কলকাতা: কেন্দ্রের বাজেটে বাংলার বরাতে কী জুটেছে, তা নিয়ে চুলচেরা বিশ্লেষণে এখনও ইতি পড়েনি। সম্প্রতি জানা গিয়েছে, পশ্চিমবঙ্গের প্রায় ৮৮১ কিমি রেলপথের বিদ্যুদয়নে ৭৭১.৫৪ কোটি টাকা জন্য বরাদ্দ করেছেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটল।

পূর্ব পরিকল্পনা মতো রাজ্যের আটটি রুটে রেল চলাচল বন্ধ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত থেকে পিছু হঠেছে কেন্দ্র। ঘোষণা করা হয়েছিল কল্যাণী-সীমান্ত, সোনারপুর-ক্যানিং, শান্তিপুর-নবদ্বীপ, বারাসত-হাসনাবাদ, বালিগঞ্জ-বজবজ, বারুইপুর-নামখানা, বর্ধমান-কাটোয়া ও ভীমগঢ়-পলাশীস্থলি- এই ৮ রুটে ট্রেন চালিয়ে লাভ হয় না। ফলে সেগুলি বন্ধ করে দেওয়া হবে। কিন্তু শুধুমাত্র পাবলিক অ্যাকাউন্টস কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতেই রুটিন নোটিশ পাঠানো হয়েছিল বলে জানানো হয়েছে রেলের তরফে। অন্য দিকে মেট্রোর সম্প্রসারণে পর্যাপ্ত অর্থ বরাদ্দ না করায় সেগুলির ভবিষ্যৎ নিয়েই প্রশ্ন উঠে গিয়েছে। তবে সূত্রের খবর, বাংলার অবস্থিত দক্ষিণ-পূর্ব (এসই), উত্তর-পূর্ব ফ্রন্টিয়ার (এনইএফ) এবং পূর্ব রেলের আওতাধীন এই বিস্তৃত রেলপথের বিদ্যুদয়ন হবে।

পূর্ব রেলের অন্তর্গত কাটোয়া-আহমেদপুর রুটটির বিদ্যুদয়নে ব্যয় বরাদ্দ হয়েছে ৫৩.৬৬ কিমি। বর্ধমান ও বীরভূমের এই ৫২ কিমি রেলপথের বিদ্যুদয়নের পরিলকল্পনা নিয়েছে কেন্দ্র। একই ভাবে দক্ষিণ-পূর্ব রেলের ১৮১ কিমি রেলপথের মধ্যে ৭৯ কিমির বিদ্যুদয়নের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে।

কেন্দ্রের ঘোষণা মতো এনইএফ-এর অন্তর্গত ৫০৬ কিমি রেলপথের বিদ্যুদয়ন করা হবে। এর মধ্যে ৪১২ কিমি রয়েছে পশ্চিমবঙ্গে। এই পরিকল্পনা খাতে ব্যয় বরাদ্দ করা হয়েছে ৪৭৫.৩১ কোটি টাকা। অন্য দিকে দক্ষিণ-পূর্ব রেলের অন্তর্গত বাঁকুড়া-মশাগ্রাম রুটের ১১৮ কিমি রেলপথের বিদ্যুদয়নে বরাদ্দ হয়েছে আনুমানিক ৯২.৮০ কোটি টাকা।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন