ABP news

ওয়েবডেস্ক: ২৪ ঘণ্টার বৈদ্যুতিন সংবাদ মাধ্যম এবিপি নিউজের দুই বিশিষ্ট সাংবাদিকের পদত্যাগের ঘটনা উঠে এল সংসদেও। শুক্রবার বিরোধী দলের সাংসদরা অভিযোগ তোলেন, প্রধান মন্ত্রী মোদীর সমালোচনা করার মাশুল দিতেই ওই বৈদ্যুতিন চ্যানেলের সাংবাদিক প্রসূন বাজপেয়ী এবং ম্যানেজিং এডিটর মিলিন্দ খন্দেকরকে আদতে অপসারণ করা হয়েছে।

তবে সংসদে দাঁড়িয়ে কেন্দ্রীয় তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী রাজ্যবর্ধন সিং রাঠোরের পাল্টা জবাবও বেশ ইঙ্গিতবাহী। তিনি কংগ্রেস সাংসদ মল্লিকার্জুন খারগের অভিযোগের জবাব দিতে গিয়ে বলেন, “এই ঘটনার সঙ্গে সরকার কোনো ভাবেই জড়িত নয়। ওই চ্যানেলের টিআরপি (টিআরপি) দিন দিন নিম্নমুখী। কারণ দর্শক আর ওই চ্যানেল দেখতে চাইছেন না। ওরা শুধু সরকার-বিরোধী সংবাদ পরিবেশন করে”।

তিনি আরও বলেন, “ওই চ্যানেল মিথ্যা সংবাদের উপর নির্ভর করেই চলছে। সরকার চাইলেই ব্যবস্থা নিতে পারত। কারণ রাজ্যের স্যাটেলাইট টেলিভিশন পরিষেবা সরকার দিয়ে থাকে”।

অবশ্য দর্শকদের অভিযোগের সঙ্গে মিল খুঁজে পাওয়া যায়নি মন্ত্রীর বক্তব্যের। তিনি দাবি করেছেন, “সরকার এ ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করেনি। অথচ দর্শকরা টুইটারে লিখছেন, ওই চ্যানেলের নির্দিষ্ট একটি অনুষ্ঠানের সময় টেলিভিশনের স্ক্রিন থেকে ছবি গায়েব হয়ে যায়”।

গত বৃহস্পতিবার তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদ ডেরেক ও ব্রায়ান এই ইস্যুতে সরব হয়েছিলেন। তবে এ দিন কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর মুখে সংসদে দাঁড়িয়ে চ্যানেলের টিআরপি কমে যাওয়া সংক্রান্ত বক্তব্যে বিশেষ ইঙ্গিত মিলছে বলেই ওয়াকিবহাল মহলের মত। চ্যানেল কর্তৃপক্ষের ‘হাঁড়ি’র খবরও কি তা হলে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর সৌজন্যে পৌঁছে যাবে সংসদে? দুই সাংবাদিকের পদত্যাগের সঙ্গে চ্যানেলের টিআরপি কমার যোগসূত্র তা না হলে কী রাখবেন মন্ত্রী, প্রশ্ন উঠছে সাংবাদিক মহলে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন