কর্নাটকের বিধায়ক-বিদ্রোহের পেছনে অমিত শাহ, ইয়েদিউরাপ্পার স্বীকারোক্তিতে চাঞ্চল্য

0
Amit Shah

ওয়েবডেস্ক: বিরোধীদের অভিযোগেই যেন সিলমোহর পড়ে গেল। কর্নাটকে কংগ্রেস এবং জেডিএস বিধায়কদের বিদ্রোহের নেপথ্যে রয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। গোপন অডিও রেকর্ডে এমনই কথা ফাঁস করেছেন মুখ্যমন্ত্রী বিএস ইয়েদিউরাপ্পা।

রাজ্যের বিজেপি কর্মীদের সঙ্গে সম্প্রতি একটি বৈঠক করেন ইয়েদুরাপ্পা। সেখানে তাঁর বক্তৃতার একটি অডিয়ো রেকর্ডিং সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়েছে। তাতে বিধায়ক ভাঙানো থেকে তাঁদের নিরাপদে সরিয়ে রাখার যাবতীয় আয়োজন অমিতই করেছিলেন বলে মন্তব্য করেন তিনি।

এ নিয়ে সংবাদমাধ্যম প্রশ্ন করলে ব্যাপারটাকে কার্যত মেনে নিয়েছেন তিনি। বলেছেন, কর্মীদের উজ্জীবিত করার স্বার্থেই এটা করা হয়েছে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়া ওই অডিও রেকর্ডিংয়ে ইয়েদিউরাপ্পাকে বলতে সোনা যায় যে কংগ্রেস এবং জেডিএস থেকে যে ১৭ জনকে ভাঙিয়ে আনা হয়েছে, তাঁদের সঙ্গে যেন ভালো ব্যবহার করা হয়।

আরও পড়ুন বিজেপির উদ্দেশে ‘রাষ্ট্রপতি’কে পকেটে রাখার কটাক্ষ শিবসেনার

একা হাতে শাহই গোটা পরিস্থিতি সামলেছেন বলে দলীয় কর্মীদের জানান ইয়েদুরাপ্পা। তিনি বলেন, “দলের সর্বভারতীয় সভাপতি সব কিছু জানতেন। তিনিই সব কিছুর তদারকি এবং সমস্ত ব্যবস্থাপনা করেন। ওই ১৭ জন বিধায়ক যে দু’-তিন মাস ধরে মুম্বইয়ের হোটেলে ছিলেন, নিজের নির্বাচনী কেন্দ্রে যেতে পারেননি, এমনকি পরিবারের সঙ্গে দেখা পর্যন্ত করতে পারেননি, এর পিছনে কী সিদ্ধান্ত কাজ করেছিল তা জানেন তো আপনারা?’’

ইয়েদুরাপ্পার কথায়, ‘‘তৎকালীন সরকারের কার্যকাল শেষ না হওয়া পর্যন্ত ওঁদের তো বিরোধী হয়ে বসে থাকার কথা ছিল। তা সত্ত্বেও উল্লেখযোগ্য ভাবে আমাদের সাহায্য করেন ওঁরা। আমাদের শাসকের আসনে বসতে সাহায্য করেন। নিজেদের বিধায়ক পদ থেকে ইস্তফা দিয়ে সুপ্রিম কোর্ট পর্যন্ত যান। তাই পরিস্থিতি যাই হোক না কেন, ওঁদের পাশে থাকতে হবে আমাদের।’’

উল্লেখ্য, ২০১৮-এ কর্নাটক বিধানসভা নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেলেও, নিরঙ্কুশ জয় পায়নি বিজেপি। সেই সুযোগে জেডিএস-এর সঙ্গে হাত মিলিয়ে রাজ্যে জোট সরকার গড়ে কংগ্রেস। মুখ্যমন্ত্রী হন জেডিএসের এইচডি কুমারস্বামী।

কিন্তু এ বছরের শুরুতে এই জোটের বেশ কিছু বিধায়ক বিদ্রোহ ঘোষণা করেন। স্পিকারের কাছে ইস্তফা দেন তাঁরা। পরে তাদের নিজেদের দলে টেনে কর্নাটকে সরকার গঠন করে বিজেপি। মুখ্যমন্ত্রী করা হয় ইয়েদুরাপ্পাকে।

এই ঘটনার কথা জানাজানি হওয়ার পর অস্বস্তি বেড়েছে বিজেপি শিবিরে। তাদের তরফে কোনো সাফাই দেওয়া হয়নি। আর সেই সুযোগে কর্নাটক সরকারের প্রতি আবার তোপ দাগতে শুরু করেছে কংগ্রেস।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.