কলকাতা: অস্থায়ী কর্মীদের দাবি মেনে মাসে ২৬ দিন কাজের প্রতিশ্রুতি দিলেন পরিবহণমন্ত্রী স্নেহাশিস চক্রবর্তী। অবিলম্বে কর্মবিরতি প্রত্যাহার করার আর্জি জানালেন তিনি। একাধিক দাবিতে দক্ষিণবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহণ সংস্থার অস্থায়ী কর্মীদের আন্দোলনের জেরে কার্যত মুখ থুবড়ে পড়েছিল দক্ষিণবঙ্গের সরকারি বাস পরিষেবা। দীর্ঘ টানাপোড়েনের পরে বড়ো ঘোষণা করলেন পরিবহণমন্ত্রী।

বাসকর্মীদের আন্দোলন উঠছে কি?

মন্ত্রীর আর্জিতে সাড়া দিয়েছেন আন্দোলনরত অস্থায়ী কর্মীরা। তাঁর আশ্বাসের পরে, প্রেসবিবৃতি দিলে কর্মবিরতি তুলে নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন আন্দোলনকারীরা। তবে আপাতত শুঘু দিঘা ডিপো থেকে কর্মবিরতি তুলে নেওয়ার কথা হয়েছে। এই ডিপো থেকেই সবার আগে কর্মবিরতির আন্দোলন শুরু হয়েছিল। টানা ৭ ধরে কর্মবিরতি করছেন কর্মীরা।

কী কারণে আন্দোলনে বাসকর্মীরা

২০১৩ সাল থেকে যাঁরা বাস চালাচ্ছেন, তাঁদের স্থায়ীকরণ, মাসে ২৬ দিন কাজ, ছুটি-সহ অন্যান্য একাধিক সুবিধার দাবিতে আন্দোলনে নামেন এসবিএসটিসির অস্থায়ী কর্মীরা। কর্মীদের দাবি, তাঁরা যে বেতন পাচ্ছেন তাতে সংসার চালানো সম্ভব হচ্ছে না। তারওপর সারা মাস কাজ পাচ্ছেন না তাঁরা। তাঁদের দাবি, কমপক্ষে মাসে ২৬ দিন কাজ দিতে হবে। বেতন বৃদ্ধি করতে হবে। অস্থায়ী কর্মীচারীদের স্থায়ীকরণের ব্যবস্থাও করতে হবে। এ ছাড়াও, তাঁদের যে সমস্ত রুট রয়েছে সেই সমস্ত রুটেই বাস পরিষেবা চালু করতে হবে।

পুজোর মুখে প্রবল সমস্যা

হলদিয়া, দিঘা, মেদিনীপুর, সিউড়ি, রামপুরহাট, বর্ধমান, দুর্গাপুর-সহ বিভিন্ন জায়গায় অনির্দিষ্টকালের জন্য শুরু হয় বাস ধর্মঘট। এই ধর্মঘটের জেরে আন্তঃজেলা বাস পরিষেবা কার্যত স্তব্ধ হয়ে যায়। পুজোর মুখে প্রবল সমস্যায় পড়তে হয় রাজ্যবাসীকে। সোমবারেও বীরভূমের রামপুরহাট, সিউড়ি ডিপো থেকে এসবিএসটির কোনও বাস চলাচল করেনি। দুর্গাপুর, পুরুলিয়া ডিপোতেও চলছে না এসবিএসটির কোনো বাস। বর্ধমান ডিপোতে এসবিএসটির বাস ছাড়লেও তা সংখ্যায় অনেক কম।

পরিবহণমন্ত্রীর আশ্বাস

এ দিন সংবাদ মাধ্যমের কাছে পরিবহণমন্ত্রী বলেন, “পুজোর মুখে সাধারণ মানুষের অসুবিধা হচ্ছে। অস্থায়ী কর্মীদের ২৬ দিনের কাজের একটা দাবি ছিল। আমি এসবিএসটিসি কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কথা বলেছি। আমি দায়িত্ব নিচ্ছি। ২৬ দিনের কাজ ওদের দেওয়া হবে। আমি পুজো মিটলেই কথা বলব ওদের সঙ্গে”।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন