বিহারে চিরাগ পাসোয়ানের বিদ্রোহে বিজেপি এখন ‘পিকে’র ছাপ খুঁজতে ব্যস্ত! কী কারণে?

0

পটনা: বিহারের চলতি মাসের বিধানসভা নির্বাচনে ক্ষমতাসীন এনডিএ জোটের মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছেন চিরাগ পাসোয়ান। মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমারের জেডিইউ-র সঙ্গে সংঘাতের জেরে রীতিমতো এনডিএ-র বিরুদ্ধেই চলে যাচ্ছে চিরাগের এলজেপির সিদ্ধান্ত। এমন পরিস্থিতিতে ড্যামেজ কন্ট্রোলে নেমে ভোটকুশলী প্রশান্ত কিশোরকেই দুষছে বিজেপির একটি অংশ।

এক সময় বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সাফল্যের নেপথ্যে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়েছিলেন প্রশান্ত কিশোর।

Loading videos...

কেন বিজেপির নিশানায় প্রশান্ত কিশোর?

এ বারের ভোটে এনডিএ-র সঙ্গত্যাগ করে জেডিইউ-র বিরুদ্ধে এলজেপির প্রার্থী দেওয়ার সিদ্ধান্তে অস্বস্তিতে পড়েছে ক্ষমতাসীন জোট। বিজেপি মুখ্যমন্ত্রী নীতীশকে মুখ হিসেবে তুলে ধরে ভোটে লড়লেও বেঁকে বসেছেন চিরাগ। তবে একই সঙ্গে তিনি কেন্দ্রে নরেন্দ্র মোদী সরকারের উপর সম্পূর্ণ আস্থা প্রকাশ করেছেন।

এমন পরিস্থিতিতে প্রবল সমালোচনায় বিদ্ধ হতে হচ্ছে বিজেপিকে। যে কারণে জোটে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির জন্য বিজেপির একটি অংশ কাঠগড়ায় তুলছেন প্রশান্তকে। তাদের ধারণা, চিরাগকে সক্রিয় ভাবে পরামর্শ দিচ্ছেন প্রশান্ত।

তারা এখন চিরাগের পদক্ষেপে ‘পিকে’র ছাপ খুঁজতে ব্যস্ত। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় তাঁর বাবা এবং এলজেপি প্রধান রামবিলাস পাসোয়ানের মৃত্যুর আনুষ্ঠানিক ঘোষণার কয়েক ঘণ্টা আগে নীতীশ কুমার সম্পর্কে চিরাগ বিজেপি সভাপতি জেপি নাড্ডাকে অভিযোগ করে যে ভাবে তাঁর সমস্ত নির্বাচনী প্রার্থীর নাম ঘোষণা করেছিলেন, সেই কৌশল নিয়েই সন্দেহ প্রকাশ করছে বিজেপি।

যদিও নিজের রাজ্য বিহারে ছিলেন না প্রশান্ত। তবে সুশীল মোদীর মতো বিজেপি নেতারা ইঙ্গিত দিয়েছেন, নীতীশ কুমারের কাছে ফিরে আসার জন্য তিনি চিরাগ পাসোয়ানকে রিমোটের মতো নিয়ন্ত্রণ করছেন প্রশান্ত।

নীতীশ গত ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে প্রশান্তকে দলে নিজের ডেপুটি হিসেবে নিযুক্ত করেছিলেন। কিন্তু বিভিন্ন বিষয় নিয়ে প্রকাশ্যে তাঁকে লাগাতার আক্রমণের পর প্রশান্তকে বরখাস্ত করেন জেডিইউ প্রধান।

কী বলছেন প্রশান্ত কিশোর?

তবে এনডিটিভির সঙ্গে কথা বলার সময় বিজেপির অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন প্রশান্ত।

প্রশান্ত বলেন, “প্রথমত, বিহার বিধানসভা ভোটে আমার করার কিছুই নেই। দ্বিতীয়ত, চিরাগের সঙ্গে আমার শেষ বার দেখা হয়েছিল নীতীশকুমারের বাড়িতে”।

তাঁর অভিযোগ, বিজেপি উদ্দেশ্য প্রণোদিত ভাবেই তাঁর ঘাড়ে দোষ চাপাতে চাইছে। তাঁর যুক্তি, “এটা নীতীশ কুমারকে বোকা বানানোর ইচ্ছাকৃত কৌশল। বিহারের বিজেপি নেতারা কি ব্যাখ্যা দিতে পারবেন, চিরাগের সঙ্গে আসন ভাগাভাগি নিয়ে কে আলোচনা করেছেন? তাঁরা কি অমিত শাহ এবং জেপি নাড্ডা ছিলেন না? তাই না”?

বিহারে তিন দফায় ভোট

গত ২৫ সেপ্টেম্বর বিহার বিধানসভা ভোটের নির্ঘণ্ট প্রকাশ করে কমিশন জানায়, ২৮ অক্টোবর থেকে শুরু হবে তিন দফার ভোট। ফলাফল ঘোষণা আগামী ১০ নভেম্বর। আরও পড়তে পারেন: ২৮ অক্টোবর থেকে শুরু বিহারের তিন দফার ভোট

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.