পুনে: পণের দাবিতে স্ত্রীর শরীরে এইডস্‌-এর জীবাণু ঢুকিয়ে দিয়েছেন চিকিৎসক স্বামী। নির্যাতিতা মহিলার অভিযোগ, তাঁর অসুস্থতার সুযোগে চিকিৎসক স্বামী স্যালাইন দেওয়ার সময়ই ওই ভাইরাস তাঁর শরীরে ঢুকিয়ে দেন। অভিযোগ পেয়ে ব্যবস্থা নেয় পুলিশ। নির্যাতিতার রক্তের নমুনা পরীক্ষা করে তাতে এইচআইভির উপস্থিতির প্রমাণও পেয়েছে চিকিৎসকেরা।

ওই মহিলা পুলিশকে জানিয়েছেন, ২০১৫ সালে পুণের এক হোমিওপ্যাথ চিকিৎসকের সঙ্গে বিয়ে হয়েছিল ২৭ বছরের ওই তরুণীর। তার পর থেকেই পণ চেয়ে তাঁর উপর চাপ দিতে শুরু করেন শ্বশুরবাড়ির লোকজন।

প্রথমে কিছু টাকা আনলেও পরে সেই টাকা আনতে অস্বীকার করেন নির্যাতিতা। মূলত এর পর থেকেই তাঁর উপর নির্যাতন বেড়ে যায়।

তাঁর অভিযোগ, ২০১৭ সালে তিনি একবার অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন। তখন বাড়িতেই তাঁর চিকিৎসা করেন স্বামী। স্যালাইনও দেন। স্ত্রীর অভিযোগ, স্যালাইনের মাধ্যমেই তাঁর শরীরে এইচআইভি ঢুকিয়ে দেন তিনি। পরে তিনি ঘন ঘন অসুস্থ হয়ে পড়লে রক্ত পরীক্ষা করে জানতে পারেন তিনি এইচআইভি পজিটিভ।

নির্যাতিতার অভিযোগ পেয়ে পুলিশ তাঁর রক্ত পরীক্ষা করিয়েছে। তাতে এইচআইভির প্রমাণ মিলেছে। তাঁর স্বামীর ডিএনএ পরীক্ষা করা হবে। অভিযোগ প্রমাণিত হলে তাঁকে গ্রেফতার করা হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here