খবর অনলাইন: অরল্যান্ডোর পালস্‌ নাইট ক্লাবে সমকামীদের হত্যায় ‘আদৌ দুঃখিত’ নন নর্থ ক্যালিফোর্নিয়ার এক ধর্মযাজক। বরং গির্জার মঞ্চ থেকে ধর্মোপদেশ দেওয়ার সময় তিনি ওই ঘটনায় আনন্দই প্রকাশ করেন।  তিনি বলেন, “এটাই দুঃখের যে এরা আরও বেশি মরল না। বন্দুকবাজ তার কাজ শেষ করে যেতে পারল না, সেটাই দুঃখের। ওই ৫০ জন সমকামীর জন্য খ্রিস্টানদের শোক প্রকাশ করা উচিত নয়।”

ভেরিটি ব্যাপটিস্ট চার্চের যাজক রজার জিমেন্সের বক্তব্য এক টিভি চ্যানেলে সম্প্রচার করা হয়। তিনি জোর গলায় যা বলেছেন তাতে গোটা আমেরিকা জুড়ে ঘৃণার সৃষ্টি হয়েছে। তিনি বলেছেন, “মানুষ জিজ্ঞেস করেন ৫০ জন সমকামী আজ খুন হয়েছে বলে আপনি কি দুঃখিত নন ? না। যা হয়েছে ভালো হয়েছে। এতে সমাজের উপকারই হবে বলে আমি মনে করি। আমি মনে করি অরল্যান্ডো, ফ্লোরিডা আজ রাতে আরও বেশি নিরাপদ। দুঃখের ব্যাপার হল এরা আরও কেন মরল না। দুঃখের ব্যাপার হল সে তার কাজ পুরো করল না – কারণ এই মানুষগুলো হল শিকারি, এরা পাপী। আমি মনে করি সরকারের উচিত এদের সকলকে ধরা, ‘ফায়ারিং ওয়াল’-এ ফায়ারিং স্কোয়াডের সামনে দাঁড় করিয়ে দিয়ে এদের ঘিলু উড়িয়ে দেওয়া।”

ধর্মীয় নেতা-সহ সমাজের সর্ব স্তরের মানুষ ওই যাজকের তীব্র নিন্দা করেছেন। ন্যাশনাল হিস্প্যানিক খ্রিস্টিয়ান লিডারশিপ কনফারেন্সের প্রেসিডেন্ট রেভারেন্ড স্যামুয়েল রদরিগুয়েজ বলেন, “আমি তাঁর পুরো উপদেশটিরই নিন্দা করি।” হিউম্যান রাইটস ক্যাম্পেনের মুখপাত্র জে ব্রাউন বলেন, “ধর্মযাজকের উপদেশে খ্রিস্টানদের জন্য কিছু নেই। গির্জার মঞ্চ থেকে তিনি ঘৃণা প্রচার করছেন।”

ভেরিটি ব্যাপটিস্ট চার্চে সমকামীদের প্রবেশাধিকার নেই। চার্চের ‘হোয়াট উই বিলিভ’ অংশে বলা আছে, “চার্চ মনে করে সমকামিতা একটি পাপ এবং ঈশ্বরের কাছে একটি ঘৃণ্য কাজ। ঈশ্বর মৃত্যুদণ্ড দিয়ে সেই ঘৃণ্য কাজের শাস্তি দেন।”

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here