waiting lounge new delhi railway stetion

নয়াদিল্লি: অনেক সময়েই বিশেষ করে শীতকালে উত্তর ভারতে ট্রেন দেরিতে চলা প্রায় নিয়মে পরিণত হয়ে গিয়েছে। আপনি স্টেশনে পৌঁছোলেন, কিন্তু দেখলেন, যে ট্রেনে আপনি উঠবেন, সেটা ছাড়বে নির্ধারিত সময়ের চার-পাঁচ ঘণ্টা, কী আরও বেশি দেরিতে। তখন আপনি কী করবেন? নিশ্চয় ঠেলাঠেলি করে ভিড়ে ঠাসা ওয়েটিং রুমে ঢুকবেন, আর ওয়েটিং রুম পছন্দ না হলে, হয়তো প্ল্যাটফর্মেই বসে থাকবেন।

নয়াদিল্লি স্টেশন থেকে ট্রেন ধরার সময়ে ঠিক এ রকম পরিস্থিতির সম্মুখীন হয়েছেন অনেকে। কিন্তু আপনি কি জানেন ওই স্টেশনেই আপনার বাজেটের মধ্যেই রয়েছে একটি বিলাসবহুল ওয়েটিং লাউঞ্জ, যার তুলনা বিমানবন্দরের লাউঞ্জের সঙ্গে হতে পারে? শুধু আপনি কেন, অনেকেই এটা জানতেন না। একটু বিস্তারিত ভাবে বলা যাক।

নয়াদিল্লি স্টেশনের ১৬ নম্বর প্ল্যাটফর্ম, অর্থাৎ অজমিরি গেট দিয়ে ঢুকলে প্রথম প্ল্যাটফর্মে এই লাউঞ্জ। বিলাসবহুল ঘর, হেলানো গদিযুক্ত চেয়ার এবং বুফে মিলের বন্দোবস্ত রয়েছে এখানে। আজ নয়, নয়াদিল্লিতে এটা তৈরি হয়েছে প্রায় ছ’বছর হয়ে গেল। অথচ সারা দিনে গড়ে মাত্র দেড়শো জনের পা পড়ে এই লাউঞ্জে।

আইআরসিটিসি এই লাউঞ্জটি চালায়। যাত্রীরা এখনও যে এই লাউঞ্জের ব্যাপারে জানতে পারেননি সে কথা মেনে নিয়েছে আইআরসিটিসি কর্তৃপক্ষ। এক আধিকারিকের কথায়, “সারা দিন গড়ে দেড়শো জনের পা পড়ে এখানে। মাঝেমধ্যে কোনো উৎসবের সময়ে সেটা বেড়ে সাড়ে তিনশো পর্যন্ত যায়। অনলাইনেই শুধু নয়, ফাঁকা থাকলে স্পট বুকিং-ও হয়ে যায় এই লাউঞ্জে। কিন্তু মানুষের মধ্যে এটার ব্যাপারে বিশেষ তথ্য এখনও পৌঁছোয়নি।”

বিলাসবহুল এই লাউঞ্জ ব্যবহার করতে হলে খুব বেশি টাকা খরচ করতে হবে, তা-ও নয়। দু’ঘণ্টার জন্য এই লাউঞ্জ ব্যবহার করলে দিতে হবে ১৬৫ টাকা, সেটাই সর্বনিম্ন দাম। দু’ ঘণ্টা পেরিয়ে গেলে তার পর প্রতি ঘণ্টা ৫৫ টাকা। আরামকেদারায় আধশোয়া হবেন, পাবেন ওয়াইফাই পরিষেবাও। দেখতে পারবেন টিভি, পড়তে পারবেন খবরের কাগজ এবং ম্যাগাজিনও। আর বুফে খাওয়া ১৬০ টাকায়।

নয়াদিল্লি স্টেশনের পাশাপাশি বিজয়ওয়াড়া এবং বিশাখাপতনম স্টেশনেও এই লাউঞ্জ তৈরি হয়েছে। খুব শীঘ্রই এই লাউঞ্জ তৈরি হবে আগ্রা ক্যান্টনমেন্ট এবং জয়পুর স্টেশনেও। আইআরসিটিসির তরফ থেকে জানানো হয়েছে, যাত্রীদের মধ্যে এই লাউঞ্জকে জনপ্রিয় করে তুলতে জোরদার প্রচার চালানো হবে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here