rushi kumar and harika kumar

হায়দরাবাদ: তার অপরাধ সে এমবিবিএস প্রবেশিকা পরীক্ষায় পাশ করতে পারেনি। পুলিশের সন্দেহ, তার জন্যই হারিকা কুমারকে তার স্বামী পুড়িয়ে মেরে দিয়েছে। স্বামী ঋষি কুমার পেশায় সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার। তাকে ও তার বাবা-মাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে হায়দরাবাদের কাছে এলবি নগরের রক টাউন কলোনিতে।

হারিকার বাবার অভিযোগ, তাঁর মেয়েকে পরিকল্পনা করে খুন করা হয়েছে। পণ নিয়ে হয়রানির অভিযোগও করেছেন তাঁরা।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, রবিবার রাতে হারিকার মা-কে ঋষি ফোন করে বলে, তাঁর মেয়ে গায়ে আগুন দিয়েছে। পুলিশের এসিপি বেণুগোপাল রাও বলেন, “হারিকার স্বামী দাবি করেছিল তার স্ত্রী আত্মহত্যা করেছে। কিন্তু ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে মনে হয়েছে, এটা আত্মহত্যা নয়, হত্যার ঘটনা। আমাদের সন্দেহ স্বামীই তার স্ত্রীকে খুন করেছে।”

হারিকার বাবা-মা জানান, হারিকা কয়েক বছর ধরেই এমবিবিএস প্রবেশিকা পরীক্ষা দিচ্ছে, কিন্তু পারছে না। এ বছরও পারেনি। তবে একটা বেসরকারি কলেজে ডেন্টাল সার্জারির ব্যাচেলর কোর্সে সুযোগ পেয়েছিল। কিন্তু তার স্বামীর সেটা পচ্ছন্দ ছিল না। সে হারিকাকে ডিভোর্স করে দেওয়ার ভয় দেখাচ্ছিল।

হারিকার মা ও বোন বলে, “হারিকা আর ঋষি দু’ বছর হল বিয়ে করেছে। এমবিবিএস-এ হারিকা চান্স পাচ্ছিল না বলে ওকে রীতিমতো হয়রানি করত ওর স্বামী। এ বছর ও বিডিএস-এ চান্স পায়। পণের জন্যও অত্যাচার চালাত।… ছক করেই খুন করা হয়েছে হারিকাকে।”

বেণুগোপাল রাও বলেন, “মৃত্যুর প্রকৃত কারণ এখনও জানা যায়নি। তাকে আগেই পোড়ানো হয়েছে নাকি গলা টিপে খুন করে তার পর পোড়ানো হয়েছে, তা অটোপ্সির পরেই জানা যাবে। রিপোর্টের অপেক্ষায় আছি, তদন্ত  চলছে।”

 

 

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here