deepotsav
দীপোৎসবে রাম-সীতার ভূমিকায় অভিনয়কারীদের আরতি করছেন যোগী। ছবি সৌজন্যে নিউজ১৮.কম।

ওয়েবডেস্ক: কর্নাটক উপনির্বাচনে কংগ্রেস-জেডিএস জোটের কাছে বড়ো রকম ধাক্কা খাওয়ার পর ২০১৯-এর নির্বাচনী বৈতরণী পার হওয়ার জন্য বিজেপির এখন তথাকথিত হিন্দুত্বয় আশ্রয় নেওয়া ছাড়া আর বোধহয় কোনো উপায় নেই। আর সেই অ্যাজেন্ডাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে সব চেয়ে সক্রিয় উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। এখন তাঁর অন্যতম প্রধান কর্মসূচি ইতিহাস মুছে দিয়ে বিভিন্ন জায়গার নতুন নামকরণ করা। তাই প্রথমে দীনদয়াল উপাধ্যায় নগর, তার পর প্রয়াগরাজ, এ বার শ্রী অযোধ্যা।

আরও পড়ুন অযোধ্যায় রামের মূর্তি তৈরির সিদ্ধান্তের বিরোধিতা স্বয়ং প্রধান পুরোহিতের

মুঘলসরাই আগেই হয়েছে দীনদয়াল উপাধ্যায় নগর। এর পর ইলাহাবাদের নাম পালটে দিয়ে করা হয়েছে প্রয়াগরাজ। এ বার পালা ফৈজাবাদ জেলার। মুখ্যমন্ত্রী কথা দিয়েছেন এই জেলার নাম পালটে হবে শ্রী অযোধ্যা। দীপাবলির প্রাক্কালে মঙ্গলবার অযোধ্যায় দীপোৎসব উপলক্ষ্যে আয়োজিত এক জনসমাবেশে এই ঘোষণা করেন যোগী আদিত্যনাথ। সমাবেশে হিন্দু সাধুদের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো। তাঁরা সমস্বরে চিৎকার করতে থাকেন “মন্দির কা নির্মাণ করো’। তবে মন্দির তৈরি করার ব্যাপারে কোনো উচ্চবাচ্য করেননি যোগী।

সমাবেশে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, অযোধ্যা যে জেলার অন্তর্গত সেই ফৈজাবাদ জেলা তার আসল নামে পরিচিত হবে। সেই নাম হল শ্রী অযোধ্যা। এ ছাড়াও অযোধ্যায় রামের নামে একটি বিমানবন্দর এবং দশরথের নামে একটি হাসপাতাল গড়ার প্রতিশ্রুতি দেন যোগী। তিনি বলেন, “আমরা এখানে আপনাদের এই বলে আশ্বস্ত করতে চাই যে কোনো শক্তিই অযোধ্যার প্রতি অবিচার করতে পারে না। অযোধ্যা আমাদের ‘আন, বান অওর শান’-এর (মর্যাদা, গর্ব আর সম্মান) প্রতীক। প্রতিটি ভারতীয় জানে অযোধ্যা কী চায়।”

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here