কলকাতা : রাতের অন্ধকারে বন্দিদের গায়ে দেওয়ার চাদর ছিড়ে দড়ি বানিয়ে রীতিমতো সুপরিকল্পিত ভাবে পাঁচিল টপকালো তিন বিচারাধীন বাংলাদেশি বন্দি। তাও আবার আদি গঙ্গার দিকের পাঁচিলের কাছে ওয়াচ টাওয়ার একদম পাশ দিয়ে। পলাতক এই তিন বন্দি হল, ফেরার ফারুক হাওলাদার, ইমন চৌধুরি, ফিরদৌস শেখ।

২০১৩ সালে ডাকাতির অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়েছিল ফারুককে। ২০১৪ সালে গ্রেফতার হয় ইমন। অপহরণের অভিযোগ ছিল ইমনের বিরুদ্ধে। বেআইনি অনুপ্রবেশ আর ডাকাতির অভিযোগে গ্রেফতার করা হয় ফিরদৌসকে।

সূত্রের খবর, শনিবার রাতের খাবার খাওয়ার পরই বন্দিরা পালায়। রবিবার সকালে নিয়ম মাফিক বন্দিদের গণনার সময় ওই তিন জনকে খুঁজে না পেতেই হুলুস্থুলু বেঁধে যায়। ঘটনাস্থলে পৌঁছে যান কলকাতা পুলিশের পদস্থ আধিকারিকরা। তদন্তের জন্য আনা হয় পুলিশ কুকুরকে। রেকর্ড করা হয়েছে রাতের পাহাড়ায় থাকা রক্ষীদের বয়ানও। খতিয়ে দেখা হচ্ছে সিসিটিভি ফুটেজ। সারারাত নিরাপত্তারক্ষীরা পাহারায় থাকা সত্ত্বেও কী ভাবে খোদ ওয়াচ টাওয়ারের পাশ দিয়েই পালালো বন্দিরা সেটাই ভাবিয়ে তুলেছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে। সূত্রে জানা গিয়েছে, হ্যাক্সো বেল্ড দিয়ে কয়েকদিন ধরে জেলের গরাদ কাটে তারা।

ইতিমধ্যেই রাজ্যের সব ক’টি থানায় ঘটনাটি জানানো হয়েছে। ছবিও পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে থানাগুলিতে। বিশেষ করে সীমান্তবর্তী থানায় বিশেষ সতর্কতা জারি করা হয়েছে। কারণ আশঙ্কা করা হচ্ছে, সীমান্ত পেরিয়ে পালিয়ে যেতে পারে ওই তিন বন্দি।

সূত্রের খবর, এই বিষয়ে বিএসএফের সঙ্গেও যোগাযোগ করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, মাত্র কয়েক দিনের ঘটনা। কলকাতা আলিপুর জেলেই বন্দি সন্দেহ ভাজন আইএস জঙ্গি মুসা। গত মাসেই একজন ওয়ার্ডনের গলায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপ মারে মুসা। তাই নিয়ে দারুণ আতঙ্ক আর শোরগোল পড়ে যায় সেন্ট্রাল জেলে। তার রেশ কাটতে না কাটতেই আবার এই ঘটনা।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন