Yogi Adityanath
যোগী আদিত্যনাথ। ফাইল ছবি।

খবর অনলাইন ডেস্ক: উত্তরপ্রদেশের হাথরসে বছর কুড়ির দলিত তরুণীকে ধর্ষণ এবং খুনের ঘটনায় সিবিআই তদন্তের সুপারিশ করল যোগী আদিত্যনাথ সরকার।

ওয়াকিবহাল মহলের মতে, হাথরসকাণ্ডে দেশজুড়ে প্রতিবাদের জেরে কার্যত নতিস্বীকার করতে বাধ্য হল যোগী সরকার। এই ঘটনায় প্রথম থেকেই তথ্য আড়াল করার অভিযোগ উঠেছে উত্তরপ্রদেশের পুলিশ-প্রশাসনের বিরুদ্ধে।

শনিবার রাতে উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর দফতর টুইটারে জানায়, “মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ হাথরস মামলায় সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন”।

এর আগে বহুজন সমাজ পার্টি নেত্রী মায়াবতী এই ঘটনায় সিবিআই তদন্তের দাবি জানিয়েছিলেন। গত বৃহস্পতিবার নির্যাতিতার বাড়িতে যাওয়ার পথে পুলিশের কাছে বাধা পান কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী। এ দিন রাহুল, প্রিয়ঙ্কা-সহ পাঁচ কংগ্রেস নেতার একটি প্রতিনিধি দল নির্যাতিতার বাড়িতে যায়। নির্যাতিতার বাড়িতে গিয়ে পরিজনদের সঙ্গে কথা বলে কংগ্রেস নেতৃত্ব এলাকা ছাড়ার কিছুক্ষণ পরেই সিবিআই তদন্ত নিয়ে যোগী সরকারের সুপারিশের কথা জানা যায়।

তবে রাজ্যের তরফে সিবিআই তদন্তের সুপারিশের পর একটি মহল প্রশ্ন তুলছে, “এত দিন ধরে তদন্তের নামে প্রহসন চলেছে। তদন্ত তো হয়নি, উল্টে নির্যাতিতার মৃত্যুর পরেও তাঁর পরিবারের উপর নির্যাতন চালিয়েছে পুলিশ-প্রশাসন। তা হলে কি পুরো ঘটনা থেকে হাত ধুয়ে ফেলতে চাইছে যোগী সরকার”?

প্রসঙ্গত, হাথরসের নির্যাতিত মৃত তরুণীর পরিবারের সঙ্গে গত বৃহস্পতিবার কথা বলেন যোগী। ‘অপরাধীদের বিরুদ্ধে কঠোরতম শাস্তি এবং সমস্ত রকমের সহযোগিতা’র কথা জানান তিনি। জানা যায়, নির্যাতিতার পরিবারকে ২৫ লক্ষ টাকার আর্থিক ‘ক্ষতিপূরণ’, একটি বাড়ি এবং পরিবারের একজন সদস্যকে সরকারি চাকরির প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়।

আরও পড়তে পারেন: ‘ইংরাজি পড়তে পারেন না, ময়নাতদন্ত রিপোর্টে কী বুঝবেন’? হাথরসে নির্যাতিতার পরিবারকে বলেছিল পুলিশ

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন