instant triple talaq bill for muslim women

ওয়েবডেস্ক: কেন্দ্রীয় সরকারের প্রস্তাবিত তাৎক্ষমিণ তিন তালাক বিল আদতে নারী-বিরোধী এবং এর ফলে সংসারে ভাঙন ধরবে। এ কথা বলছে আর কেউ নয়, খোদ অল ইন্ডিয়া মুসলিম পার্সোনাল ল’ বোর্ড বা এআইএমপিএলবি। অনেকেরই মনে হতে পারে এটা একটা স্বাভাবিক প্রতিক্রিয়া। কিন্তু এই বিল পাশ হওয়ার সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে এআইএমপিএলবি-র মতও। তাদের তরফে বলা হয়েছে, এই খসড়া বিলে যেমন কোনো বিশেষজ্ঞের মতামত নেওয়া হয়নি তেমনই এর সুদূরপ্রসারী প্রভাবকেও গুরুত্ব দেওয়া হয়নি। ফলে প্রধানমন্ত্রীর কাছে তারা আবেদন জানিয়েছে, আপাতত বিলটি পাশ না করে ধরে রাখা হোক।

বোর্ডের সব থেকে বেশি আপত্তির কারণ ওই বিলে থাকা তিন বছরের কারাবাসের বিষয়টি। তবে তারাও যে তাৎক্ষণিক তিন তালাকের বিরুদ্ধে, সে কথাও স্পষ্ট করা হয়েছে। তারাও চায়, এর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার প্রয়োজন রয়েছে। কিন্তু তার আগে দরকার ওই সম্প্রদায়ের ধর্মগুরুদের সঙ্গে আলোচনা করা।

বোর্ডের তরফে প্রস্তাবিত বিলকে নারী-বিরোধী বলা কারণ কী?

উত্তরে তারা জানায়, খসড়া আইনে বলা হচ্ছে অপরাধী সাব্যস্ত হলে স্ত্রী এবং সন্তানদের খোরপোশ দিতে হবে। কিন্তু অভিযুক্তের যদি তিন বছরের কারাবাস হয়, তা হলে সে কী ভাবে এই অর্থ জোগাবে?

কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ অবশ্য জানিয়েছেন, কোনো বিশ্বাস বা ধর্মীয় আবেগকে আঘাত করার মতো কোনো বিষয় নেই এই বিলে। নারীর অধিকার, সুরক্ষা ও সম্মান বজায় রাখার উপরই বিশেষ করে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে এই বিল রচনায়।

সংসদের চলতি অধিবেশনেই হয়তো সরকার মুসলিম ইউমেন (প্রটেকশন অব রাইটস অন ম্যারেজ) বিল ২০১৭ আলোচনায় নিয়ে আসতে পারে। তার আগেই বোর্ডের এই প্রতিবাদ। ফলে বিলের ভবিষ্যৎ এখনই প্রশ্নের মুখে দাঁড়িয়ে গেল বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here