শেষ হওয়ার মুখে আরও একটা বছর। ২০১৬। ভাল মন্দ মিশিয়ে কেটে গেল। রোজ রোজ কতো ঘটনাই তো ঘটে, খবরের শিরোনামে আসে কিছু, কিছু যায় হারিয়ে। বছর শেষের দিনগুলোতে একবার চোখ বোলানো যাক এ বছর দেশ জুড়ে সাড়া ফেলা খবরগুলোয়।

assembly-election

১) পাঁচ রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন

এপ্রিল মে মাস জুড়ে দেশের পাঁচটি রাজ্যে হয়ে গেল বিধানসভা নির্বাচন। পশ্চিমবঙ্গ এবং তামিলনাড়ুতে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে, ক্ষমতায় রয়ে গেল মমতা এবং জয়ললিতার সরকার। অসমে কংগ্রেসকে হারিয়ে প্রথমবারের জন্য ক্ষমতায় এল বিজেপি সরকার। অন্যদিকে কেরলে, বামেদের নেতৃত্বে ফের তৈরি হল জোট সরকার। পুদুচেরিতে সংখ্যা গরিষ্ঠতা পেল ডিএমকে-কংগ্রেসের জোট।

puttingal-tragedy

২) কেরলের মন্দিরে আতশ বাজির বিস্ফোরণে নিহত শতাধিক

কেরলের কোল্লাম শহরে পুত্তিঙ্গাল মন্দিরে আতশ বাজির বিস্ফোরণে বলি হল শতাধিক প্রাণ। সরকারি ভাবে মৃতের সংখ্যা ১১১। গুরুতর আহত হন আরও সাড়ে তিনশো দর্শনার্থী।  ঘটনার জেরে সূর্যাস্তের পর রাজ্যের সব ধর্মীয় স্থানে শব্দবাজির ব্যবহার নিষিদ্ধ করলো কেরালা হাই কোর্ট।

kashmir-unrest

৩) ভূস্বর্গ ‘ভয়ঙ্কর’

৮ জুলাই নিরাপত্তাবাহিনীর সঙ্গে লড়াইয়ে প্রাণ হারান হিজবুল নেতা বুরহান ওয়ানি। বুরহানের মৃত্যুতে অশান্ত হয়ে উঠল কাশ্মীর উপত্যকা। রক্ত ঝরল দফায় দফায়। চলে গেল ৯০ টি তাজা প্রাণ। টানা ১০০ দিনের কারফিউ চলার পর পরিস্থিতি কিছুটা সামাল দিয়ে জীবনের স্বাভাবিক ছন্দে ফিরছে ভূস্বর্গ।

sharmila-chanu

৪) ১৬ বছরের অনশন ভেঙে মূল ধারার রাজনীতিতে শর্মিলা

টানা ১৬ বছর লড়াই করেছেন মনিপুরে সেনাবাহিনীর বিশেষ অধিকার আইন(আফস্পা)-এর বিরুদ্ধে। অনশনের শুরু ২০০০ সালের নভেম্বরে।  ১৬ বছর পর, ২০১৬-র ৯ আগস্ট অনশন ভেঙে মূল ধারার রাজনীতিতে প্রবেশের সিদ্ধান্ত নিলেন শর্মিলা ইরম চানু। মনিপুরের বিধানসভা নির্বাচনে প্রার্থী হওয়ার ইচ্ছেও প্রকাশ করেন চানু।

uri-attack

৫) উরি হামলা এবং সার্জিকাল স্ট্রাইক

পরপর বেশ কিছু ঘটনায় প্রতিবেশী দেশের সঙ্গে ভারতের সম্পর্কের অবনতি হল। ১৮ সেপ্টেম্বর কাশ্মীরের উরিতে ভারতীয় সেনা বাহিনীর বেসক্যাম্পের ওপর চলল জঙ্গি হামলা, অভিযোগের আঙুল উঠল পাকিস্তানের জঙ্গি সংগঠন ‘জইশ-ই-মহম্মদ’-এর দিকে।  তারপর ভারতের পক্ষ থেকে পাল্টা হামলার (সার্জিকাল স্ট্রাইক) দাবি। সীমান্তে চলল যুদ্ধের প্রস্তুতি। শেষমেশ যুদ্ধ না লাগলেও চরমে পৌঁছল দু’দেশের কূটনৈতিক তিক্ততা।

demonetisation

৬) কেন্দ্রের বিমুদ্রাকরণ (ডিমনিটাইজেশন) নীতি

দেশ জুড়ে সবচেয়ে আলোড়ন তৈরি করা ঘটনাটি ঘটল নভেম্বরের আট তারিখ। সন্ধ্যের পর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ঘোষণা করলেন, কালো টাকা দূর করতে মাঝরাত থেকেই বাতিল হচ্ছে ৫০০ এবং ১০০০ টাকার সমস্ত পুরনো নোট। এক ধাক্কায় ভারতের অর্থনীতির  ৮৬  শতাংশ বাতিল হয়ে গেল। পরিবর্তে বাজারে এলো নতুন ৫০০ এবং ২০০০ এর নোট। ব্যাঙ্ক থেকে টাকা তোলা এবং পুরনো নোট জমা দেওয়ার নিয়ম ঘন ঘন পরিবর্তন করলো ভারতীয় রিজার্ভ ব্যাঙ্ক। কেন্দ্রের নোট বাতিলের নীতির বিরুদ্ধে সরব হলেন বিরোধীরা। কখনও এটিএমের লাইনে দাঁড়িয়ে, আবার কখনও নগদের অভাবে বিনা চিকিৎসায় মৃত্যু হল ৯০ জনের।

haji-ali

৭) হাজি আলি দরগায় মহিলাদের প্রবেশাধিকার

আগস্টের শেষ সপ্তাহে মুবইয়ের বিখ্যাত হাজি আলি দরগার গর্ভ গৃহে মহিলাদের প্রবেশাধিকার দিল বম্বে হাই কোর্ট। অক্টোবরের শেষে কোর্টের রায় মেনে দরগায় মহিলাদের প্রবেশের জন্য প্রয়োজনীয় পরিকাঠামো তৈরি করতে সুপ্রিম কোর্টের কাছে হলফনামা দিয়ে অতিরিক্ত ৪ সপ্তাহ সময় চেয়ে নিল দরগা কর্তৃপক্ষ। অবশেষে ২৯ নভেম্বর, পাঁচ বছর পর আবার দরগায় প্রবেশ করলেন মহিলারা। পঞ্চাদশ শতকে তৈরি এই দরগায় ২০১২ সালের মার্চ থেকে জুন মাসের মাঝামাঝি সময়ে মহিলাদের প্রবেশ বন্ধ করে দিয়েছিল দরগা কর্তৃপক্ষ।

jayalalita

৮) জয়ললিতার মৃত্যু, একটি যুগের অবসান

দীর্ঘ দিন অসুস্থ থাকার পর ৫ ডিসেম্বর মৃত্যু হল তামিলনাড়ুর মুখ্যমন্ত্রী জয়ললিতার। ফুসফুসের সংক্রমণ নিয়ে ২২ সেপ্টেম্বর চেন্নাইয়ের অ্যাপোলো হাসপাতালে ভর্তি হন এআইডিএমকে নেত্রী। এবছর মে মাসেই বিধানসভা নির্বাচনে জয়ী হয়ে ধরে রাখতে পেরেছিলেন মুখ্যমন্ত্রীর চেয়ারটি। আম্মার মৃত্যুর পর রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছেন পনীরসেলভম। এআইডিএমকে পরিচালনার দায়িত্ব পেলেন জয়ললিতা ঘনিষ্ঠ শশীকলা।

manipur-unrest

৯) অশান্ত উত্তর-পূর্ব

উত্তর-পূর্ব ভারতে সশস্ত্র জঙ্গি আন্দোলন নতুন করে গতি পেয়েছে ২০১৬-য়। বছরের নানা সময় সেনাবাহিনীর ওপর সশস্ত্র হামলা চালিয়েছে জঙ্গিরা। বছরের শেষ দু’মাসে তা আরও বেড়েছে। কখনো মণিপুর, কখনো অরুণাচল প্রদেশ, কখনো মেঘালয়। উত্তর-পূর্ব ভারতের বিভিন্ন রাজ্যের জঙ্গি গোষ্ঠী নিয়ে গঠিত যৌথ মোর্চা ইউএনএলএফডব্লিউ অল্প সময়ের ব্যবধানে বেশ কয়েকবার হামলা চালাল নিরাপত্তা বাহিনীর ওপর। সংঘর্ষে প্রাণ হারালেন ভারতীয় সেনা বাহিনীর জওয়ান ও বেশ কিছু জঙ্গি। পাশাপাশি মণিপুরে পরিস্থিতি আরও খারাপ হল নাগা-অনাগা সংঘাতে। হিংসার জেরে ব্যহত হল অন্য রাজ্যের সঙ্গে যোগাযোগ ব্যবস্থা।

kanhaiya

১০) রোহিত, কানহাইয়া, নজিব এবং অসহিষ্ণুতা

বছরের শুরুতেই হায়দেরাবাদ বিশ্ববিদ্যালয়ের দলিত ছাত্র রোহিত ভেমুলার আত্মহত্যা ঘিরে তোলপাড় হল দেশ। তারপর একে একে কানহাইয়া কুমার, উমর খলিদরা এলেন শিরোনামে। জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের বাম ছাত্রনেতা কানহাইয়া গ্রেফতার হলেন। আফজল গুরুর ফাঁসির বিরুদ্ধে বক্তৃতা দেওয়ায় দেশদ্রোহিতার দায়ে গ্রেফতার হন কানহাইয়া। অক্টোবরের মাঝামাঝি আবারও অশান্ত জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়। দক্ষিণপন্থী ছাত্র সংগঠনের সঙ্গে বচসার জেরে নিখোঁজ হলেন ছাত্র নজিব আহমেদ।

 

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here