Connect with us

দিবস

বিশ্ব খাদ্য দিবস ২০২০-র অঙ্গীকার, ‘বিকাশের লক্ষ্যে খাদ্য হোক সবার’

সবার জন্য খাদ্য নিশ্চিত করেই বিকাশের পথে এগিয়ে চলুক বিশ্বসমাজ। ভবিষ্যতের জন্য এখনই পদক্ষেপ নিতে হবে।

Published

on

খবর অনলাইন ডেস্ক: কোনো মানুষের মাথার উপর যদি দুর্ভাগ্যবশত ছাদ না থাকে, অথবা পরার জন্য কাপড় না থাকে, তা হলেও হয়তো কোনো রকমে বেঁচে থাকা যায়! কিন্তু খাবার যদি না থাকে? পুষ্টির অভাবে জীবনধারণ তখন ঝুঁকির মুখোমুখি হওয়াটাই স্বাভাবিক।

তাই তো ক্ষুধার বিরুদ্ধে প্রতিমুহূর্তের লড়াই চলছে বিশ্ব জুড়ে। সেই লড়াই সম্পর্কে জন সচেতনতা বাড়িয়ে উপযুক্ত পদক্ষেপ নেওয়ার কথা স্মরণ করিয়ে দিয়েই প্রতি বছর ১৬ অক্টোবর পালিত হয় বিশ্ব খাদ্য দিবস (World Food Day)।

Loading videos...

ইতিহাস বলে, সামাজিক রূপান্তর থেকে শুরু করে উন্নয়ন এবং বিস্তারের কাজে অনুঘটক হিসেবে ভূমিকা পালন করেছে খাদ্য। কিন্তু এই একবিংশ শতাব্দীতেও অনেকের কাছেই খাদ্যসুরক্ষার বিষয়টি নিশ্চিত নয়। যে কারণে, বর্তমান বিশ্বে এই খাদ্যসুরক্ষা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হয়ে উঠেছে।

কেন ১৬ অক্টোবর?

এই নির্দিষ্ট দিনটিতে খাদ্য দিসব পালনের একটি ঐতিহাসিক কারণও রয়েছে। এই দিনটিই খাদ্য ও কৃষি সংস্থা (ফুড অ্যান্ড এগ্রিকালচার অর্গানাইজেশন)-এর প্রতিষ্ঠা দিবস। রাষ্ট্রসঙ্ঘের একটি সংস্থা হিসাবে ১৯৪৫ সালে এই সংস্থাটি স্থাপিত হয়েছিল।

পর্যাপ্ত খাদ্য এবং পুষ্টির গুরুত্ব সম্পর্কে সচেতনতা বাড়াতে বিশ্ব খাদ্য দিবস বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন ভাবে পালিত হয়। পালন করা হয় ভারতেও।

বিভিন্ন দেশেই ক্ষুধার বিরুদ্ধে কঠিন লড়াই করে চলেছেন অসংখ্য মানুষ। সার্বিক ভাবে সচেতনতা বাড়িয়ে এই সমস্যা মোকাবিলা করা সম্ভব বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। যে কারণে প্রতিবছরের ১৬ অক্টোবর বিশ্বব্যাপী ক্ষুধা নিবারণ অথবা বিশ্ব থেকে ক্ষুধা নির্মূলের জন্য এই দিনটিকে বিশেষ ভাবে পালন করা হয়।

বিশ্ব খাদ্য দিবস ২০২০-র থিম

নির্দিষ্ট একটি উদ্দেশ্য নিয়ে প্রতিবছরই নির্দিষ্ট একটি বিষয়ের উপর মনোনিবেশ করা হয়। প্রয়োজনীয় পদক্ষেপের ওই বিষয়টিকেই বলা হয় থিম।

এ বছরের থিম হল- “সকলকে সঙ্গে নিয়ে বিকশিত হোন, শরীরের যত্ন নিন, সুস্থ থাকুন। আমাদের কর্মই আমাদের ভবিষ্যৎ”। অর্থাৎ, সবার জন্য খাদ্য নিশ্চিত করেই বিকাশের পথে এগিয়ে চলুক বিশ্বসমাজ। ভবিষ্যতের জন্য এখনই পদক্ষেপ নিতে হবে।

বিশ্ব খাদ্য দিবসের অন্যতম উদ্দেশ্য:

*কৃষি খাদ্য উৎপাদন করতে উৎসাহিত করা

*অর্থনৈতিক ও প্রযুক্তিগত ক্ষেত্রে উন্নয়নশীল দেশগুলোর মধ্যে সহযোগিতা করতে উৎসাহিত করা

*গ্রামের মানুষের অবদান সম্পর্কে উৎসাহিত করা, বিশেষ করে নারী ও অন্তজ শ্রেণীকে বিশেষ সুযোগ দেওয়া

*উন্নয়নশীল দেশগুলোতে প্রযুক্তি স্থানান্তর সম্পর্কে প্রচার করা

*ক্ষুধা, অপুষ্টি ও দারিদ্র্যের বিরুদ্ধে লড়াই সম্পর্কে সমস্ত জাতিকে উৎসাহিত করা এবং সচেতনতা বাড়ানো

*কৃষি উন্নয়ন সম্পর্কে নজর দেওয়া (তথ্য: এনএইচপি ইন্ডিয়া)

ক্ষুধার বিরুদ্ধে সব থেকে ভালো ভ্যাকসিন খাবার! 

২০২০ নোবেল শান্তি পুরস্কার (Nobel Peace Prize) পেয়েছে রাষ্ট্রসঙ্ঘের খাদ্য সহায়তা সংক্রান্ত শাখা ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রাম (World Food Programme)। সংঘর্ষ কবলিত অঞ্চলে ক্ষুধা নিবারণ এবং শান্তি ফিরিয়ে আনার প্রচেষ্টার জন্যই সংস্থাকে এই শান্তি পুরস্কার প্রদানের ঘোষণা করেছে নোবেল কমিটি।

ওসলোয় পুরস্কার ঘোষণা করে নোবেল কমিটির প্রধান ব্রেইট রেইস-অ্যান্ডারসন বলেন, সারা বিশ্ব জুড়ে ক্ষুধার বিরুদ্ধে এবং খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রাম (WEP)। তারই স্বীকৃতি হিসেবে এই পুরস্কার দেওয়া হল। আরও পড়তে পারেন এখানে: ক্ষুধার বিরুদ্ধে সব থেকে ভালো ভ্যাকসিন খাবার! নোবেল শান্তি পুরস্কার পেল ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রাম

কলকাতা

শিক্ষক দিবস ২০২০: শিক্ষক প্রণামে অনলাইনই ভরসা পড়ুয়াদের

পড়ার ব্যাচে শিক্ষককে উপহার দেওয়া হবে না? স্কুলে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হবে না? সবাই মিলে এক সঙ্গে চেঁচিয়ে ‘হ্যাপি টিচার্স ডে’ বলে ওঠা হবে না? এসব ভেবে মন খারাপ গৃহবন্দি পড়ুয়াদের।

Published

on

teachers-day
ছবি : পিন্টারেস্ট

নিজস্ব প্রতিবেদন :আজ শিক্ষক দিবস। তবে বিগত পাঁচ মাস ধরেই বন্ধ সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। তা হলে কী ভাবে পালিত হবে এবারের শিক্ষক দিবস?

পড়ার ব্যাচে শিক্ষককে উপহার দেওয়া হবে না? স্কুলে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হবে না? সবাই মিলে এক সঙ্গে চেঁচিয়ে ‘হ্যাপি টিচার্স ডে’ বলে ওঠা হবে না? এসব ভেবে মন খারাপ গৃহবন্দি পড়ুয়াদের।

Loading videos...

তবে মন খারাপের মাঝেই ৫বছরের ছোট্ট পেখম বানিয়েছে কার্ড। ভিডিওকলেই তাদের বন্ধুরা কার্ড দেখাবে, তাদের শিক্ষিকাকে।

অন্যদিকে ক্যালকাটা পাবলিকের একাদশ শ্রেণির রীতিশা এবং তার কয়েকজন বন্ধু সকালেই উপস্থিত হবে তার শিক্ষকের বাড়ি। তাদের কথায়, ‘‘এটাই আমাদের স্কুলের শেষবার শিক্ষক দিবস, তাই আমরা একবার স্যারের বাড়ি যাবো, কিছু উপকার কিনেছি, কেক কিনেছি’’

বারাসাত গার্লস এর সৃজা জানিয়েছে, ‘‘আমরা সকাল ৮টা থেকে একে একে সবাই মিলে হোয়াটসঅ্যাপে দিদিদের শিক্ষক দিবসের শুভেচ্ছা ও প্রণাম জানাবো।’’

টানা পাঁচ মাসে করোনা সম্পর্কে পড়ুয়ারা যথেষ্ট সচেতন হয়েছে। তাদের অধিকাংশই শিক্ষকের বাড়িতে গিয়ে ভিড় বাড়াতে চায় না।

স্কটিশ চার্চের দ্বিতীয় বর্ষের পড়ুয়া আকাশ জানিয়েছে, ‘‘করোনার কারণে অবশ্যই আমরা স্যারের বাড়ি পৌঁছে ভিড় করবো না, তবে আমরা একটি ওয়েবনারের মাধ্যমে গান, আবৃত্তি এবং অবশ্যই সর্বপল্লী রাধাকৃষ্ণননের জীবনের কিছু বক্তব্য তুলে ধরবো।’’

করোনা আবহে ‘সোশ্যাল ডিসট্যান্সিং’ যখন দস্তুর। তখন এ বছর অনলাইনকে ভরসা করেই পালিত হচ্ছে শিক্ষক দিবস।

Continue Reading

দিবস

শিক্ষক দিবস : জেনে নিন ড. সর্বপল্লি রাধাকৃষ্ণন সম্পর্কে ১০টি গুরুত্বপূর্ণ তথ্য

দর্শন তাঁর প্রথম পছন্দের বিষয় ছিল না। বই কেনার টাকা ছিল না রাধাকৃষ্ণনের। কিন্তু সেই সময়েই একই কলেজ থেকে দর্শন নিয়ে স্নাতক হন তাঁর এক দাদা। দাদার বইয়ের জন্যই দর্শনকেই বেছে নেন তিনি।

Published

on

sarvepalli radhakrishnan

খবরঅনলাইন ডেস্ক: শিক্ষক এবং দার্শনিক ড. সর্বপল্লি রাধাকৃষ্ণন বিভিন্ন সময়ে সোভিয়েত ইউনিয়নে ভারতের দূত, দেশের উপরাষ্ট্রপতি এবং সর্বোপরি রাষ্ট্রপতি হিসাবে দায়িত্ব পালন করে গিয়েছেন। ১৯৬২ সালে প্রথম বার ড. রাধাকৃষ্ণনের জন্মদিন শিক্ষক দিবস হিসেবে পালিত হয়েছিল।

জেনে নেওয়া যাক ড. সর্বপল্লি রাধাকৃষ্ণন সম্পর্কে দশটা তথ্য –

Loading videos...

১) বর্তমান তামিলনাড়ু এবং তৎকালীন মাদ্রাজ প্রদেশের তিরুতান্নিতে এক গরিব ব্রাহ্মণ পরিবারে ১৮৮৮-এর ৫ সেপ্টেম্বর জন্মগ্রহণ করেন রাধাকৃষ্ণন। ছেলে পূজারি হোক, এমনটাই চাইতেন তাঁর বাবা। বাবা কখনোই চাননি ছেলে ইংরেজি পড়ুক। কিন্তু রাধাকৃষ্ণনের জেদে পরাজিত হন তাঁর বাবা। তিরুপতির একটি স্কুলে তাঁকে ভর্তি করা হয়।

মেধাবী ছাত্র রাধাকৃষ্ণন স্কুলজীবনে অসংখ্য স্কলারশিপ পেয়েছেন। প্রথমে ভেলোরের ভুরহি কলেজে ভর্তি হলেও, পরে মাদ্রাজ ক্রিশ্চান কলেজে ভর্তি হন তিনি। তাঁর বিষয় ছিল দর্শন। কিন্তু দর্শন তাঁর প্রথম পছন্দের বিষয় ছিল না। বই কেনার টাকা ছিল না রাধাকৃষ্ণনের। কিন্তু সেই সময়েই একই কলেজ থেকে দর্শন নিয়ে স্নাতক হন তাঁর এক দাদা। দাদার বইয়ের জন্যই দর্শনকেই বেছে নেন তিনি।

বয়স যখন ২০, বেদান্ত দর্শন বিষয়ে তাঁর লেখা গবেষণামূলক প্রবন্ধ প্রকাশিত হয়।

২) রাধাকৃষ্ণন ১৯০৮-এ মাদ্রাজ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর পাশ করে মাদ্রাজ প্রেসিডেন্সি কলেজে অধ্যাপনাজীবন শুরু করেন। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়, অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়, মহীশুর বিশ্ববিদ্যালয়ও তাঁর অধ্যাপনার স্বাদ পায়। অন্ধ্র বিশ্ববিদ্যালয় এবং বেনারস হিন্দু বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্যের ভূমিকাও পালন করেছেন তিনি।

৩) ছাত্রছাত্রীদের কাছে অসম্ভব জনপ্রিয় ছিলেন রাধাকৃষ্ণন। মহীশুর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপনার উদ্দেশ্যে যখন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিদায় নিচ্ছেন অধ্যাপক রাধাকৃষ্ণন, তখন তাঁর পড়ুয়ারা ফুলসজ্জিত গাড়ির ব্যবস্থা করে তাঁকে হাওড়া স্টেশন পর্যন্ত পৌঁছে দিয়েছিল।

৪) বয়স যখন ১৬, দূর সম্পর্কের আত্মীয় শিবাকামুকে বিয়ে করেন তিনি। ১৯৫৬-য় তাঁর স্ত্রীর মৃত্যু হয়।

৫) ১৯৫২-য় উপরাষ্ট্রপতি হন রাধাকৃষ্ণন। কিন্তু তার আগে, অর্থাৎ ১৯৪৬-এ ইউনেস্কোর ভারতের দূত হয়েছিলেন তিনি। ১৯৪৯-এ তিনি সোভিয়েত ইউনিয়নে ভারতের দূত হন।

দশ বছর দেশের উপরাষ্ট্রপতি থাকার পর ১৯৬২-তে ভারতের রাষ্ট্রপতি হন রাধাকৃষ্ণন। নোবেলজয়ী ব্রিটিশ দার্শনিক, বারট্রান্ড রাসেল বলেছিলেন, “ড. রাধাকৃষ্ণন ভারতের রাষ্ট্রপতি হওয়া মানে দর্শন বিষয়টার কাছে একটা আলাদা সম্মানের। আমি নিজে দার্শনিক, তাই আমি গর্বিত।”

৬) রাষ্ট্রপতি হওয়ার পর পড়ুয়াদের দাবি ছিল তাঁর জন্মদিনটা যেন বিশেষ ভাবে উদযাপন করা হয়। রাধাকৃষ্ণন বলেছিলেন, “জন্মদিন উদযাপন না করে সেই দিনটা যদি শিক্ষক দিবস হিসেবে পালন করা হয়, তা হলে আমি কৃতজ্ঞ থাকব।” সেই থেকে ৫ সেপ্টেম্বর ভারতে শিক্ষক দিবস হিসাবে পালিত হয়।

৭) ১৯৫৭-য় রাষ্ট্রপতি হিসেবে ড. রাজেন্দ্র প্রসাদের কার্যকাল শেষ হওয়ার পর, রাধাকৃষ্ণনকেই রাষ্ট্রপতি করতে চেয়েছিলেন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরু। কিন্তু মৌলানা আজাদের তীব্র বিরোধিতায় সেটা হয়নি। ড. রাজেন্দ্র প্রসাদ আরও  পাঁচ বছর রাষ্ট্রপতি থাকেন। ১৯৬২-তে নেহরুর সক্রিয়তায় রাষ্ট্রপতি হন রাধাকৃষ্ণন।

৮) তাঁর রাষ্ট্রপতির মেয়াদকালে দু’টো যুদ্ধে যেতে হয় ভারতকে। প্রথম ছিল ১৯৬২-তে চিনের সঙ্গে যুদ্ধ। রাষ্ট্রপতির আসনে বসার কয়েক মাসের মধ্যেই সেই যুদ্ধ। এর তিন বছর পরে ছিল পাকিস্তানের সঙ্গে যুদ্ধ।

১৯৬৫-এর ২৫ জুন জাতির উদ্দেশে ভাষণের সময়ে রাধাকৃষ্ণন বলেন, “পাকিস্তান ভারতকে হয় খুব দুর্বল ভেবেছে, নয়তো খুব ভীত ভেবেছে। ভারত সাধারণত অস্ত্র হাতে তোলে না, কিন্তু আমাদের মনে হয়েছে পাকিস্তানকে একটা শিক্ষা দেওয়া দরকার। পাকিস্তান যেটা ভেবেছিল, তার বিপরীতটাই হল।”

১৯৬৪ সালে নেহরুর মৃত্যু হয়, এর ঠিক দু’ বছর পরেই তাসখন্দে আকস্মিক মৃত্যু হয় তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী লালবাহাদুর শাস্ত্রীর।

৯) তাঁর জীবনীতে, বাবার সম্পর্কে রাধাকৃষ্ণনের ছেলে সর্বপল্লি গোপাল বলেছেন, “কখনও কোনো নিম্নমানের কাজ করেননি তিনি। কখনও কোনো নিম্নমানের চিন্তাও এসেছিল বলে মনে হয় না।”

১০) ‘ইন্ডিয়া টুডে’ পত্রিকায় প্রকাশিত একটি লেখায় প্রাক্তন বিদেশমন্ত্রী কে নটবর সিংহ বলেছিলেন, রাধাকৃষ্ণনের মুখে নিজের বিরোধিতা মেনে নিতে পারেননি ইন্দিরা গান্ধী। তাই ১৯৬৭-তে দ্বিতীয় বার রাষ্ট্রপতি হওয়ার সুযোগ হারান রাধাকৃষ্ণন। নটবরের কথায়, “এটা রাধাকৃষ্ণনের কাছে বিশাল আঘাত ছিল।”

১৯৭৫-এর ১৭ এপ্রিল প্রয়াত হন রাধাকৃষ্ণন।

Continue Reading

দিবস

শিক্ষক দিবসে ওঁদের কথা

Published

on

শিক্ষাগুরুদের কথা বলেছেন গণেশ হালুই, মাধবী মুখোপাধ্যায়, প্রদীপ ঘোষ ও কল্যাণ সেনবরাট ।

গণেশ হালুই

ভুলতে পারব না আঁকার শিক্ষক গফুর মিয়াঁকে

Loading videos...

গণেশ হালুই (চিত্রশিল্পী)

পূর্ববঙ্গের ময়মনসিংহ জেলার জামালপুর সাবডিভিশনের একটি সরকারি স্কুল। সেই স্কুলের আঁকার ক্লাস নিচ্ছেন গফুর মিয়াঁ। প্রথমেই ব্ল্যাকবোর্ডে আঁকলেন একটি ক্রস। উনি দেখাতেন ওই ক্রস থেকে হাত-পা-শরীর সব আঁকা যায়। উল্লম্ব রেখাটি মানবশরীরের মেরুদণ্ড। আমি যখন ক্লাস ফাইভে পড়ি, সেই তখনকার কথা বলছি। এই মাস্টারমশাইয়ের কথা আমি কোনও দিন ভুলতে পারব না। আমার জন্ম ১৯৩৬ সালে। আজও মনে মনে দেখতে পাই, আঁকার সঙ্গে আমাদের রঙিন চক দেওয়া হত। আর চালিয়ে দেওয়া হত গান কিংবা কবিতা। মিউজিক থেমে গেলে আমাদের আঁকা থামাতে হত। পরেও আমি এ রকম কোথাও দেখিনি।

ওই স্কুলের আরও দুই শিক্ষকের কথা মনে আছে। ইতিহাস পড়াতেন খলিমুদ্দিন ভুঁইয়া। পুরোনো স্কুলবাড়ির সিঁড়ি ধরে উঠে আসতেন ইতিহাসের কোনো ঘটনা বলতে বলতে। আর ইংরেজি পড়াতেন নায়েব আলি স্যার। এত সুন্দর টেন্‌স পড়িয়েছিলেন যে আমার মনে হয় সেই থেকে আমি ইংরেজি লিখতে শিখেছি। ১৯৫০-এ কলকাতা চলে আসি। কলকাতা আর্ট কলেজে ভর্তি হলাম। অনেক শিক্ষককেই কাছে পেয়েছি। অজিত গুপ্তর কথা খুব মনে পড়ে। সেই দিনগুলোই ভালো ছিল। ওই মাস্টারমশাইরা কোনো দিন নিজেদের আদর্শ থেকে সরে আসেননি।

মাধবী মুখোপাধ্যায়

পথ দেখিয়েছিলেন শিশিরকুমার ভাদুড়িমশাই

মাধবী মুখোপাধ্যায় (অভিনেত্রী)

যাঁর কাছে যা কিছু শিখি তিনিই আমার কাছে গুরু। এই যে আমার বিস্তৃতি, আমি প্রতিষ্ঠিত হলাম, মঞ্চ চিনলাম, সে সবের পিছনে যিনি ছিলেন তিনি শিশিরকুমার ভাদুড়িমশাই। একেবারে হাত ধরে, ক’পা ফেলতে হবে এ সব গুণে গুনে এগিয়ে যাওয়ার পথ তিনি দেখিয়েছিলেন। আমার তখন ৫ কি ৬ বছর বয়স। ভাদুড়িমশাইয়ের হাত ধরে মঞ্চ দেখলাম। ওনার হাত ধরে আমি মিনার্ভা থিয়েটারে এসেছিলাম। মঞ্চের আলো আমাকে অভিভূত করেছিল। সেই অর্থে অভিনয়জগতে আমার গুরু শিশির ভাদুড়ি।

এর পরে যাঁকে পেলাম তিনি ছবি বিশ্বাস। অভিনয় জীবনে যথার্থ শিক্ষা যে কত প্রয়োজন তা ওই ভাদুড়িমশাই আর ছবি বিশ্বাস না থাকলে শিখতে পারতাম না। মঞ্চশিক্ষা শিল্পী তৈরি করে। সে ব্যবস্থা আর নেই। সেই অর্থে গুরু-শিষ্যের সম্পর্ক আর নেই। আমার হাতেখড়ি তাঁদের হাতে। মঞ্চ আমার কাছ মন্দির আর দেবতা সেই সব গুরু।

এ ছাড়াও অহীন্দ্র চৌধুরী, নির্মলেন্দু  লাহিড়ী, মহেন্দ্র গুপ্ত – আমার কাছে পরম শ্রদ্ধেয়। আমি জানি না শিক্ষক দিবসে গুরুর কথা জানতে চাইলে কত জন কী কথা জানাবেন। হরনাথ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সেই সব দিদিমণির কথা খুব মনে পড়ে। আমি নাটক করতাম বলে ঠিকমতো স্কুলে যেতে পারতাম না। দিদিমণিরা আমাকে ক্ষমাসুন্দর চোখে দেখতেন। স্কুলের বাচ্চাদের দেখলে সে সব কথা বড়ো মনে পড়ে।

প্রদীপ ঘোষ

কানুদা শিখিয়েছিলেন সূর্যোদয়ের আগে অরুণোদয় হয়

প্রদীপ ঘোষ (আবৃত্তিকার)

আমার জীবনে প্রথাগত যে শিক্ষাব্যবস্থা যেমন বিদ্যালয়, মহাবিদ্যালয়, বিশ্ববিদ্যালয় – তা ছিল বাড়ি থেকে নির্ধারিত করে দেওয়া। কিন্তু আমার পছন্দের জায়গা ছিল গোটা বিশ্ব। ম্যাক্সিম গোর্কির ওই পৃথিবীর পাঠশালা বইগুলি পড়ে আমি নতুন করে বিদ্যালয়কে আবিষ্কার করি, যেখানে পুথিগত বিদ্যা থেকে প্রত্যক্ষ অনুভূত এবং অভিজ্ঞতালব্ধ বিদ্যায়তন যা সারা বিশ্বে ছড়িয়ে আছে। যাঁরা আমাকে ওই বিষয়ে শিক্ষালাভ করতে শিখিয়েছিলেন, সেই সব গুরুজনকে আজ শিক্ষক দিবসে প্রণাম জানাই।

খড়গপুর সিলভার জুবিলি হাইস্কুল – আমার জীবনের প্রথম স্কুল। এক বছর পড়েছিলাম। ওই সময়ে আমার জীবনে এক জন মানুষের প্রভাব কোনো দিন ভোলার নয়। কানুদা, গান্ধী আশ্রমে থাকতেন। আমাদের বাড়িতে দুধ দিতে আসতেন। তিনি আমাকে প্রকৃতি চিনিয়েছিলেন। তিনি শিখিয়েছিলেন সূর্যোদয়ের আগে অরুণোদয় হয়। তখনও সূর্য ওঠে না, ওঠার প্রস্তাবনা বা আভাসমাত্র। উনি আমাকে সেটা না দেখালে আমি তা কোনো দিন জানতে পারতাম না। আমরা যেখানে থাকতাম, সেখানে শাল-মহুয়ার বন ছিল। সেই বনে নানা রঙের পাখি ছিল, ছোটো ছোটো প্রাণী যেমন খরগোশ, ইঁদুর, সাপ, বেজি তিনি ধরে ধরে চিনিয়েছিলেন। এখন এই বয়সেও আমি শিক্ষার উপাদান পৃথিবীর বুক থেকে আহরণ করি।

একটু বড়ো হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আমার চোখের পাওয়ার বেড়ে চলেছিল খুব দ্রুত। সাড়ে এগারো পাওয়ার হওয়ায় ডাক্তার বই পড়া বন্ধ করে দিলেন। স্কুল ফাইনালের আগেই এই অবস্থা হওয়ায় বাবা এক প্রাজ্ঞ মানুষকে বাড়িতে আনলেন। তিনি আমাকে সব বিষয় পড়ে শোনাতেন। এটাই আমার পরীক্ষা দেওয়ার রীতি হল। তিনি শচীন্দ্রচন্দ্র মজুমদারমশাই, যিনি রবীন্দ্রনাথ ও স্বামী অভেদানন্দ মহারাজের সান্নিধ্য পেয়েছেন। স্কুল থেকে ফিরে আমি ক্লান্ত হয়ে ঘুমিয়ে পড়তাম। আমি ঘুম থেকে উঠে দেখতাম তিনি আমার মুখের দিকে স্নেহশীল চোখে তাকিয়ে আছেন। আমাকে পড়া শোনানো শুরু করতেন। এঁদের আজও ভুলতে পারিনি।

আরও একজনকে পেয়েছিলাম। তিনি প্রাথমিক বিভাগে লাইব্রেরি ও বাগান দেখাশোনা করতেন। তাঁর নাম জগবন্ধু সীট। আমার চোখের অবস্থা খারাপ বলে আমাকে বাগান করানো শিখিয়েছিলেন। তিনি বলেছিলেন বাগান তো করেন মালি, তুমি কী করবে? তুমি আমার সঙ্গে ১-২টি গাছ সৃষ্টি করবে। বীজ মাটিতে পোঁতা হল, জল দিলে, সার দিলে আর দেখবে যখন অঙ্কুরিত হবে তখন একে রক্ষণাবেক্ষণ করবে। যখন এটাতে ফুল আসবে তখন জানবে এ গাছ তোমার সৃষ্টি। তুমি ভালোবাসা দিয়ে একে সৃষ্টি করলে। ওই সব শিক্ষকের কথা আজ অনুরণিত হয়, মনে মনে কথা বলি। প্রণাম জানাই।

কল্যাণ সেন বরাট

শেখার আলো জ্বালিয়ে তুললেন সলিলদাই

কল্যাণ সেনবরাট (সংগীত পরিচালক)

শিশুকালে শিক্ষা যে হেতু বাড়িতেই হয়, সেই অর্থে বাবা-মাই প্রথম শিক্ষাগুরু। বাবা-মায়ে্র উৎসাহ ছাড়া কিছুই হয়ে উঠত না। তার পরে তো সুর শুনে শুনে গান শেখা। হেমাঙ্গ বিশ্বাসের কাছে লোকসঙ্গীত শেখা। সেই দিক দিয়ে ভাবলে সলিল চৌধুরীর কাছে গিয়ে খুবই উপকৃত হয়েছিলাম। আজকের এই শিক্ষক দিবসে কাকে ছেড়ে কার নাম করব ভেবে পাচ্ছি না।

ধনঞ্জয় ভট্টাচার্য আমার সম্পর্কে জামাইবাবু। ওঁর সান্নিধ্য আমাকে খুব উৎসাহিত করত। একলব্য হিসেবে আমি ভীষণ ভাবে একনিষ্ঠ ছিলাম। ওনাকে অনুসরণ করতাম বলে আমার বহু গানে ওঁর প্রভাব পড়েছে। তবে আমাদের প্রধান গুরু হল কান। শ্রবণ একটা বড়ো মাধ্যম।

সলিলদার কথায় ফিরে আসি। তখন গানবাজনা শুরু করেছি। নিজেকে মনে করছি অনেক কিছু শিখে ফেলেছি। প্রথম ধাক্কাটা খেলাম সলিল চৌধুরীর কাছে গিয়ে। ছিলাম কুয়োর ব্যাঙ, গিয়ে পড়লাম সাগরে। শিক্ষা প্রচুর বাকি। একটা জিনিস জানতে গিয়ে বহু অজানা জিনিসের মুখ এসে পড়ছি। শেখার আলো জ্বালিয়ে তুললেন সলিলদাই। এ কৃতিত্ব সলিলদার।

তবে হেমাঙ্গদার কাছে সব থেকে বড়ো শিক্ষা হল কী ভাবে একজন শিল্পী-সংগঠক হওয়া যায়। হেমাঙ্গদা ধরে ধরে শিখিয়েছিলেন। তা না হলে ৩৭-৩৮ বছর ধরে ‘ক্যালকাটা কয়্যার’ চালাচ্ছি কেমন করে। মনে পড়ছে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সুধাদিদিমণির কথা। বিদ্যালয়ের সেই সব মাস্টারমশাইয়ের কথা যাঁরা সত্যিকারের মানুষ করার চেষ্টায় ছিলেন। তাঁদের স্মরণ না করে উপায় নেই। খুব ছেলেবেলার একটা কথা মনে পড়ছে। তখন বয়স পাঁচ কি ছয়। আমাদের দুই ভাইকে বাড়িতে পড়াতে আসতেন সুন্দর চেহারার এক মাস্টারমশাই। তিনি তখন সবে কলেজে পড়েন। আমাদের মাঠে ক্রিকেট খেলাতে নিয়ে যেতেন। পরে পড়াতে বসাতেন। এই সব মানুষ চিরকাল সম্মানের আসন আলো করে রাখেন। এঁদের ভুলি কেমন করে?  

অনুলিখন: পাপিয়া মিত্র  

Continue Reading
Advertisement
Advertisement
বাংলাদেশ8 hours ago

Bangladesh Covid Vacination: টিকা ট্রায়ালে চিন অর্থ চাওয়ায় রাজি হয়নি বাংলাদেশ

বাংলাদেশ9 hours ago

Bangladesh-China Relation: চিনের এমন আচরণ আশা করেনি বাংলাদেশ

দেশ11 hours ago

G-7 Summit: পর্তুগালের পর ইংল্যান্ড যাচ্ছেন না প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

বিজ্ঞান12 hours ago

জানেন কি, কোভিড থেকে সুস্থ হওয়ার পর অ্যান্টিবডিগুলি কত দিন পর্যন্ত রক্তে থেকে যায়

রাজ্য12 hours ago

Bengal Corona Update: কুড়ি হাজারের গণ্ডি পেরোল দৈনিক সংক্রমণ, প্রচুর টেস্টর ফলে সংক্রমণের হার ৩০ শতাংশের নীচে

coronavirus test
দেশ13 hours ago

আক্রান্তদের ফের আরটি-পিসিআর নয়, কোভিড টেস্টে নয়া নির্দেশ কেন্দ্রের

বিনোদন14 hours ago

‘রাধে’র বক্স অফিস কালেশন হতো ‘জিরো’, হল মালিকদের কাছে ক্ষমাপ্রার্থী সলমন খান

দেশ14 hours ago

Vaccination Drive: জোগান নেই, মহারাষ্ট্রে বন্ধ হয়ে গেল কমবয়সিদের টিকাকরণ

বিজ্ঞান3 days ago

কোভিডের ভাইরাস বায়ুবাহিত, ৬ ফুট পর্যন্ত ছড়াতে পারে, দাবি শীর্ষ মার্কিন সংস্থার

রাজ্য3 days ago

Bengal Corona Update: নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় একই, রাজ্যে বাড়ল সুস্থতা

ক্রিকেট2 days ago

বিরাট-রোহিত ছাড়াই এক নতুন ভারতীয় দলকে জুলাইয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলতে দেখা যাবে!

Madhyamik examination west bengal
শিক্ষা ও কেরিয়ার16 hours ago

Madhyamik 2021: আপাতত সম্ভব নয় মাধ্যমিক পরীক্ষা, সরকারের সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় পর্ষদ

প্রবন্ধ3 days ago

এমনই বৈশাখের একটি দিনে মুখোমুখি হয়েছিলেন রবীন্দ্রনাথ ও শ্রীরামকৃষ্ণ

দেশ24 hours ago

Covid Crisis: অক্সিজেনের অভাবে ১১ কোভিডরোগীর মৃত্যু অন্ধ্রপ্রদেশের হাসপাতালে

দেশ23 hours ago

Covid Crisis: সংক্রমণের ধার কমাতে একটি বিশেষ ওষুধে ছাড়পত্র দিল গোয়া, খেতে হবে সবাইকে

দেশ3 days ago

ভ্যাকসিন এবং কোভিডের চিকিৎসা সরঞ্জামে ট্যাক্স কেন? মমতার চিঠির পর ১৬টা টুইট কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীর

ভিডিও

কেনাকাটা

কেনাকাটা2 months ago

বাজেট কম? তা হলে ৮ হাজার টাকার নীচে এই ৫টি স্মার্টফোন দেখতে পারেন

আট হাজার টাকার মধ্যেই দেখে নিতে পারেন দুর্দান্ত কিছু ফিচারের স্মার্টফোনগুলি।

কেনাকাটা3 months ago

সরস্বতী পুজোর পোশাক, ছোটোদের জন্য কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সরস্বতী পুজোয় প্রায় সব ছোটো ছেলেমেয়েই হলুদ লাল ও অন্যান্য রঙের শাড়ি, পাঞ্জাবিতে সেজে ওঠে। তাই ছোটোদের জন্য...

কেনাকাটা3 months ago

সরস্বতী পুজো স্পেশাল হলুদ শাড়ির নতুন কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সামনেই সরস্বতী পুজো। এই দিন বয়স নির্বিশেষে সবাই হলুদ রঙের পোশাকের প্রতি বেশি আকর্ষিত হয়। তাই হলুদ রঙের...

কেনাকাটা4 months ago

বাসন্তী রঙের পোশাক খুঁজছেন?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: সামনেই আসছে সরস্বতী পুজো। সেই দিন হলুদ বা বাসন্তী রঙের পোশাক পরার একটা চল রয়েছে অনেকের মধ্যেই। ওই...

কেনাকাটা4 months ago

ঘরদোরের মেকওভার করতে চান? এগুলি খুবই উপযুক্ত

খবরঅনলাইন ডেস্ক: ঘরদোর সব একঘেয়ে লাগছে? মেকওভার করুন সাধ্যের মধ্যে। নাগালের মধ্যে থাকা কয়েকটি আইটেম রইল অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন লেখার...

কেনাকাটা4 months ago

সিলিকন প্রোডাক্ট রোজের ব্যবহারের জন্য খুবই সুবিধেজনক

খবরঅনলাইন ডেস্ক: নিত্যপ্রয়োজনীয় বিভিন্ন সামগ্রী এখন সিলিকনের। এগুলির ব্যবহার যেমন সুবিধের তেমনই পরিষ্কার করাও সহজ। তেমনই কয়েকটি কাজের সামগ্রীর খোঁজ...

কেনাকাটা4 months ago

আরও কয়েকটি ব্র্যান্ডেড মেকআপ সামগ্রী ৯৯ টাকার মধ্যে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: আজ রইল আরও কয়েকটি ব্র্যান্ডেড মেকআপ সামগ্রী ৯৯ টাকার মধ্যে অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন লেখার সময় যে দাম ছিল...

কেনাকাটা4 months ago

রান্নাঘরের এই সামগ্রীগুলি কি আপনার সংগ্রহে আছে?

খবরঅনলাইন ডেস্ক: রান্নাঘরে বাসনপত্রের এমন অনেক সুবিধেজনক কালেকশন আছে যেগুলি থাকলে কাজ অনেক সহজ হয়ে যেতে পারে। এমনকি দেখতেও সুন্দর।...

কেনাকাটা4 months ago

৫০% পর্যন্ত ছাড় রয়েছে এই প্যান্ট্রি আইটেমগুলিতে

খবরঅনলাইন ডেস্ক: দৈনন্দিন জীবনের নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসগুলির মধ্যে বেশ কিছু এখন পাওয়া যাচ্ছে প্রায় ৫০% বা তার বেশি ছাড়ে। তার মধ্যে...

কেনাকাটা4 months ago

ঘরের জন্য কয়েকটি খুবই প্রয়োজনীয় সামগ্রী

খবরঅনলাইন ডেস্ক: নিত্যদিনের প্রয়োজনীয় ও সুবিধাজনক বেশ কয়েকটি সামগ্রীর খোঁজ রইল অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদনটি লেখার সময় যে দাম ছিল তা-ই...

নজরে