ওয়েবডেস্ক: আবহাওয়ার খামখেয়ালিপনায় বদলে যেতে বসেছে সাধারণ জ্ঞানও। এই বর্ষার মরশুমের নিরিখে চেরাপুঞ্জি বা মৌসিনরামকে অনেক পেছনে ফেলে দিয়ে সর্বোচ্চ বৃষ্টির স্থান হিসেবে উঠে এসেছে মহারাষ্ট্রের শৈলশহর মহাবালেশ্বর।

আবহাওয়া দফতরের তথ্য অনুযায়ী, এ বছর এখনও পর্যন্ত চেরাপুঞ্জি বা মৌসিনরামে যা বৃষ্টি হয়েছে তার থেকে বেশি বৃষ্টি হয়েছে মহাবালেশ্বরে।

এ বছর ১ জুন থেকে ২৮ আগস্ট পর্যন্ত চেরাপুঞ্জিতে বৃষ্টি হয়েছে সাকুল্যে ৪,৭৩০.২ মিমি। অন্য দিকে মহাবালেশ্বরে বৃষ্টি হয়েছে ৫,৬১৯ মিমি। গত বছর এই সময়কালে চেরাপুঞ্জিতে বৃষ্টি হয়েছিল ৬,৯৬০ মিমি আর বর্ষার গোটা মরশুমে মহাবালেশ্বরে বৃষ্টির পরিমাণ ছিল সাড়ে পাঁচ হাজার মিলিমিটার।

এমনিতে বর্ষার চার মাসে চেরাপুঞ্জিতে বৃষ্টি হওয়ার কথা ৮,০০০ মিলিমিটার। কিন্তু এ বার যা পরিস্থিতি, চেরাপুঞ্জিতে বৃষ্টি যে ব্যাপক ঘাটতিতে শেষ করবে সেটা বলাই বাহুল্য।

আরও পড়ুন অসুস্থ রোগী, এয়ার অ্যাম্বুলেন্স আগে ছেড়ে দিয়ে প্রশংসিত রাহুল গান্ধী, দেখুন ভিডিও

এ বছর বঙ্গোপসাগরে একের পর এক নিম্নচাপের প্রভাবে মহাবালেশ্বরে এত বৃষ্টি হয়েছে বলে জানাচ্ছেন আবহাওয়া বিশেষজ্ঞরা। এক আধিকারিকের কথায়, “এ বার ওড়িশা উপকূল লাগোয়া অনেক নিম্নচাপ তৈরি হয়েছে। সেগুলি ক্রমশ মধ্য ভারত হয়ে মহারাষ্ট্রের দিকে সরে এসেছে, যার ফলে এত বৃষ্টি।”

ওই আধিকারিকের কথায়, এই প্রথম বৃষ্টির পরিমাণে চেরাপুঞ্জিকে পেছনে ফেলে দিল মহাবালেশ্বর। অন্য এক আধিকারিকের কথায়, এ বার যা পরিস্থিতি তাতে মরশুমে শেষে মহাবালেশ্বরই সব থেকে বেশি বৃষ্টির রেকর্ড ধরে রাখবে।

বৃষ্টির নিরিখে চেরাপুঞ্জির দু’টি রেকর্ড গিনেস বইয়ে তোলা আছে। প্রথম রেকর্ডটি হল বারো মাসে সর্বাধিক বৃষ্টি। ১৮৬০-এর আগস্ট থেকে ১৮৬১-এর জুলাই পর্যন্ত সেখানে বৃষ্টি হয়েছিল ২৬,৪৭১ মিমি। সেই সঙ্গে এক মাসে সর্বাধিক বৃষ্টির রেকর্ডটাও চেরাপুঞ্জিরই। ১৮৬১-এর জুলাইয়ে বৃষ্টি হয়েছিল ৯,৩০০ মিমি।

এ বার সমগ্র মেঘালয়ে এখনও পর্যন্ত ৩৩ শতাংশ বৃষ্টি ঘাটতি রয়েছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন