Connect with us

দেশ

“স্কাউন্ড্রেলদের সঙ্গে কখনোই জোট করব না”… কী প্রসঙ্গে এই কথা বলেছিলেন বাল ঠাকরে

মুম্বই: শিবসেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরে জোটের জন্য কংগ্রেস এবং এনসিপির শরণাপন্ন হচ্ছেন। ঠিক তখনই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে গিয়েছে বাল ঠাকরের কুড়ি বছর আগের একটি সাক্ষাৎকার।

ওই সাক্ষাৎকারে কংগ্রেস এবং এনসিপিকে ‘স্কাউন্ড্রেল’ আখ্যা দিয়ে ঠাকরে বলেছিলেন, এই দুই দলের সঙ্গে কখনোই হাত মেলাবেন না তিনি।

১৯৯৯ সালে এই সাক্ষাৎকারটি তিনি দিয়েছিলেন এনডিটিভিকে। মহারাষ্ট্রের রাজনীতিতে শরদ পাওয়ার এবং বাল ঠাকরে তখন যুযুধান দুই পক্ষ। শরদ পাওয়ারের সঙ্গে জোট গড়ার ব্যাপারে ঠাকরেকে প্রশ্ন করেছিলেন এনডিটিভির সাংবাদিক।

জবাবে তাঁর উত্তর ছিল, “রাজনীতিতে সম্ভাবনা… কীসের? রাজনীতিকে নাকি বলা হয় স্কাউন্ড্রেলদের খেলা। সেখানে একজনকে সিদ্ধান্ত নিতে হয় যে সে স্কাউন্ড্রেলদের সঙ্গে হাত মেলাবে না কি ভদ্রলোকই থাকবে? যে-ই হোক না কেন, আমি কখনও কোনো স্কাউন্ড্রেলের সঙ্গে হাত মেলাব না।”

সেই সাক্ষাৎকারেই তিনি জানিয়ে দিয়েছিলেন শরদ পাওয়ারের এনসিপির সঙ্গে কোনো দিনও জোটে যাবেন না তিনি।

আরও পড়ুন বুলবুলের প্রভাবে রাজ্যে প্রায় কুড়ি হাজার কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি, ইঙ্গিত আধিকারিকের

বাল ঠাকরের বক্তব্য ছিল, ১৯৯৯ সালে বাজপেয়ী সরকারের পতনের জন্য শরদ পাওয়ারের ভূমিকা। তিনি বলেন, “যে লোকটা নিজের দায়িত্বে বাজপেয়ী সরকারকে ফেলে দিয়েছে বলে স্বীকার করেছে, কী ভাবে আমি তার সঙ্গে হাত মেলাব?”

তবে ৮০-এর দশকে বাল ঠাকরে এবং শরদ পাওয়ার যথেষ্ট ঘনিষ্ঠ ছিলেন। পাওয়ার তখন কংগ্রেসের নেতা হলেও, দু’জনে একসঙ্গে বিভিন্ন শ্রমিক আন্দোলনের নেতৃত্ব দিয়েছেন। তার পরেই সম্পর্কে চিড় ধরে দু’জনের মধ্যে।

Advertisement
Click to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দেশ

বিজেপিতে যাচ্ছি না, বললেন সচিন পায়লট

খবরঅনলাইন ডেস্ক: রবিবার সারা দিন জল্পনা চলল, রাজস্থানের (Rajasthan) উপ-মুখ্যমন্ত্রী কংগ্রেসের বিদ্রোহী নেতা সচিন পায়লট (Sachin Pilot) কী করবেন। রবিবার বেশ রাতে কয়েক জন সাংবাদিককে সচিন জানিয়েছেন, তিনি বিজেপিতে যাচ্ছেন না।

মুখ্যমন্ত্রী অশোক গহলৌতের (Ashok Gehlot) বিরুদ্ধে বিদ্রোহের ধ্বজা ওড়ানোর পর থেকেই জল্পনা শুরু হয়েছিল, তা হলে মধ্যপ্রদেশের কমল নাথের সরকার ওলটানোর জন্য জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া যে পথ নিয়েছেন, সেই পথেই চলবেন তাঁর বন্ধু সচিন পায়লট। আপাতত সেই জল্পনায় জল ঢেলে দিলেন তিনি।

পায়লট শিবিরের হোয়াটস অ্যাপ বার্তা

সোমবার সকালে জয়পুরে রাজস্থান কংগ্রেস পরিষদীয় দলের বৈঠক ডেকেছেন মুখ্যমন্ত্রী। সেই বৈঠকে যে সচিন ও তাঁর অনুগামীরা থাকবেন না, সেই বার্তা তাঁদের হোয়াটস অ্যাপ গ্রুপ মারফত ছড়িয়ে দেওয়া হয়। সেই বার্তা দেওয়ার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই এল সচিনের সাম্প্রতিকতম বার্তা – তিনি বিজেপিতে যাচ্ছেন না।

ওই হোয়াটস অ্যাপ বার্তায় এ-ও বলা হয়েছিল, সচিন পায়লটের দিকে দলের অন্তত ৩০ জন বিধায়ক ও কিছু নির্দল বিধায়কের সমর্থন রয়েছে। এই পরিস্থিতিতে সংখ্যালঘু সরকার চালাচ্ছেন অশোক গহলৌত।

এই হোয়াটস অ্যাপ বার্তা থেকে এটা অবশ্য প্রমাণিত হয় না যে সচিন পায়লট বিজেপির দিকে পা বাড়িয়ে আছেন। তবে তাঁর কিছু আচার-আচরণ সে দিকে ইঙ্গিত করছিল – যেমন, কংগ্রেসের দূতদের সঙ্গে কথা বলতে না চাওয়া, জয়পুরে দলের বিধায়কদের সভায় যোগ দেওয়ার ব্যাপারে অনিচ্ছা প্রকাশ করা এবং হোয়াটস অ্যাপ বার্তা দেওয়ার আগে থেকেই তাঁর দলত্যাগের সম্ভাবনার কথা প্রচার হওয়া। এ যেন মার্চে ঘটে যাওয়া মধ্যপ্রদেশেরই চিত্রনাট্য – ২২ জন অনুগামী বিধায়ককে নিয়ে জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া বিজেপিতে ভিড়লেন এবং কমল নাথের সরকারকে গদি থেকে নামালেন।   

জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়ার টুইট

ইতিমধ্যে রবিবার টুইট করে জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া যে ভাবে সচিন পায়লটকে গুরুত্বহীন করে নিগ্রহ করা হচ্ছে তাতে হতাশা প্রকাশ করেন। ওয়াকিবহাল মহল জানেন, দু’ জনের মধ্যে ভালো বন্ধুত্ব রয়েছে এবং দু’ জনেরই ক্ষোভের কারণ একটিই। তাঁদের ধারণা, ২০১৮-এর বিধানসভা নির্বাচনে মধ্যপ্রদেশ ও রাজস্থানে জয়ের পরে তাঁদের মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার ন্যায়সঙ্গত দাবি নস্যাৎ করে দিয়েছে দলের হাইকম্যান্ড।

সূত্র মারফত জানা গেছে, রবিবারের টুইটের পরে জ্যোতিরাদিত্য ও সচিনের মধ্যে কথাবার্তা হয়েছে এবং সচিনের বিজেপিতে যোগ দেওয়ার বিষয় নিয়েও দু’ জনের আলোচনা হয়েছে।

তা হলে কী এমন ঘটল যে সচিন পায়লট স্পষ্ট করে দিলেন যে তিনি বিজেপিতে যাচ্ছেন না। এই প্রশ্নই এখন ঘুরপাক খাচ্ছে রাজনৈতিক মহলে।

কংগ্রেস সূত্র এবং পায়লটের ঘনিষ্ঠ এক সূত্র আউটলুককে জানিয়েছেন, বিজেপির সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলছিলেন উপ-মুখ্যমন্ত্রী এবং দলত্যাগের সব দিক খতিয়ে দেখছিলেন। জ্যোতিরাদিত্যের সঙ্গে কথা বলার পরে সচিন বিজেপির এক সিনিয়ার কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলেন এবং তিনি যে দল পরিবর্তনে রাজি তা ঠারেঠোরে তাঁকে জানান। শর্ত একটাই, তাঁকে একটা সম্মানজনক প্রস্তাব দিতে হবে। কিছু কিছু সংবাদ মাধ্যম খবরও করে দেয় যে, বিজেপি সভাপতি জে পি নড্ডার উপস্থিতিতে সোমবারই বিজেপিতে যোগ দেবেন সচিন পায়লট।

হঠাৎ কী হল

আউটলুক লিখেছে, এর পরই মধ্যপ্রদেশের চিত্রনাট্য থেকে একটু বদলে যায় রাজস্থানের চিত্রনাট্য। ৩০ না হলেও, পায়লট যে অন্তত ২৫ জন বিধায়কের সমর্থন জোগাড় করতে পারবেন, তার নিশ্চয়তা চায় বিজেপি। আসলে উচ্চাভিলাষী পায়লটের মন রাখার জন্য বিজেপি কোনো রকম ঝুঁকি নিতে চায়নি। ২০০ সদস্যের রাজস্থান বিধানসভায় বিজেপির সদস্য রয়েছেন ৭২ জন। আরও জনা ছয়েক বিধায়ক বিজেপির দিকে রয়েছেন। অন্য দিকে কংগ্রেসের সদস্য সংখ্যা ১০৭ এবং তাদের দিকে সমর্থন রয়েছে আরও ডজনখানেক বিধায়কের। সুতরাং পায়লট যদি ২৫ জনকে তাঁর সঙ্গে বিজেপিতে আনতে পারেন তা হলে সংখ্যাগরিষ্ঠতার থেকে গোটা দুয়েক বেশি বিধায়কের সমর্থন থাকবে বিজেপির দিকে। আর তখন নির্দলদেরও টোপ দিয়ে তাদের দিকে টানতে পারবে তারা। এটাই ছিল হিসাব।

জানা যায়, এখানেই বিপাকে পড়েছেন সচিন পায়লট। সম্ভবত, ইতিমধ্যে পায়লটের কিছু সহযোগী তাঁর সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেছেন। স্বাস্থ্যমন্ত্রী রঘু শর্মাকে, যিনি পায়লটের গোঁড়া সমর্থক ছিলেন, অতি সম্প্রতি মুখ্যমন্ত্রীর ঘনিষ্ঠ হতে দেখা গেছে। পায়লটের আরও অন্তত তিন বিশ্বস্ত অনুগামী বিধায়ক রোহিত বহরা, চেতন দুদি এবং দানিশ আবরার রবিবার সন্ধ্যায় মুখ্যমন্ত্রীর বাসভবনে তাঁর সঙ্গে দেখা করেন এবং পরে তাঁরা সংবাদ মাধ্যমকে জানান তাঁরা কংগ্রেস এবং মুখ্যমন্ত্রীর প্রতি দায়বদ্ধ। উপ-মুখ্যমন্ত্রীর বিদ্রোহের সঙ্গে তাঁর অনুগামী যে ১৬ জন বিধায়ক শনিবার ও রবিবার দিল্লি ও গুরুগ্রামের হোটেলে ছিলেন, এই তিন জন তাঁদের মধ্যে ছিলেন।

সচিন পায়লটকে যে ইঙ্গিত দিয়েছিল বিজেপি তা থেকে তারা সরে এসেছে কি না বা নিজের শিবিরে বিশ্বাসঘাতকতার আঁচ পেয়ে পায়লট নিজেই পিছিয়ে এসেছেন কি না, তা স্পষ্ট বোঝা না গেলেও, এটা পরিষ্কার প্রতিদ্বন্দ্বী অশোক গহলৌতের জামার আস্তিনে ক’টা তাস লুকোনো আছে তা না বুঝেই একটু আগ বাড়িয়ে খেলছিলেন সচিন পায়লট। তাই কি তাঁর পিছিয়ে আসা?

Continue Reading

দেশ

প্রবল বর্ষণে সিকিমে ভয়াল রূপ তিস্তার, হুড়মুড় করে ভেঙে পড়ল প্রাক্তন সাংসদের বাড়ি

আগামী দু’তিন দিন আরও বৃষ্টির আশঙ্কা রয়েছে সিকিমে। ফলে পরিস্থিতি আরও বিপজ্জনক হতে পারে বলেও আশঙ্কা করা হচ্ছে।

খবরঅনলাইন ডেস্ক: গত কয়েক দিন ধরেই প্রবল বৃষ্টি হচ্ছে সিকিমে (Sikkim)। সেই বৃষ্টির প্রভাবে রবিবার ব্যাপক ভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়ল রাজ্যটা। এক দিকে যেমন ভয়াল রূপ ধারণ করেছে তিস্তা। তেমনই প্রাক্তন সাংসদের বাড়ি হুড়মুড় করে ভেঙে পড়ার মতো ঘটনাও ঘটেছে।

উত্তর সিকিমের মঙ্গনে চার-তলা বিশাল বাড়ি রাজ্যসভার প্রাক্তন সাংসদ লেওনার্ড সোলোমান শারিংয়ের। সেই বাড়ির একটা বড়ো অংশ রবিবার ভেঙে পড়ে।

স্থানীয় প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে, তিস্তার জলস্তর ব্যাপক ভাবে বেড়ে যাওয়া আর সেই কারণে ভূমিধসের ফলে বাড়িটি ভেঙে পড়ে। বাড়িটির অবস্থা বিপজ্জনক ছিল। সেই কারণে আগে থেকেই সেটি ফাঁকা করে দেওয়া হয়। সরিয়ে দেওয়া হয় আশেপাশের দোকানদারদেরও।

৭৮ বছর বয়সি শেরিং ১৯৭৫ থেকে ১৯৮৭ পর্যন্ত দুই দফায় সাংসদ ছিলেন।

তবে পাহাড়ি এই অঞ্চলে চার-তলার অট্টালিকা তৈরি করার আদৌ কোনো প্রয়োজন রয়েছে কি না, রবিবার ঘটনাটি সেই প্রশ্নই আবার তুলে দিয়ে গেল।

এ দিকে দক্ষিণ সিকিমের সিংটামে তিস্তার রূপ দেখে স্থানীয় বাসিন্দারা রীতিমতো আতঙ্কিত। ২০১৩ সালে উত্তরাখণ্ডে মন্দাকিনী বা অলকানন্দার যে রূপ দেখা গিয়েছিল, তিস্তাকেও সে রকমই দেখাচ্ছে।

তিস্তার জল একটি সেতুকেও ছুঁয়ে ফেলছিল। তবে সেতুটি এখনও অক্ষতই রয়েছে। যদিও সেটা আদৌ অক্ষত থাকবে কি না, সেই নিয়ে চিন্তায় প্রশাসন।

আগামী দু’তিন দিন আরও বৃষ্টির আশঙ্কা রয়েছে সিকিমে। ফলে পরিস্থিতি আরও বিপজ্জনক হতে পারে বলেও আশঙ্কা করা হচ্ছে।

Continue Reading

দেশ

দেশে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যায় রেকর্ড, তবে মৃত্যুহারে উল্লেখযোগ্য পতন

স্বস্তি দিচ্ছে মৃত্যুহারের বড়োরকমের পতন। বর্তমানে সেই হার নেমে এসেছে ২.৬৩ শতাংশে।

খবরঅনলাইন ডেস্ক: এক দিনে সংক্রমিত হলেন ২৮,৭০১ জন। অর্থাৎ আক্রান্তের সংখ্যায় দৈনিক রেকর্ড হল সোমবার। যদিও মৃত্যুহার উল্লেখযোগ্য ভাবে কমে গিয়েছে। পাশাপাশি স্বস্তি দিচ্ছে সুস্থতার হারও।

দেশের করোনা-তথ্য

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের (Ministry of Health and Family Welfare) সোমবারের হিসেব বলছে, এই মুহূর্তে দেশে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৮ লক্ষ ৭৮ হাজার ২৫২। এর মধ্যে সক্রিয় রোগী রয়েছেন ৩ লক্ষ ১ হাজার ৬০৯। সুস্থ হয়েছেন ৫ লক্ষ ৫৩ হাজার ৪৭০ জন। মৃত্যু হয়েছে ২৩,১৭৪ জনের।

অর্থাৎ গত ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড সংক্রমণের পাশাপাশি সুস্থ হয়েছেন ১৮,৮৪৯ জন। মৃত্যু হয়েছে ৫০০ জনের।

বর্তমানে ভারতে সুস্থতার হার রয়েছে ৬৩.০১ শতাংশে। তবে স্বস্তি দিচ্ছে মৃত্যুহারের বড়ো রকমের পতন। বর্তমানে সেই হার নেমে এসেছে ২.৬৩ শতাংশে।

দিল্লিতে কমছে সংক্রমণ, বাড়ছে সুস্থতা

গোটা দেশের কাছেই এখন মডেল হয়ে উঠেছে দিল্লি (Delhi)। সেখানে আক্রান্তের সংখ্যা লক্ষাধিক হলেও দিন দিন রাজধানীতে কমছে নতুন সংক্রমণ। একই সঙ্গে বাড়ছে সুস্থতা। দিল্লিতে এই মুহূর্তে সুস্থতার হার ৭৯.৯৭ শতাংশ হয়ে গিয়েছে।

বিশেষজ্ঞরা আশা করছেন, দিল্লির বর্তমান প্রবণতা যদি আরও দেড় থেকে দুই সপ্তাহ চলে, তা হলে কোভিড কার্ভ সমান তথা ‘ফ্ল্যাটেন’ হয়ে যাবে সেখানে।

যে রাজ্যগুলি এখন মূল চিন্তার কারণ

বর্তমানে, মহারাষ্ট্র, দিল্লি বা তামিলনাড়ুর থেকেও বেশি চিন্তা রয়েছে বেশ কয়েকটি রাজ্যকে নিয়ে। তাদের মধ্যে পশ্চিমবঙ্গও পড়ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় এ রাজ্যে ১৫৬০ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন, যা খুবই উদ্বেগজনক।

পশ্চিমবঙ্গ ছাড়াও তেলঙ্গানা, কর্নাটক, অন্ধ্রপ্রদেশ, অসম, বিহার চিন্তা বাড়াচ্ছে। এই পাঁচ রাজ্যেই গত ২৪ ঘণ্টায় এক হাজারের বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন। কর্নাটকে তো আড়াই হাজারের বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন।

তবে উত্তরপ্রদেশে রোগী-বৃদ্ধির হার কিছুটা নিয়ন্ত্রণে এসেছে বলেই মনে করা হচ্ছে।

নমুনা-পরীক্ষা সংক্রান্ত তথ্য

গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে ১ লক্ষ ১৯ হাজার ১০৩টি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে। এর ফলে এখনও পর্যন্ত মত এক কোটি ১৮ লক্ষ ৬ হাজার ২৫৬টি নমুনা পরীক্ষা হয়েছে দেশে।

Continue Reading
Advertisement
football2
ফুটবল2 hours ago

কোভিড-পরিস্থিতিতে আসন্ন আই লিগের সব ম্যাচই কলকাতায় করার ভাবনা

দেশ2 hours ago

বিজেপিতে যাচ্ছি না, বললেন সচিন পায়লট

দেশ2 hours ago

প্রবল বর্ষণে সিকিমে ভয়াল রূপ তিস্তার, হুড়মুড় করে ভেঙে পড়ল প্রাক্তন সাংসদের বাড়ি

উঃ দিনাজপুর2 hours ago

বিজেপি বিধায়কের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার, পরিবারের দাবি খুন

রাজ্য3 hours ago

উত্তরবঙ্গে বৃষ্টির দাপট কিছুটা কমলেও স্বস্তি দিচ্ছে না আগামী তিন দিনের পূর্বাভাস

দেশ3 hours ago

দেশে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যায় রেকর্ড, তবে মৃত্যুহারে উল্লেখযোগ্য পতন

দেশ4 hours ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ২৮৭০১, সুস্থ ১৮৮৪৯

বিদেশ4 hours ago

কমদামী ও সহজলভ্য দুই ওষুধের সংমিশ্রণেই কমছে করোনার মারণ ক্ষমতা?

দেশ4 hours ago

কোভিড আপডেট: নতুন করে আক্রান্ত ২৮৭০১, সুস্থ ১৮৮৪৯

দুর্গা পার্বণ2 days ago

আজও ভিয়েন বসিয়ে হরেক রকম মিষ্টি তৈরি হয় চুঁচড়ার আঢ্যবাড়ির দুর্গাপুজোয়

ফুটবল3 days ago

এটিকে-মোহনবাগানের নতুন লোগো প্রকাশিত, জার্সির রঙ সবুজমেরুনই

কলকাতা2 days ago

সক্রিয় রোগীর নিরিখে এই মুহূর্তে কলকাতার অবস্থান কত নম্বরে?

শিক্ষা ও কেরিয়ার3 days ago

প্রকাশিত হল আইসিএসই এবং আইএসসি ফলাফল, মিলল না মেধা তালিকা!

দেশ3 days ago

শারীরিক দুরত্ব ভেঙে মানবিক দায়িত্ব পালন

Shaktikanta Das
দেশ2 days ago

কোভিড-১৯ স্বাস্থ্য এবং অর্থনীতির সামনে শেষ একশো বছরের সব থেকে বড়ো সংকট: আরবিআই গভর্নর

Harsh Vardhan
দেশ3 days ago

করোনা আক্রান্তের সংখ্যায় আমরা উদ্বিগ্ন নই: কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী

কেনাকাটা

কেনাকাটা19 hours ago

হ্যান্ডওয়াশ কিনবেন? নামী ব্র্যান্ডগুলিতে ৩৮% ছাড় দিচ্ছে অ্যামাজন

খবরঅনলাইন ডেস্ক : করোনাভাইরাস বা কোভিড ১৯ এর সঙ্গে লড়াই এখনও জারি আছে। তাই অবশ্যই চাই মাস্ক, স্যানিটাইজার ও হ্যান্ডওয়াশ।...

কেনাকাটা4 days ago

ঘরের একঘেয়েমি আর ভালো লাগছে না? ঘরে বসেই ঘরের দেওয়ালকে বানান অন্য রকম

খবরঅনলাইন ডেস্ক : একে লকডাউন তার ওপর ঘরে থাকার একঘেয়েমি। মনটাকে বিষাদে ভরিয়ে দিচ্ছে। ঘরের রদবদল করুন। জিনিসপত্র এ-দিক থেকে...

কেনাকাটা6 days ago

বাচ্চার জন্য মাস্ক খুঁজছেন? এগুলোর মধ্যে একটা আপনার পছন্দ হবেই

খবরঅনলাইন ডেস্ক : নিউ নর্মালে মাস্ক পরাটাই দস্তুর। তা সে ছোটো হোক বা বড়ো। বিরক্ত লাগলেও বড়োরা নিজেরাই নিজেদেরকে বোঝায়।...

কেনাকাটা7 days ago

রান্নাঘরের টুকিটাকি প্রয়োজনে এই ১০টি সামগ্রী খুবই কাজের

খবরঅনলাইন ডেস্ক : লকডাউনের মধ্যে আনলক হলেও খুব দরকার ছাড়া বাইরে না বেরোনোই ভালো। আর বাইরে বেরোলেও নিউ নর্মালের সব...

নজরে