হালিশহরের ৮ কাউন্সিলার তৃণমূলে ফিরতেই দড়ি টানাটানি বিজেপিতে

0
Mukul Roy and Arjun Singh
মুকুলদাকে আগেই বলেছিলাম: অর্জুন। গ্রাফিক্স ছবি

ওয়েবডেস্ক: হালিশহর পুরসভার চেয়ারম্যান অংশুমান রায় তৃণমূলে ফিরতেই চাপান-উতোর চলছে বিজেপিতে। এ ভাবে দিল্লিতে নিয়ে গিয়ে ঘটা করে দলবদলের পরেও কার্যত মুখ পোড়ার বদমান সহ্য করতে হচ্ছে গেরুয়া শিবিরকে। সূত্রের খবর, মঙ্গলবার এই ঘটনার পরই দিল্লিতে নিজেদের ভুল স্বীকার করে নেন বিজেপি নেতা মুকুল রায় এবং অর্জুন সিং। যদিও এমন পরিস্থিতির দায় মুকুলের ওপরেই চাপান অর্জুন।

তৃণমূলের দাবি, এ দিন দলে ফিরেছেন হালিশহর পুরসভার চেয়ারম্যান-সহ আট কাউন্সিলার। এর ফলে ২৩ আসনের পুরসভায় তৃণমূলে কাউন্সিলার সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১২। যদিও তৃণমূলের দাবি নস্যাৎ করেছেন ব্যারাকপুরের বিজেপি সাংসদ অর্জুন। তাঁর মতে, আট নয়, হালিশহরের চারজন কাউন্সিলার তৃণমূলে ফিরেছেন।

একই সঙ্গে খেদোক্তি করে তিনি জানান, “আমি আগেই জানতাম ও বেইমানি করবে। মুকুলদাকে বলেছিলাম। মুকুলদা ওকে বিশ্বাস করেছিল। কিন্তু যা হওয়ার তা হয়েছে”।

অন্য দিকে রাজ্যের পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম সাংবাদিক বৈঠকে বলেন, “কারও কারখানা ভেঙে দেওয়ার কিংবা কারও ছেলের প্রাণহানির হুমকি দিয়ে বিজেপিকে যোগদান করানো হয়েছে৷ এঁরা বিজেপি-তে গিয়ে ছটফট করছিলেন। ওই গেরুয়া ফ্ল্যাগ, গুটখার গন্ধে অতিষ্ঠ হয়েই ফিরে এসেছেন”।

একই সঙ্গে তিনি হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, “দলের শীর্ষ নেতৃত্বের কাছে শুধুমাত্র স্কোর বাড়ানোর জন্য মানুষের ইচ্ছার বিরুদ্ধে গিয়ে বাইকবাহিনী-গুন্ডাবাহিনী নিয়ে সন্ত্রাস তৈরি করছে বিজেপি৷ মিস্টার রায় আর মিস্টার সিং দিল্লির নেতাদের কাছে স্কোর বাড়াচ্ছেন। তবে এর পর যদি সন্ত্রাস করে, তা হলে অর্জুন বাহিনী থাকবে জেলে”।

যদিও এ দিনের ‘ঘর ওয়াপসি’র পরেও নিজের অবস্থানে অনড় অর্জুন। তাঁর দাবি, “এ দিনের দলবদলের পরেও হালিশহর পুরসভায় সংখ্যাগরিষ্ঠ বিজেপি। দিন কয়েকের মধ্যেই অনাস্থা নেই অপসারণ করা হবে চেয়ারম্যানকে। তার পর গঠিত হবে নতুন পুরবোর্ড”।

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন