপণ হল না। আমি মিশন ডিরেক্টর। আমি একটা সিদ্ধান্ত নিলাম”।

কালাম বলেন, বিশেষজ্ঞরা তাঁকে এগিয়ে যেতে বলেন। তাঁরা বলেন, হিসাব অনুযায়ী তাঁরা সম্পূর্ণ আত্মবিশ্বাসী। কালাম কম্পিউটার বাইপাস করার সিদ্ধান্ত নিয়ে রকেটটি চালু করেন।

কালাম বলেন, “আমি কম্পিউটারকে বাইপাস করে সিস্টেমটি চালু করেছিলাম। স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের আগে চারটি ধাপ রয়েছে। প্রথম পর্যায়ে ভালো গিয়েছিল, কিন্তু দ্বিতীয় পর্যায়ে, এটি পাগল হয়ে উঠল। এটা ঘুরতে শুরু করল। উপগ্রহটিকে কক্ষপথে রাখার পরিবর্তে তাকে বঙ্গোপসাগরে ফেলে দিল”।

কালামের কথায়, “প্রথমবার আমি ব্যর্থতার মুখোমুখি হয়েছিলাম … এবং ব্যর্থতা কীভাবে ম্যানেজ করব? সাফল্য আমি ম্যানেজ করতে পারি, কিন্তু ব্যর্থতা কী ভাবে”?

এর পরে কালাম আরো বলেছিলেন, সমালোচনার মুখোমুখি হওয়ার আশঙ্কা সত্ত্বেও ইসরো প্রধান সতীশ ধাওয়ান কী ভাবে তাঁর সঙ্গে একটি সাংবাদিক বৈঠক করেছিলেন। “প্রিয় বন্ধুরা, আমরা আজ ব্যর্থ হয়েছি। আমি আমার প্রযুক্তিবিদ, আমার বিজ্ঞানী, আমার কর্মীদের সমর্থন করতে চাই, যাতে তাঁরা পরের বছর সফল হয়”, বলেন কালাম।

পরের বছর, ১৯৮০ সালের ১৮ জুলাই, কালামের নেতৃত্বে একই দল রোহিণী আরএস -১ সফলভাবে কক্ষপথে চালু করেছিল। তার পরে, কালাম বলেন, ধাওয়ান তাঁকে ওই দিন সাংবাদিক বৈঠক করার জন্য বলেছিলেন।

কালাম ভিডিওতে বলেছিলেন, “আমি সে দিন একটা খুব গুরুত্বপূর্ণ পাঠ শিখেছিলাম। ব্যর্থতা দেখা দিলে সংগঠনের নেতা সেই ব্যর্থতার মালিক হন। সাফল্য এলে, তিনি তা তাঁর দলকে দিয়ে দেন। আমি যে এই সেরা পরিচালনার পাঠ শিখেছি, তা বই পড়ে আমার কাছে আসেনি; এটি আমার সেই অভিজ্ঞতা থেকে এসেছে”।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here