ওয়েবডেস্ক : ১০ নভেম্বরকে ‘বিশ্ব বিজ্ঞান দিবস’ হিসেবে পালন করে গোটা বিশ্ব। এ দিনটাকে শান্তি আর উন্নয়নের প্রতীক হিসেবে পালন করা হয়। ভারতে অবশ্য ২৮ ফেব্রুয়ারিকে ‘জাতীয় বিজ্ঞান দিবস’ হিসেবে পালন করা হয়। কিন্তু কেন?

জানেন কি কেন?

তার কারণ হল ১৯২৮ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি তারিখে ভারতীয় পদার্থবিদ চন্দ্রশেখর ভেঙ্কট রমন ‘রমন এফেক্ট’ আবিষ্কার করেছিলেন। তিনি সি ভি রমন নামে বেশি পরিচিত। তাঁর এই আবিষ্কারের জন্য ১৯৩০ সালে পদার্থ বিজ্ঞানে নোবেল পুরস্কারও পান। সি ভি রমন শুধু ভারতের নন, গোটা এশিয়ার মধ্যে প্রথম ব্যক্তি যিনি পদার্থ বিজ্ঞানে নোবেল পুরস্কার পেয়েছিলেন।

কী থেকে তিনি এই আবিষ্কারের কথা ভাবলেন?

১৯২১ সালে এক বার জাহাজে করে তিনি লন্ডন থেকে দেশে ফিরছিলেন। খেয়াল করলেন সমুদ্রের জলের রং নীল। তিনি জানতেন আকাশের রংও নীল লাগে, কারণ আকাশের বিশেষ বর্ণ ছটার জন্য। কিন্তু সমুদ্রের রং কেন নীল লাগে! সেই ভাবনা থেকেই তিনি গবেষণা শুরু করেন। আর তার ফলাফল জগৎবাসীর সামনে স্পষ্ট। সেটাই ‘রমন এফেক্ট’ নামে পরিচিত। লম্বা গবেষণার পর অবশেষে ১৯২৮ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি তিনি সূত্র আবিষ্কার করেন। অবশ্য ১৬ মার্চ আনুষ্ঠানিক ভাবে এই সূত্র প্রকাশ করেন তিনি। এই সূত্রের মূল কথা হল, পদার্থের বিভিন্ন অণুপরমাণুই সেই পদার্থের বর্ণের প্রতিফলনের জন্য দায়ি, তা সে জল, মাটি, আকাশ বা যা কিছুই হোক না কেন। কোন বস্তুকে কী রঙের দেখাবে তা তার ওপরই নির্ভর করে।

এই দিবস উদযাপনের উদ্দেশ্য কী?

সাধারণ মানুষের মধ্যে বিজ্ঞান বিষয়ে সচেতনতা বাড়াতে, প্রাত্যহিক জীবনের বিজ্ঞানের গুরুত্ব আর প্রয়োজনীয়তা কী তা তুলে ধরার জন্য আর নতুন প্রজন্মকে বিজ্ঞানের নতুন নতুন আবিষ্কারের প্রতি আগ্রহী করে তোলার জন্যই এই দিনটি পালিত হয়। বিভিন্ন স্কুলের পড়ুয়াদের জন্য নানান রকম বিজ্ঞান বিষয়ক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। তাদের এক্সিবিশন, তাৎক্ষণিক বক্তৃতা, বিতর্কসভা, আলোচনার আয়োজন করা হয়।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন