ব্রিগেডে ‘নক্ষত্র’ সমাবেশ! কেন এলেন না মায়াবতী?

বিএসপিনেত্রী তাঁর রাজনৈতিক উচ্চাকাঙ্ক্ষার জন্য বেশ পরিচিত। কোনো অনুষ্ঠানে তিনি যদি আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু না হয়ে উঠতে পারেন, সে ক্ষেত্রে বিষয়টা না কি তাঁকে অস্থির করে তুলতেই পারে।

0

ওয়েবডেস্ক: তৃণমূল কংগ্রেসের ব্রিগেড সমাবেশ এখন জাতীয় রাজনীতির পাখির চোখে পরিণত হয়েছে। আগামী শনিবার তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঐক্যবদ্ধ ভারত গড়ার ডাকে সাড়া দিয়েই প্রায় ২০টি রাজনৈতিক দলের উচ্চনেতৃত্বের আবির্ভাব ঘটতে চলেছে ওই মঞ্চে। কিন্তু বর্তমানে বিজেপি-বিরোধিতার উজ্জ্বল মুখ উত্তরপ্রদেশের ‘বহেনজি’ মায়াবতী কেন অনুপস্থিত ওই ‘নক্ষত্র’ সমাবেশে?

রাজনীতির চর্চায় উঠছে এমনই প্রশ্ন। যদিও মমতার আমন্ত্রণ রক্ষায় বহুজন সমাজ পার্টি (বিএসপি)-র সাংসদ সতীশ মিশ্রকে পাঠিয়ে সৌজন্যতা বজায় রাখার চেষ্টা করেছেন মায়াবতী। কিন্তু নিজের রাজ্যের এ মুহূর্তে সব থেকে বড়ো দোসর সমাজবাদী পার্টি নেতা অখিলেশ যখন নিজেই আসছেন, তখন কী এমন কারণ রয়েছে তাঁর অনুপস্থিতিতে?

এ ব্যাপারে বিভিন্ন মহল থেকে উঠে আসছে বিভিন্ন ধরনের যুক্তি। একটি মহলের মতে, বিএসপিনেত্রী তাঁর রাজনৈতিক উচ্চাকাঙ্ক্ষার জন্য বেশ পরিচিত। কোনো অনুষ্ঠানে তিনি যদি আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু না হয়ে উঠতে পারেন, সে ক্ষেত্রে বিষয়টা না কি তাঁকে অস্থির করে তুলতেই পারে। তাঁকে সচরাচর এমন কোনো সভায় দেখা যায় না, যেখানে তাঁর অবস্থান একেবারে উপরের দিকে না থাকে।

আবার এ রাজ্যের বিএসপি নেতৃত্বের একাংশের কথায়, জাতীয় স্তরের রাজনীতিতে বিজেপি-বিরোধিতা মানেই অন্য কোনো আঞ্চলিক দলের নিজস্ব কর্মসূচিতে অংশ নেওয়াকে বোঝায় না। তবুও তাদের দলনেত্রী প্রতিনিধি তো পাঠাচ্ছেন। তবে দলীয় ভাবে তারা ওই সমাবেশে যাবে কি না, সে বিষয়ে কোনো নির্দেশ এখনও আসেনি। এ ক্ষেত্রে বিষয়টা কতকটা জাতীয় কংগ্রেসের মতোই। সেখানে দলের তরফে দুই প্রতিনিধি পাঠানো হলেও প্রদেশ কংগ্রেস যে অংশ নেবে না, তা দ্ব্যর্থহীন ভাষায় জানিয়ে দিয়েছে।

মোদী-বিরোধী ব্রিগেড: কোন কোন তারকা উড়ে আসছেন গড়ের মাঠে

অন্য দিকে এ কথা নতুন করে বলার নয়, মায়াবতী এবং মমতা বর্তমান রাজনীতিতে শক্তিশালী দুই মহিলা রাজনীতিক। উত্তরপ্রদেশ এবং পশ্চিমবঙ্গে তাঁদের নিজের নিজের ভোট ব্যাঙ্ক রয়েছে। এটা হতে পারে সমসাময়িক কালে মায়াবতীর রাজনৈতিক প্রভাবের রেখচিত্র কিছুটা নিম্নমুখী। তাঁর হাতে নেই মুখ্যমন্ত্রিত্ব। কিন্তু আগামী লোকসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে প্রধানমন্ত্রীপদের ‘ভাগিদার’ হিসাবে চাউর হয়ে গিয়েছে তাঁর নামটাও। সেই একই তালিকায় রয়েছে মমতার নামও। স্বাভাবিক ভাবেই মঞ্চভাগের ব্যাপারে এটুকু কৌশলী তো হতেই হয়!

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here