দাম বাড়লেও সারের জোগানে টান পড়বে না, আশ্বস্ত করল কেন্দ্র

0

নয়াদিল্লি: রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে আন্তর্জাতিক সরবরাহে ব্যাঘাত। দাম বেড়েছে সারের। সংকটের মুখে কৃষকরা। তবে মঙ্গলবার কেন্দ্রের তরফে জোরের সঙ্গে জানিয়ে দেওয়া হল, আসন্ন খরিফ চাষের মরশুমে কোনো সারের ঘাটতি হবে না। পাশাপাশি শীঘ্রই চলতি অর্থবছরের জন্য নন-ইউরিয়া সারে ভরতুকির হার ঘোষণা করবে সরকার।

জুন থেকে শুরু বর্ষা। আসন্ন মরশুমে খরিফ চাষের প্রস্তুতির বিষয়ে একটি সম্মেলনে বক্তৃতা করার সময় কেন্দ্রীয় সার সচিব আরকে চতুর্বেদী বলেন, কৃষকরা যাতে চাহিদা মতো সারের জোগান পান, বিশেষ করে সাশ্রয়কর দামে তাঁরা সার কিনতে পারেন, সে দিকে তাকিয়েই একাধিক পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে হামলা শুরু করে রুশ সেনাবাহিনী। দু’দেশের সীমানা ছাড়িয়ে এর প্রভাব পড়েছে বিশ্ব জুড়ে। রাশিয়া এবং বেলারুশের সারের আন্তর্জাতিক মূল্য গত মাসে পৌঁছে গিয়েছে রেকর্ড উচ্চতায়। এই দুই দেশ সারা বিশ্বে সার রফতানিতে শীর্ষস্থানে। তবে বিকল্প পথের সন্ধান করেছে ভারত সরকার। কেন্দ্রীয় সচিব বলেন, “সার আমদানির জন্য আন্তর্জাতিক সরবরাহকারীদের সঙ্গে আমরা স্বল্প এবং দীর্ঘমেয়াদি উভয় ধরনের চুক্তিই করেছি। যে কারণে খরিফ মরশুমে সারের কোনো ঘাটতি হবে না”।

কেন্দ্রের তথ্য অনুযায়ী, খরিফ মরশুমের জন্য মোট ৩৫৪.৩৪ লক্ষ টন সারের প্রয়োজন। বিপরীতে ৪৮৫.৫৯ লক্ষ টন সারের প্রাপ্যতা নিশ্চিত করা হবে। এর মধ্যে ১০৪.৭২ লক্ষ টন আমদানি এবং ২৫৪.৭৯ দেশের অভ্যন্তরীণ উৎপাদন।

সচিব আরও বলেন, এ বছরে ইউরিয়ার প্রয়োজন ১৭৯ লক্ষ টন, সেই জায়গায় আনুমানিক ২৫৬.২২ লক্ষ টন প্রাপ্যতা নিশ্চিত করছে কেন্দ্র। একই ভাবে, ডি-অ্যামোনিয়াম ফসফেট (ডিএপি)-এর আনুমানিক প্রাপ্যতা এবং চাহিদার পরিমাণ যথাক্রমে ৮১.৪২ লক্ষ টন এবং ৫৮.৮২ লক্ষ টন।

মিউরিয়েট অব পটাশ (এমওপি)-র ১০০ শতাংশ আমদানি করে দেশ। সে ক্ষেত্রে ১৯.৮১ লক্ষ টন চাহিদার তুলনায় খরিফ মরশুমের জন্য ২০.০৩ লক্ষ টন এমওপি-র প্রাপ্যতা নিশ্চিত করবে কেন্দ্র। এ ছাড়াও এনপিকে সার, সিঙ্গল সুপার ফসফেটের ক্ষেত্রেও জোগানে টান পড়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। পাশাপাশি কেন্দ্রীয় সচিব জানান, চাহিদা মেটাতে ১০৪.৭২ লক্ষ টন সার আমদানি করা হবে। যার মধ্যে ইউরিয়া ৪০ লক্ষ টন, ২৯ লক্ষ টন ডিএপি এবং ১৩.২২ লক্ষ টন এসএসপি।

আরও পড়তে পারেন:

জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ, স্বাস্থ্যকর্মীদের জন্য বিমা প্রকল্পের মেয়াদ বাড়ল আরও ১৮০ দিন

“তা হলেই বাঁচবে”, ইউক্রেনীয় সেনাকে অবিলম্বে অস্ত্র সংবরণ করতে বলল রাশিয়া

কাবুলের স্কুলে ধারাবাহিক বিস্ফোরণ, নিহত ৬

খাস কলকাতায় দিনেদুপুরে গুলির লড়াই! সিন্ডিকেট বিবাদের জেরে বাঁশদ্রোণীতে জখম ২

হাইকোর্টের নজরে রাজ্যের ৫ ধর্ষণ মামলা, তদন্তের অগ্রগতি রিপোর্ট তলব

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন