মুম্বই : নোটবন্দির কাণ্ডকারখানায় গরিব মানুষের মুখে খাবার উঠছে না। কাজ খোয়াচ্ছেন শয়ে শয়ে মানুষ। টাকা তোলার লাইনে দাঁড়িয়ে দেড় মাসে প্রাণ হারিয়েছেন প্রায় নব্বই জন মানুষ। কেন্দ্রীয় সরকার কালোধন মুক্ত করতে আর ধনী-দরিদ্রের মধ্যে সমতা আনতে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে প্রচার চালাচ্ছে। ঠিক সেই সময়ে দাঁড়িয়ে মহারাষ্ট্রে শিল্যানাস করা হল ৩ হাজার ৬০০ কোটি টাকার ছত্রপতি শিবাজির মূর্তির। শনিবার এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এই শিল্যানাস অনুষ্ঠানে জল ও ভূমি পুজো উপলক্ষে শনিবার সকাল সাড়ে এগারোটায় তিনি মুম্বই পৌঁছোন। এ ছাড়াও মুম্বই আর পুনের পাতাল রেল প্রকল্পের শিলান্যাসও করেন মোদী। এ ছাড়া অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাজ্যের রাজ্যপাল বিদ্যাসাগর রাও, শিবসেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরে, সাংসদ উদয়ন রাজে ভোঁসলে প্রমূখ।

অনুষ্ঠানে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবিস বলেন, ১৫ বছরের টানাপোড়েন অবশেষে শেষ হল। মূর্তি তৈরির স্বপ্ন শেষ পর্যন্ত পূরণ হতে চলেছে। এটা শুধু দেশের সর্বোচ্চ মূর্তি নয়, গোটা বিশ্বের সর্বোচ্চ মূর্তি। এটি সফল করার জন্য তিনি প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যদাদ জানিয়েছেন।


মুম্বই উপকূলে আরব সাগরের উপর ১৬ হেক্টর এলাকার একটি ক্ষুদ্র দ্বীপে এই মূর্তিটি তৈরি হবে। ছত্রপতি শিবাজির মূর্তিটির উচ্চতা হবে ২১০ মিটার। এই মূর্তিটির পাশাপাশি এই এলাকাটির সঙ্গে সংযোগ রক্ষা করার জন্য একটি মেট্রোরেল পথও তৈরির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এই পথটি হবে ৩৩.৫ কিলোমিটার লম্বা।

এই মূর্তি তৈরির প্রকল্পটি দীর্ঘদিন ধরে আটকে রয়েছে। তার কারণ, এর ফলে সামুদ্রিক প্রাণীদের জীবন বিপর্যস্ত হবে বলে মনে করছেন পরিবেশবিদরা। তাঁরা এর ঘোর বিরোধিতা করছেন। পাশাপাশি এলাকার মৎস্যজীবী ও নাগরিকরাও এর তীব্র বিরোধিতা করছেন। তাঁদের বক্তব্য, এর ফলে জলজপ্রাণীদের স্বাভাবিক জীবন নষ্ট হবে। এ বিষয়ে নাগরিকদের পক্ষ থেকে একটি অনলাইন প্রচারের ব্যবস্থা করা হয়েছে। ইতিমধ্যেই বহু মানুষ সহমত প্রকাশ করেছেন।

ভূমি ও জলপুজো হওয়ার আগে বিজেপির পক্ষ থেকে একটি শোভাযাত্রার আয়োজন করা হয়। এই শোভাযাত্রায় একটি কলসি করে জল আর ৩৬টি জেলার মাটি এক করে গোটা শহর ঘোরানো হয়। এটি শুরু হয় চেম্বুরের শিবাজি চক থেকে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here