কে এই প্রশান্ত লক্ষ্ণণ, তাঁর সঙ্গে বাপি লাহিড়ির তুলনা কেন?

0

ওয়েবডেস্ক: মহারাষ্ট্রের পুনের একটা মধ্যবিত্ত পরিবারে জন্ম হলেও সেই কবে ছোটোবেলা থেকেই তাঁর না কি দু’চোখে স্বপ্ন ছিল এটাই। সারা শরীর মোড়ানো থাকবে সোনায়-সোনায়। সংবাদ মাধ্যমের কাছে জানালেন প্রশান্ত লক্ষণ সপকল- “সোনা আমার বরাবরের প্রিয়। সেই কবে শৈশব থেকে এখনও অবধি। এই সোনার গয়না পরার ধারণাটাতেই আমি মুগ্ধ”।

জন্ম এবং বড়ো হয়ে ওঠা মধ্যবিত্ত পরিবারেই। তবে স্নাতক হওয়ার পর স্বপ্ন যেন ডালপালা মেলতে শুরু করল কয়েকগুণ বেগে।

স্নাতক হওয়ার পরই নিজের নির্মাণ এবং অর্থনৈতিক সংস্থা নিয়ে পথ চলা শুরু করলেন প্রশান্ত। তার পর থেকে টাকা হাতে আসা মানেই সোনা কিনে ফেলা। ২০১৮ সাল থেকে রীতিমতো পেশাদারিত্বের সঙ্গে সোনার গয়না কেনা শুরু প্রশান্ত।

মাঝে তিনি আবার খুলে ফেলেছেন একটা স্বেচ্ছাসেবী সংস্থাও। এনএসএস নামে ওই সংস্থার উদ্দেশ্য- গরিব মানুষের জন্য কাজ করা। তাদের জীবনযাত্রার বদল ঘটাতে হলে যে হাতে কাজ তুলে দিতে হবে, সেটাই বলছেন প্রশান্ত।

এহেন প্রশান্তই এখন তুলনা টানা হচ্ছে স্বনামধন্য সংগীত পরিচালক-গায়ক বাপি লাহিড়ির সঙ্গে। তবে তুলনা টানার সীমা-পরিসীমা শুধু ওই সোনা সঞ্চয়। গত ২০১৪ সালের লোকসভা ভোটে প্রার্থী হয়ে বাপ্পিদা নির্বাচন কমিশনের কাছে হলফনামা দিয়ে জানিয়েছিলেন, তাঁর কাছে থাকা সোনার পরিমাণ ৭৫৪ গ্রাম। আর প্রশান্তর?

জানা গিয়েছে, প্রশান্তর শরীরে প্রতিদিনই কম করে পাঁচ কেজি ওজনের সোনা তো থাকেই থাকে! গলায়-হাতে-আঙুলের পাশাপাশি, প্রশান্ত জুতো তৈরি সোনা দিয়েই, এমনকী মোবাইলেও সেই সোনার ছোঁয়া।

------------------------------------------------
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.