উত্তরাখণ্ডে আটকে ২৭ বাঙালি পর্যটক, বাড়ির ফেরার কাতর আর্জি নবান্নের কাছে

0

চৌকড়ি (উত্তরাখণ্ড): করোনাভাইরাস (Coronavirus) যখন জাল বিস্তার শুরু করেনি, তখনই কুমায়ন ভ্রমণে বেরিয়ে পড়েছিল বাঙালি পর্যটক দলটি। কিন্তু সফরের শেষ প্রান্তে এসে, তাঁরা যে এ ভাবে বিপাকে পড়বেন ঘুণাক্ষরেও আন্দাজ করতে পারেননি তাঁরা।

২৪ মার্চ উত্তরাখণ্ডের (Uttarakhand) কাঠগোদাম থেকে কলকাতার ট্রেনে চড়ার কথা ছিল তাঁদের। কিন্তু তখন থেকেই লকডাউন (Lockdown) শুরু হয়ে গিয়েছে দেশ জুড়ে। ২২ মার্চ থেকে গোটা দেশে বন্ধ করে দেওয়া হয় ট্রেন চলাচল।

ফলে বাঙালি পর্যটকরা আটকে পড়েছেন সাড়ে ছ’হাজার ফুট উচ্চতার ছোট্ট পাহাড়ি জনপদ চৌকড়িতে (Chaukori)। প্রায় বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়া পাহাড়ি জনপদ থেকে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের উদ্দেশে তাঁদের কাতর আবেদন, “দয়া করে উদ্ধার করুন”।

১৩ মার্চ কলকাতা থেকে রওনা দিয়েছিলেন এই বাঙালি পর্যটকেরা। নৈনিতাল, কৌশানি, মুন্সিয়ারি হয়ে তাঁরা পৌঁছেছিলেন চৌকড়িতে। কিন্তু তত দিনে গোটা বিশ্বে ত্রাস হয়ে উঠেছে করোনা। ভারতেও পরিস্থিতি ক্রমশ সঙ্কটজনক হচ্ছে।

বাড়ি ফেরা যে কঠিন হয়ে উঠতে চলেছে, সে আশঙ্কা দানা বাঁধতে শুরু করেছিল পাহাড়ে পাহাড়ে ঘুরতে থাকা বাঙালি পরিবারগুলোর মধ্যে। কিন্তু উপায়ান্তর খুঁজে পাওয়ার আগেই সব বন্ধ হয়ে গিয়েছে দেশ জুড়ে।

এক পর্যটক বলেন, “চৌকড়ি খুব সুন্দর জায়গা। কিন্তু এ ভাবে কত দিন কাটাতে পারব এখানে।” তাঁদের দলে বয়স্ক মানুষও রয়েছেন। রাতের ঠান্ডায় সমস্যায় পড়তে পারেন তাঁরা। টানা ২১ দিন কোনো ভাবেই এখানে কাটানো সম্ভব নয় বলে জানাচ্ছেন তাঁরা।

স্থানীয় প্রশাসন অবশ্য যোগাযোগ করেছে আটকে পড়া বাঙালি পর্যটকদের সঙ্গে। পিথোরাগড়ের এসডিএম মঙ্গলবারই চৌকোরির রিসর্টে গিয়ে কথা বলে এসেছেন। কারও কোনো সমস্যা হবে না, নিত্যপ্রয়োজনীয় সব জিনিস তাঁরা পাবেন, ওষুধের সরবরাহও অক্ষুণ্ণ থাকবে, এমনও আশ্বাস দেওয়া হয়েছে। কিন্তু তার পরেও আশঙ্কা কাটছে না।

আরও পড়ুন করোনাভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে দেশ জুড়ে ‘সুরক্ষারেখা’ মেনেই কেনাকাটা

তাঁরা যে কোনো পরিস্থিতিতে রাজ্যে ফিরতে চান। এই ব্যাপারে নবান্নের কাছে কাতর আবেদনও করেছেন। রাজ্য প্রশাসনের কাছে অবশ্য সে খবর এ দিন পৌঁছেছে। প্রশাসন সব রকম ভাবেই ওই পর্যটকদের ফিরিয়ে আনার চেষ্টা চালাচ্ছে বলে জানা গিয়েছে।

------------------------------------------------
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.