২০১৫ সালের শারোদৎসবে বিতর্ক জমে উঠেছিল দেশপ্রিয় পার্ক সর্বজনীন দুর্গোৎসবকে কেন্দ্র করে। ‘বিশ্বের সবচেয়ে বড় দুর্গা’-র বিজ্ঞাপন এবং তার জেরে ব্যাপক ভিড়ের ঠেলায় উৎসবের মাঝেই বন্ধ করে দিতে হয় প্রতিমা দর্শন। কলকাতা পুলিশ, পুরসভা ও পুজো কমিটির মধ্যে বিতর্ক বেধে যায়, আদৌ ঠিক ভাবে অনুমতি নেওয়া হয়েছিল কি না, তা নিয়ে। আবার এসে পড়ছে শারোদৎসব। কী হতে চলেছে এবারে দেশপ্রিয় পার্ক সর্বজনীন পুজো কমিটির শারোদৎসবের আকর্ষণ ?

durga_deshapriya-park-1

প্রতিমা, আলো, মন্ডপ নিয়ে রকমারি প্রতিযোগিতা কলকাতার পুজোর চেনা ছবি বহুদিন। নামজাদা থেকে ছোটখাট সংস্থা সকলেই বিভিন্ন পুরস্কার দিয়ে থাকেন পুজোর মরশুমে। সেই লড়াইতে নজর কাড়তে এবার নতুন চমকের পথে হাঁটতে চলেছেন এই পুজোর উদ্যোক্তারা। পুজো কমিটির সাধারণ সম্পাদক সুদীপ্ত কুমার খবর অনলাইন-কে জানালেন, ‘এবার প্রায় ৪০ ফুটের বেশি লম্বা অসুর তৈরি করে কলকাতাবাসীর কাছে বিশেষ উপহার দিতে চলেছি। এত বড় অসুর রাজ্যে এর আগে কোনও দিন হয় নি। আগের বছর ৮৮ ফুটের দুর্গা তৈরি হয়েছিল। সেটা বিশ্বের বড় দুর্গা হিসাবে স্বীকৃত হয়েছিল। এবার আমাদের অসুরও খুবই চমকপ্রদ হবে বলে আমরা মনে করছি। শুধু অসুর নয় এবার মন্ডপে থাকছে বিশেষ কিছু  আলোর ঝলক, যা কলকাতাবাসীকে এই মন্ডপের দিকে টেনে আনবে’।  এছাড়াও থাকবে  নানা কিছু, কিন্তু সেগুলো আপাতত সিক্রেটই রাখতে চান সুদীপ্তবাবু। প্রতিযোগিতার বাজারে যা হয়।

durga_deshapriya-park-2

তিনি আরও বলেন, ‘আগের বছর বিশ্বের বড় দুর্গা তৈরি করে বিতর্ক তৈরি হয়েছিল। এবার আমরা কোনও বির্তকের মধ্যে যেতে চাইছি না । সরকারি নির্দেশ মেনেই এই বছর দুর্গাপ্রতিমা, অসুর ও মন্ডপ তৈরি করা হচ্ছে। এবার পুজো মন্ডপের নিরাপত্তায় থাকছে ২০ টি সিসিটিভি ক্যমেরা, থাকছেন কলকাতা পুলিশের থেকে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত নিরাপত্তারক্ষীরা।

কিছুদিন আগেই কলকাতার পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমার আলাদা করে দেশ্রপ্রিয় পার্কের পুজো কমিটির প্রতিনিধিদের তলব করেছিলেন। পুজো কমিটি কলকাতা পুলিশকে জানায়, এবার তাঁরা ৪৫ ফুটের অসুর তৈরি করছে। পুলিশ কমিশনার জানিয়ে দেন, ৪০ ফুটের থেকে বেশি বড় অসুর তৈরি করা যাবে না। সেই মতই তৈরি হচ্ছে অসুর। অন্যদিকে এবার শহরের অন্যান্য পুজোর তুলনায় দেশপ্রিয় পার্কের পুজোর দিকে বাড়তি নজর থাকবে বলে কলকাতা পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here