ওয়েবডেস্ক: বিরল কৃতিত্ব অর্জন করতে চলেছেন বাংলার ৪৮ জন মুসলিম মহিলা। সৌদি আরব সরকার সুযোগ করে দিয়েছে বলেই এই কৃতিত্ব তাঁরা অর্জন করবেন।

কোনো পুরুষ অভিভাবক ছাড়াই হজে যাচ্ছেন এই ৪৮ জন মহিলা, ইতিহাসে যা প্রথম। আগামী জুন থেকে চার জনের একটি করে দলে মক্কার উদ্দেশে রওনা হবেন তাঁরা।

এই সুযোগ এসেছে অবশ্য সৌদি আরব সরকারের জন্যই। কয়েক মাস ধরে নিজেদের উদার মূর্তি তুলে ধরতে বদ্ধপরিকর সৌদি আরব। আগে কোনো মহিলাকে হজে আসতে হলে পুরুষ অভিভাবককে সঙ্গে নিয়ে আসতে হত। সেই নিয়মে এখন বদল এসেছে। ৪৫ বছরের ঊর্ধ্বে মহিলারা কোনো পুরুষ সঙ্গী ছাড়াই হজে আসতে পারবেন, তবে চার জনের দলে আসতে হবে।

এই সুযোগ হাতছাড়া করতে চাননি তোপসিয়ার বাসিন্দা ৭২ বছরের লালি বেগম। তিনি বলেন, “মক্কা মদিনা যাওয়া আমার অনেক দিনের স্বপ্ন ছিল। ঈশ্বর আমাকে এই সুযোগ পাইয়ে দিলেন।” যে চার জনের দলে তিনি মক্কার উদ্দেশে রওনা হবেন সেই দলে রয়েছেন তাঁর মেয়ে ৪৬ বছরের সাহিনা বেগমও। তিনি বলেন, “যখন জানতে পারলাম পুরুষ সঙ্গী ছাড়াই হজে যাওয়া যাবে, তক্ষুনি আবেদন করতে ফেললাম আমরা।”

পনেরো বছর আগে স্বামী হারিয়েছিলেন দক্ষিণ ২৪ পরগণার রাজিয়া বিবি। নতুন নিয়মে এ বার তিনি হজে যাবেন। তিনি বলেন, “আমি বিধবা আর আমার কোনো ছেলেও নেই। সৌদি আরবের নিয়মের জন্য হজে যাওয়া আমার শুধু স্বপ্নই থেকে গিয়েছিল আমার প্রার্থনা ঈশ্বর শুনেছেন। আমি অবশেষে হজে যেতে পারব।”

তবে সৌদি আরবের তরফ থেকে এটাও বলে দেওয়া হয়েছে যে পুরুষ অভিভাবক সঙ্গে না আনলেও, এই সফরে সম্মতি জানিয়ে স্বামী, ভাই বা ছেলের ‘নো অবজেকশন’ চিঠি দিতে হবে তাঁদের। গত বছর ভারত থেকে প্রায় ১ লক্ষ ৭০ হাজার পুণ্যার্থী হজে গিয়েছিলেন। এর মধ্যে প্রায় অর্ধেকই মহিলা ছিলেন।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন