অক্সফোর্ড: সাম্যের আইনি অধিকার কিছুক্ষেত্রে পেলেও সমাজে তাঁরা এখনও প্রান্তিক। তৃতীয় লিঙ্গের সেই সব মানুষের জন্যই অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের এই প্রয়াস। ‘হি’ কিংবা ‘শি’-এর পরিবর্তে কথোপকথনের সময় পড়ুয়ারা এবার থেকে ব্যবহার করবে লিঙ্গ নিরপেক্ষ সর্বনাম ‘জি’(ze)। মূলত অক্সফোর্ডের ছাত্র সংগঠনের উদ্যোগেই নতুন সর্বনামের প্রচলন শুরু হল।

বিশ্বের প্রথম সারির বিশ্ববিদ্যালয়গুলির মধ্যে অন্যতম অক্সফোর্ড। তৃতীয় লিঙ্গের অথবা রূপান্তরকামী কোনও ব্যক্তির ক্ষেত্রে ভুল সর্বনাম ব্যবহার করা, বিশ্ববিদ্যালয়ের রীতি অনুযায়ী একটি অপরাধ। স্বাভাবিক ভাবেই আন্দাজ করা হচ্ছে, ভবিষ্যতে অক্সফোর্ড আয়োজিত কনফারেন্স এবং সেমিনারেও ‘জি’ সর্বনামটিই ব্যবহৃত হবে।

সারা পৃথিবী জুড়েই মানবাধিকার কর্মী এবং এলজিবিটি কর্মীরা স্বাগত জানিয়েছেন অক্সফোর্ডের তরুণদের এই পদক্ষেপকে। সেরকমই এক কর্মী পিটার টাটচেলের ভাষায়, “যে কোনো মানুষের নারী অথবা পুরুষ হিসেবে পরিচয় না দেওয়ার অধিকারকে সম্মান জানানো হল”। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের টিনাসি বিশ্ববিদ্যালয়ে আগে থেকেই এর প্রচলন আছে। টাইমস পত্রিকা সূত্রে খবর, একই পথে হাঁটতে চলেছে কেমব্রিজও।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here