Left Front

কলকাতা: আগামী নভেম্বর মাসেই রাজ্য সম্মেলন অনুষ্ঠিত হতে চলেছে বামফ্রন্টের দুই অন্যতম শরিকের। মূলত ২০১৯ লোকসভা ভোটে জাতীয় কংগ্রেসের সঙ্গে ফ্রন্টের জোটে যাওয়া নিয়ে বড়ো শরিক সিপিএমের সঙ্গে মতানৈক্যের কারণেই ওই রাজ্য সম্মেলনের মঞ্চ থেকেই তারা ফ্রন্ট ছাড়ার কথা ঘোষণা করতে পারে বলে জানা গিয়েছে।

রাজ্যে তৃণমূল কংগ্রেস বিরোধিতা এবং কেন্দ্রে বিজেপি বিরোধিতার দোহাই দিয়ে সিপিএম আগামী লোকসভা নির্বাচনে কংগ্রেসের হাত ধরতে চলেছে বলে আগেই অভিযোগ করেছে ফরওয়ার্ড ব্লক। মাস কয়েক আগেই দলের তরফে জানানো হয়েছে, সিপিএম যদি কংগ্রেসের সঙ্গে জোট অথবা যে কোনো রকমের নির্বাচনী সমঝোতার পথে যায়, সে ক্ষেত্রে তারা বামফ্রন্টের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করতেও পিছপা হবে না। ওই বামপন্থী দলের বিধায়ক আলি ইমরান রামজ (ভিক্টর) সিপিএম নেতৃত্বের প্রতি হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছেন, কংগ্রেস-ফ্রন্ট জোট হলেও তাঁর জেলায় ফরওয়ার্ড ব্লক পৃথক প্রার্থী দেবে।

সে ক্ষেত্রে ওয়াকিবহাল মহলের তরফে, ওই দলের সঙ্গে শাসক দল তৃণমূলের কোনো নতুন সমীকরণেরও ইঙ্গিত মিলেছিল। ভিক্টর নাম ধরেই মন্তব্য করেছিলেন, “সিপিএম নেতারা দিল্লিতে গিয়ে তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাত ধরে আওয়াজ তুলছেন বিজেপি হঠাও। আর রাজ্যে কংগ্রেসের সঙ্গে হাত ধরে বলছেন, তৃণমূল হঠাও। সিপিএমের এই ভণ্ডামি ধরা পড়া গিয়েছে। মানুষ আর বিশ্বাস করছে না এই দলকে”।

কতকটা একই সুরে কথা বলতে শুরু করেছেন আরএসপি নেতৃত্বের একাংশ। আগামী লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি-বিরোধী জোটে সিপিএম জাতীয় কংগ্রেসের সঙ্গে জোটবদ্ধ হয়ে লড়ার ইঙ্গিত পূর্ণমাত্রায় জুগিয়ে চলায় তারা যারপরনাই বিরক্ত। সব মিলিয়ে গত কয়েক মাস ধরেই কংগ্রেসের সঙ্গে যাওয়া, না-যাওয়া নিয়ে দ্বন্দ্ব চরমে উঠেছে বামফ্রন্টে। ফরওয়ার্ড ব্লক এবং আরএসপি এ বিষয়ে চরম সিদ্ধান্ত ওই রাজ্য সম্মেলন থেকেই নিতে চলেছে বলে জানা যাচ্ছে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here