সল্টলেক সেক্টর ফাইভে গণধর্ষণের ঘটনায় দোষী সাব্যস্ত ৪ জনের ২০ বছরের কারাবাস

এ দিন আদালতে জানা যায়, সাজাপ্রাপ্তদের নাম শুভেন্দু নাগ, সৌরভ দে, সুব্রত দত্ত ও অর্ণব বেরা। এদের আগেই গ্রেফতার করেছিল পুলিশ। আদালতে তাদের বিরুদ্ধে তিনটি ধারায় মামলা চলছিল।

0
Rape case accused

ওয়েবডেস্ক: গত ২০১৬ সালের  ২৯ মে সল্টলেক সেক্টর ফাইভে গণধর্ষণের শিকার হয়েছিলেন এক নেপালি তরুণী। বুধবার বারাসত আদালতে দোষী সাব্যস্ত চার জনকে ২০ বছরের কারাবাসের রায় দিল আদালত।

জানা যায়, ঘটনার রাতে পার্ক স্ট্রিট থেকে সেক্টর ফাইভে এসেছিলেন ওই তরুণী। তিনি পেশাগত ভাবে এক জন বার-নর্তকী। গন্তব্য সম্পর্কে দিশা জানতে চেয়ে রাস্তায় দাঁড়িয়ে থাকা এক যুবকের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। সে সময়ই ওই যুবক তাঁকে গন্তব্যের দিকে এগিয়ে নিয়ে যায়। অন্য দিকে পিছন থেকে একটি টাটা সুমো করে গিয়ে ওই চার যুবক তরুণীকে অপহরণ করে। তরুণীকে একে একে বারবার ধর্ষণ করা হয় বলেও প্রমাণিত হয়েছে।

এ দিন আদালতে জানা যায়, সাজাপ্রাপ্তদের নাম শুভেন্দু নাগ, সৌরভ দে, সুব্রত দত্ত ও অর্ণব বেরা। এদের আগেই গ্রেফতার করেছিল পুলিশ। আদালতে তাদের বিরুদ্ধে তিনটি ধারায় মামলা চলছিল।

এ দিন বারাসত আদালতে এই মামলার রায়ে জানায়, গণধর্ষণের মামলায় (৩৭৬ ডি) ২০ বছরের কারাবস ও ২৫ হাজার টাকার জরিমানা, তা অনাদায়ে আরও ৬ মাসের কারাদণ্ড ভোগ করতে হবে দোষীদের। একই সঙ্গে অপহরণের মামলায় (৩৬৬) ১০ বছরের কারাবস এবং ১০ হাজার টাকার জরিমানা, তা অনাদায়ে ৬ মাসের কারাবাস এবং ধর্ষণের মামলায় (৩৭৬) ১০ বছরের কারাবাস, ৫ হাজার টাকা জরিমানা, তা অনাদায়ে আরও ৬ মাসের কারাদণ্ড ভোগ করতে হবে।

[ আরও পড়ুন: অবশেষে মুখরক্ষা! সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়ানো জীবন বিজ্ঞান প্রশ্ন আসল নয় ]

ধারণা করা হচ্ছে, এই বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে যেতে পারে সাজাপ্রাপ্তরা।

------------------------------------------------
কোভিড১৯ বিরুদ্ধে লড়াইকে শক্তিশালী করুনপশ্চিমবঙ্গ সরকারের জরুরি ত্রাণ তহবিলে দান করুন।।
কোভিড১৯ বিরুদ্ধে লড়াইকে শক্তিশালী করুনপশ্চিমবঙ্গ সরকারের জরুরি ত্রাণ তহবিলে দান করুন।।
কোভিড১৯ বিরুদ্ধে লড়াইকে শক্তিশালী করুনপশ্চিমবঙ্গ সরকারের জরুরি ত্রাণ তহবিলে দান করুন।।
কোভিড১৯ বিরুদ্ধে লড়াইকে শক্তিশালী করুনপশ্চিমবঙ্গ সরকারের জরুরি ত্রাণ তহবিলে দান করুন।।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.