হালিশহরের পর ফের ভেস্তে গেল ‘বাবা-ছেলে’র প্ল্যান!

0
mukul roy and subhrangshu roy

ওয়েবডেস্ক: কাঁচরাপাড়ার ৫ তৃণমূল কাউন্সিলার ক’দিন আগেই যোগ দিয়েছিলেন বিজেপিতে। বৃহস্পতিবার তাঁরা ফের ‘ঘরে’ ফিরলেন।

এ দিন বিধানসভায় আসেন ওই পাঁচ কাউন্সিলার। সেখানেই তাঁরা পুনরায় তৃণমূলে যোগ দেন। স্বাভাবিক ভাবেই এই পুনর্দলবদলে দুর্বল হয়ে গেল বিজেপির কাঁচরাপাড়া পুরসভা দখলের দাবি।

২৮ মে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন এই পাঁচ জন। এ দিন রাজ্যের মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক, ফিরহাদ হাকিম, সুজিত বসুর উপস্থিতিতে বিধানসভায় হয় এই দলবদল। ফিরহাদ বলেন, “২৪-এর মধ্যে আমাদের ১০ হল। আরও চার জন দলে ফিরছেন। তিন জন কাউন্সিলার আগে থেকেই আছেন। ফলে আমরাই কাঁচরাপাড়া পুরসভায় সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেতে চলেছি। ভয় দেখিয়ে বাবা-ছেলে নম্বর বাড়ানোর জন্য যে পরিকল্পনা করেছিলেন, তা ভেস্তে গেল”।

গত মঙ্গলবারই ফিরেছেন হালিশহর পুরসভার চেয়ারম্যান-সহ আট কাউন্সিলার। এর ফলে ২৩ আসনের পুরসভায় তৃণমূলে কাউন্সিলার সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১২। হালিশহর পুরসভা বিজেপির দখলে গিয়েছে বলে মুকুল যে দাবি করেছিলেন, সেটাও প্রায় নিশ্চিহ্ন হয় ওই দলবদলে। গত বুধবারও পুরসভায় গিয়ে মুকুল-পুত্র শুভ্রাংশু দাবি করেন, “যে সমস্ত কাউন্সিলার তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন বলে দাবি করা হচ্ছে, তাঁদের সঙ্গে আমার কথা হয়েছে”।

এর পরই বৃহস্পতিবার ফের দলবদল। তবে গত বুধবারও ওই কাউন্সিলাররা বিধানসভায় যান বলে জানা যায়। সে কথা শুনে শুভ্রাংশু বলেন, “যাঁরা গিয়েছেন, তাঁর কেউ বাচ্চা ছেলে নন। তাঁরা বিধানসভায় গিয়েছেন, যেতেই পারেন। তাঁর মানেই বিজেপি হতাশ হচ্ছে, এমনটা নয়”।

[ আরও পড়ুন: ভাইয়ের জন্য ‘শেষ’ চেষ্টা দাদার ]

প্রসঙ্গত, কাঁচরাপাড়া পুরসভায় মোট ২৪ জন কাউন্সিলার। এঁদের মধ্যে লোকসভা নির্বাচনের পরে তিন জন বাদে বাকি সবাই বিজেপি-তে যোগ দেন। ফলে ওই পুরসভায় সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারায় তৃণমূল কংগ্রেস। তবে এ দিনের দলবদল ইঙ্গিত দিচ্ছে, কাঁচরাপাড়াও নিরাপদ নয় বিজেপির কাছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here